একই কক্ষে ৬০ মিনিটের বেশি থাকা যাবে না
jugantor
করোনা থেকে সুরক্ষায় করণীয়
একই কক্ষে ৬০ মিনিটের বেশি থাকা যাবে না

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৮ এপ্রিল ২০২১, ১৭:৪১:৫২  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনা সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে একই কক্ষে এক টানা ৩০ মিনিট থেকে ৬০ মিনিটের বেশি অনেক লোক না থাকার পরামর্শ দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ।

তিনি বলেন, ‘বর্তমানে করোনা মোকাবেলা করাই আমাদের প্রধান চ্যালেঞ্জ। এজন্য সবাইকে একই কক্ষে এক টানা আধা ঘণ্টা থেকে এক ঘণ্টার বেশি অনেক লোক থাকা যাবে না। এতে বিপদ বাড়বে।’

বাংলাদেশে বর্তমানে করোনাভাইরাসের আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট ব্যাপকহারে সংক্রমণ ছড়াচ্ছে বলে জানিয়েছেন বিএসএমএমইউ উপাচার্য।

বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিভার ক্লিনিকে নতুন ১০০ শয্যার করোনা ইউনিট উদ্বোধন করে একথা জানান তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ডা. মিলন হলে এক সংবাদ সম্মেলনে অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্টে মানুষ বেশি আক্রান্ত হচ্ছে। এ ভ্যারিয়েন্টে প্রায় ৮১ শতাংশ মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে। এতে রোগীদের মৃত্যুহার কম হলেও দীর্ঘমেয়াদী তারা নানা সমস্যায় ভুগছেন।’

এ সময় সবাইকে নিয়মিত গরম পানির গড়গড়া এবং কমপক্ষে দিনে তিনবার গরম পানির ভাপ নেওয়ার পরামর্শ দেন উপাচার্য।

এদিন সকালে তিনি করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেন।

টিকা নেওয়ার পর অধ্যাপক ডা. শারফুদ্দিন বলেন, ‘একমাত্র কার্যকরভাবে টিকাদানের মাধ্যমেই করোনার বর্তমান প্রাদুর্ভাব থামানো সম্ভব। দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার ১৪ দিন পর শরীরে এন্টিবডি তৈরি হবে। এতে আক্রান্ত ও মৃত্যুহার কমে যাবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সারা বিশ্বে টিকাদান শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত আমাদের প্রত্যেকের মাস্ক পরাসহ সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবে হবে। সংক্রমণ থেকে বাঁচতে এর কোনো বিকল্প নেই।’

করোনা থেকে সুরক্ষায় করণীয়

একই কক্ষে ৬০ মিনিটের বেশি থাকা যাবে না

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৮ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৪১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনা সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে একই কক্ষে এক টানা ৩০ মিনিট থেকে ৬০ মিনিটের বেশি অনেক লোক না থাকার পরামর্শ দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ।

তিনি বলেন, ‘বর্তমানে করোনা মোকাবেলা করাই আমাদের প্রধান চ্যালেঞ্জ। এজন্য সবাইকে একই কক্ষে এক টানা আধা ঘণ্টা থেকে এক ঘণ্টার বেশি অনেক লোক থাকা যাবে না। এতে বিপদ বাড়বে।’

বাংলাদেশে বর্তমানে করোনাভাইরাসের আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট ব্যাপকহারে সংক্রমণ ছড়াচ্ছে বলে জানিয়েছেন বিএসএমএমইউ উপাচার্য। 

বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিভার ক্লিনিকে নতুন ১০০ শয্যার করোনা ইউনিট উদ্বোধন করে একথা জানান তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ডা. মিলন হলে এক সংবাদ সম্মেলনে অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্টে মানুষ বেশি আক্রান্ত হচ্ছে। এ ভ্যারিয়েন্টে প্রায় ৮১ শতাংশ মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে। এতে রোগীদের মৃত্যুহার কম হলেও দীর্ঘমেয়াদী তারা নানা সমস্যায় ভুগছেন।’

এ সময় সবাইকে নিয়মিত গরম পানির গড়গড়া এবং কমপক্ষে দিনে তিনবার গরম পানির ভাপ নেওয়ার পরামর্শ দেন উপাচার্য।

এদিন সকালে তিনি করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেন। 

টিকা নেওয়ার পর অধ্যাপক ডা. শারফুদ্দিন বলেন, ‘একমাত্র কার্যকরভাবে টিকাদানের মাধ্যমেই করোনার বর্তমান প্রাদুর্ভাব থামানো সম্ভব। দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার ১৪ দিন পর শরীরে এন্টিবডি তৈরি হবে। এতে আক্রান্ত ও মৃত্যুহার কমে যাবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সারা বিশ্বে টিকাদান শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত আমাদের প্রত্যেকের মাস্ক পরাসহ সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবে হবে। সংক্রমণ থেকে বাঁচতে এর কোনো বিকল্প নেই।’

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস