ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মানুষের দুর্ভোগ আরও কিছুদিন বাড়বে: রেলমন্ত্রী
jugantor
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মানুষের দুর্ভোগ আরও কিছুদিন বাড়বে: রেলমন্ত্রী

  যুগান্তর প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া  

১২ এপ্রিল ২০২১, ২১:০৫:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

রেলপথ মন্ত্রী মো. নুরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মানুষের দুর্ভোগ আরও কিছুদিন বাড়বে। কারণ স্টেশনের যেগুলো পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে, সেগুলো ঠিকঠাক করার জন্য সময়ের প্রয়োজন। সিগনালিং ব্যবস্থা সম্পূর্ণ ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। আমরা চেষ্টা করব যত দ্রুত সম্ভব এগুলো ঠিক করে যেন ট্রেন আবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশনে থামাতে পারি।

সোমবার দুপুর আড়াইটায় হেফাজত তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশন পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের বিরোধিতা করে গত ২৬ মার্চ বিকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশনে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে হেফাজতে ইসলামের কর্মী-সমর্থকরা। এর ফলে গত ২৭ মার্চ থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রেলওয়ে স্টেশনে সকল ট্রেনের যাত্রাবিরতি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ রয়েছে।

রেলপথ মন্ত্রী মো. নুরুল ইসলাম সুজন বলেন, ২০১৩-২০১৪ সালে দেশকে জ্বালিয়ে-পুড়িয়ে কারা ছারখার করেছিল? এই একই শক্তি। এই আক্রমণ সরকারের বিরুদ্ধে নয়, রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে। কাজেই বোঝা যাচ্ছে এরা স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি। এর বিরুদ্ধে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হওয়া ছাড়া কোনো বিকল্প পথ নেই। যারা এগুলোর সঙ্গে জড়িত অবশ্যই তাদেরকে চিহ্নিত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ সময় মন্ত্রীর সঙ্গে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সেলিম রেজা, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত উদ দৌলা খান, পুলিশ সুপার মো. আনিসুর রহমান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মানুষের দুর্ভোগ আরও কিছুদিন বাড়বে: রেলমন্ত্রী

 যুগান্তর প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া 
১২ এপ্রিল ২০২১, ০৯:০৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রেলপথ মন্ত্রী মো. নুরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মানুষের দুর্ভোগ আরও কিছুদিন বাড়বে। কারণ স্টেশনের যেগুলো পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে, সেগুলো ঠিকঠাক করার জন্য সময়ের প্রয়োজন। সিগনালিং ব্যবস্থা সম্পূর্ণ ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। আমরা চেষ্টা করব যত দ্রুত সম্ভব এগুলো ঠিক করে যেন ট্রেন আবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশনে থামাতে পারি।

সোমবার দুপুর আড়াইটায় হেফাজত তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশন পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের বিরোধিতা করে গত ২৬ মার্চ বিকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশনে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে হেফাজতে ইসলামের কর্মী-সমর্থকরা। এর ফলে গত ২৭ মার্চ থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রেলওয়ে স্টেশনে সকল ট্রেনের যাত্রাবিরতি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ রয়েছে।

রেলপথ মন্ত্রী মো. নুরুল ইসলাম সুজন বলেন, ২০১৩-২০১৪ সালে দেশকে জ্বালিয়ে-পুড়িয়ে কারা ছারখার করেছিল? এই একই শক্তি। এই আক্রমণ সরকারের বিরুদ্ধে নয়, রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে। কাজেই বোঝা যাচ্ছে এরা স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি। এর বিরুদ্ধে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হওয়া ছাড়া কোনো বিকল্প পথ নেই। যারা এগুলোর সঙ্গে জড়িত অবশ্যই তাদেরকে চিহ্নিত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ সময় মন্ত্রীর সঙ্গে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সেলিম রেজা, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত উদ দৌলা খান, পুলিশ সুপার মো. আনিসুর রহমান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন