লকডাউনে খাবার হোটেল রাত-দিন কতক্ষণ খোলা থাকবে
jugantor
লকডাউনে খাবার হোটেল রাত-দিন কতক্ষণ খোলা থাকবে

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১২ এপ্রিল ২০২১, ১৭:৪৩:২১  |  অনলাইন সংস্করণ

হোটেল

করোনা সংক্রমণ রোধে দেশে ১৪ এপ্রিল থেকে সারা দেশে সর্বাত্মক লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছে সরকার। এ সংক্রান্ত কঠোর বিধিনিষেধের আওতায় হোটেল–রেস্তোরাঁ খোলা থাকবে। তবে খোলা রাখার বিষয়ে নতুন সময়সূচি নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে।

সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের জারি করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ১৪ এপ্রিল থেকে খাবারের দোকান, হোটেল ও রেস্তোরাঁ দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা এবং রাত ১২টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। তবে হোটেল ও রেস্তোরাঁয় বসে কেউ খাবার খেতে পারবেন না। শুধু খাবার কিনে নিয়ে যাওয়া যাবে। অনলাইনেও খাবার কেনা যাবে।

এর আগে ৫ এপ্রিল থেকে সাত দিন কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে সরকার। পরে মন্ত্রিপরিষদ তার মেয়াদ আরও দুই দিন বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে। জারি করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, খাবারের দোকানে বসে খাওয়া যাবে না, কেবল পার্সেল আকারে খাবার বিক্রি করা যাবে। তবে কোনো সময়সীমা উল্লেখ করা হয়নি।

এদিকে বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতি সরকারের এ সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে এক বিবৃতি দেয়। সোমবার দেওয়া ওই বিবৃতিতে বলা হয়, দুর্যোগ মুহূর্তে এই উপযোগী সিদ্ধান্ত ব্যবসায়ীদের মধ্যে কিছুটা স্বস্তি আনবে।

লকডাউনে খাবার হোটেল রাত-দিন কতক্ষণ খোলা থাকবে

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১২ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৪৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
হোটেল
ছবি: সংগৃহীত

করোনা সংক্রমণ রোধে দেশে ১৪ এপ্রিল থেকে সারা দেশে সর্বাত্মক লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছে সরকার। এ সংক্রান্ত কঠোর বিধিনিষেধের আওতায় হোটেল–রেস্তোরাঁ খোলা থাকবে। তবে খোলা রাখার বিষয়ে নতুন সময়সূচি নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে।

সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের জারি করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ১৪ এপ্রিল থেকে খাবারের দোকান, হোটেল ও রেস্তোরাঁ দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা এবং রাত ১২টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। তবে হোটেল ও রেস্তোরাঁয় বসে কেউ খাবার খেতে পারবেন না। শুধু খাবার কিনে নিয়ে যাওয়া যাবে। অনলাইনেও খাবার কেনা যাবে।

এর আগে ৫ এপ্রিল থেকে সাত দিন কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে সরকার।  পরে মন্ত্রিপরিষদ তার মেয়াদ আরও দুই দিন বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে।  জারি করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, খাবারের দোকানে বসে খাওয়া যাবে না, কেবল পার্সেল আকারে খাবার বিক্রি করা যাবে। তবে কোনো সময়সীমা উল্লেখ করা হয়নি।

এদিকে বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতি সরকারের এ সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে এক বিবৃতি দেয়। সোমবার দেওয়া ওই বিবৃতিতে বলা হয়, দুর্যোগ মুহূর্তে এই উপযোগী সিদ্ধান্ত ব্যবসায়ীদের মধ্যে কিছুটা স্বস্তি আনবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

আরও খবর