সাংবাদিক আফজালের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহার চায় সিআরইউ 
jugantor
সাংবাদিক আফজালের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহার চায় সিআরইউ 

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

৩০ মে ২০২১, ১৫:৪৪:৫৪  |  অনলাইন সংস্করণ

সাংবাদিক আফজাল হোসেনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ও মানহানির অভিযোগে পৃথক দুটি মামলা দায়েরে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে ঢাকা কোর্ট রিপোর্টার্স ইউনিটি (সিআরইউ)।

একইসঙ্গে মামলা দুটি অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি।

রোববার সংগঠনটির সভাপতি হাসিব বিন শহিদ ও সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম এক বিবৃতিতে এ প্রতিবাদ জানান।

বিবৃতিতে বলা হয়, দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দেওয়া তদন্ত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে সুপ্রিমকোর্টে কর্মরত সাংবাদিকদের সংগঠন ল’ রিপোর্টার্স ফোরামের (এলআরএফ) সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও সময় টিভির সিনিয়র সাংবাদিক আফজাল হোসেন তার প্রতিবেদন তৈরি করেন।

এখানে তার ব্যক্তিগত কোনো মতামত ও বক্তব্য প্রচারিত হয়নি। বরং তিনি সাংবাদিকতার বস্তুনিষ্ঠতা বজায় রেখেই প্রতিবেদনটি তৈরি করেছেন।

অথচ সাংবাদিক আফজালের বিরুদ্ধে হয়রানিমূলকভাবে মামলা করা সাংবাদিকতা ও মুক্তগণমাধ্যমের নীতির বিরুদ্ধে।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, দীর্ঘদিন ধরে আফজাল হোসেন সংবাদের বস্তুনিষ্ঠতা বজায় রেখে সুনামের সঙ্গে সাংবাদিকতা করছেন। কিন্তু গণমাধ্যমের স্বাধীনতাকে গলা চেপে ধরার প্রয়াসে সাংবাদিক আবজালের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও হয়রানিমূলক মামলা করা হয়েছে।

এ ঘটনার জন্য ঢাকা নিম্ন আদালতের সাংবাদিকদের সংগঠন কোর্ট রিপোর্টার্স ইউনিটি (সিআরইউ) তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদের পাশাপাশি অবিলম্বে মামলা প্রত্যাহারের আহ্বান জানাচ্ছে।

জানা গেছে, নোয়াখালীর জেলা জজ আদালতের একজন কর্মচারীর বিরুদ্ধে দুর্নীতির প্রতিবেদন করায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ও মানহানির অভিযোগে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়।

নোয়াখালী আদালতের নাজির আলমগীর হোসেন ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা করেন। এছাড়া ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দাবি করে তিনি আরেকটি মামলা করেন। এসব মামলার আসামি করা হয় সাংবাদিক আফজাল হোসেনকে।

সাংবাদিক আফজালের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহার চায় সিআরইউ 

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
৩০ মে ২০২১, ০৩:৪৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সাংবাদিক আফজাল হোসেনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ও মানহানির অভিযোগে পৃথক দুটি মামলা দায়েরে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে ঢাকা কোর্ট রিপোর্টার্স ইউনিটি (সিআরইউ)। 

একইসঙ্গে মামলা দুটি অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি। 

রোববার সংগঠনটির সভাপতি হাসিব বিন শহিদ ও সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম এক বিবৃতিতে এ প্রতিবাদ জানান।

বিবৃতিতে বলা হয়, দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দেওয়া তদন্ত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে সুপ্রিমকোর্টে কর্মরত সাংবাদিকদের সংগঠন ল’ রিপোর্টার্স ফোরামের (এলআরএফ) সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও সময় টিভির সিনিয়র সাংবাদিক আফজাল হোসেন তার প্রতিবেদন তৈরি করেন। 

এখানে তার ব্যক্তিগত কোনো মতামত ও বক্তব্য প্রচারিত হয়নি। বরং তিনি সাংবাদিকতার বস্তুনিষ্ঠতা বজায় রেখেই প্রতিবেদনটি তৈরি করেছেন। 

অথচ সাংবাদিক আফজালের বিরুদ্ধে হয়রানিমূলকভাবে মামলা করা সাংবাদিকতা ও মুক্তগণমাধ্যমের নীতির বিরুদ্ধে।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, দীর্ঘদিন ধরে আফজাল হোসেন সংবাদের বস্তুনিষ্ঠতা বজায় রেখে সুনামের সঙ্গে সাংবাদিকতা করছেন। কিন্তু গণমাধ্যমের স্বাধীনতাকে গলা চেপে ধরার প্রয়াসে সাংবাদিক আবজালের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও হয়রানিমূলক মামলা করা হয়েছে। 

এ ঘটনার জন্য ঢাকা নিম্ন আদালতের সাংবাদিকদের সংগঠন কোর্ট রিপোর্টার্স ইউনিটি (সিআরইউ) তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদের পাশাপাশি অবিলম্বে মামলা প্রত্যাহারের আহ্বান জানাচ্ছে। 

জানা গেছে, নোয়াখালীর জেলা জজ আদালতের একজন কর্মচারীর বিরুদ্ধে দুর্নীতির প্রতিবেদন করায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ও মানহানির অভিযোগে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়।

নোয়াখালী আদালতের নাজির আলমগীর হোসেন ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা করেন। এছাড়া ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দাবি করে তিনি আরেকটি মামলা করেন। এসব মামলার আসামি করা হয় সাংবাদিক আফজাল হোসেনকে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন