পরীমনির গোয়েন্দা কার্যালয় আসার কারণ জানালেন ডিবির হারুন
jugantor
পরীমনির গোয়েন্দা কার্যালয় আসার কারণ জানালেন ডিবির হারুন

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৫ জুন ২০২১, ২০:২৪:১০  |  অনলাইন সংস্করণ

ডিবির যুগ্ম-কমিশনার হারুন অর রশীদ

ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলায় ৫ আসামি গ্রেফতারেরপর দিন মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে মিন্টো রোডে ডিবি কার্যালয়ে যান চিত্রনায়িকা পরীমনি।

পরে সেখান থেকে তিনি সন্ধ্যার কিছু আগে বের হন। সেসময় তিনি গণমাধ্যমের মুখোমুখি হন। সাংবাদিকদের নানা প্রশ্নের উত্তর দেন। এ সময় উপস্থিত ডিবি উত্তর বিভাগের যুগ্ম-কমিশনার হারুন অর রশীদ পরীমনির বিষয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন।

পরীমনিকে কেন ডাকা হয়েছে জানতে চাইলে হারুন বলেন, আপনারা জানেন পরীমনি বাংলাদেশের একজন স্বনামধন্য নায়িকা। একদিকে সে স্বনামধন্য নায়িকা, আরেকদিকে হচ্ছে আমাদের ছোট বোন। সে হিসেবে আমাদের দায়িত্বটা হচ্ছে, যখন আমরা মিডিয়াতে ওর কথাটা শুনলাম, তখন আমাদের ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ আমাদের বলেছেন বিষয়টা একটু দেখ।

আসামি দ্রুত গ্রেফতারের কথা জানিয়ে ডিবির এ কর্মকর্তা বলেন, মামলা হওয়ার ১২ ঘণ্টার মধ্যেই কিন্তু আমরা আসামিদের গ্রেফতার করেছি। পরীমনি আপনাদের ইতিমধ্যে বলেছে, পুলিশ ম্যাজিকের মতো কাজ করেছে। তিনি বলেছেন, আমি ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশের কাছে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলাম, শিল্পীসমিতিতে আমি আবেদনও করেছিলাম, কিন্তু আমি ওনার কাছে যেতে পারিনি।

ডিবি যগ্মকমিশনার বলেন, উনি যেতে পারে নাই। তারপরও আমাদের ইন্সপেক্টর জেনারেল ঘটনা জানার সঙ্গে সঙ্গেই উনি আমাদেরকে ইনফর্ম করেছেন, আমরা তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে সকালে তাদের গ্রেফতার করেছি।

বনানী থানায় পরীমনির অভিযোগ না নেওয়ার বিষয়ে ডিবির এ কর্মকর্তা বলেন, বনানী থানায় ভোররাত ৪টায় গিয়েছিলেন। তখন ওসি সাহেব ছিলেন না। উনি একটু অস্বস্তিবোধ করেছিলেন, বোট ক্লাবের বিষয়টি তিনি মেনে নিতে পারেননি। তিনি অসুস্থ ছিলেন। তিনি পুলিশকে নিয়ে হাসপাতালে চলে গিয়েছিলেন। তিনি আইজিপি স্যারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু শিল্পী সমিতির লোকজন তাকে সেই সুযোগটা করে দেয়নি বলে তার অভিযোগ ছিল।

পুলিশকে ধন্যবাদ জানানোর কথা জানিয়েছে তিনি বলেন, আজকে দেখেন তিনি পুলিশকে ধন্যবাদ দেওয়ার জন্য, আমরা যে ম্যাজিকের মতো কাজটা করেছি উনি বাসা থেকে আমাদের ডিবি অফিসে চলে এসেছেন। উনি এসে আমাদের ধন্যবাদ দিয়েছেন। এ ছাড়া তার মামলার যাবতীয় বিষয় নিয়ে কথা বলেছি।

‘উনি আমাদের কাছে বলেছেন, মামলাটা যেন সুষ্ঠুভাবে সমাধান হয়। আর যারা যত বড় শক্তিশালী হয়, তাদের যেন ছাড় না দেওয়া হয়। ’

‘আমরা ওনাকে আশ্বস্ত করেছি। যে যত বড় হউক কাউকে আমরা ছাড় দেব না। আমরা এই মামলাটি সমাপ্ত পর্যন্ত সহযোগিতা করব। তিনি আমাদের কাছে এ সাহায্য চেয়েছেন। আরও আসামি থেকে থাকে তাদেরও গ্রেফতার করব’।

‘আমরা শিল্পী সমিতির যারা আছেন সকলকে নিয়ে একসঙ্গে মিলেমিশে কাজ করব। ওনাদের যে কোনো প্রয়োজন হলে আমরা এগিয়ে যাব, এটি আমাদের কাছে আইজি স্যারের নির্দেশনা’।

পরীমনি ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে সোমবার সাভার থানায় একটি মামলা করেন। সেদিন বিকালে ডিবি পুলিশ মামলার মূল অভিযুক্ত নাসির উদ্দিন মাহমুদ, তুহিন সিদ্দিকী অমিসহ পাঁচ জনকে গ্রেফতার করে।

পরীমনির গোয়েন্দা কার্যালয় আসার কারণ জানালেন ডিবির হারুন

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৫ জুন ২০২১, ০৮:২৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ডিবির যুগ্ম-কমিশনার হারুন অর রশীদ
ডিবির যুগ্ম-কমিশনার হারুন অর রশীদ। ছবি: সংগৃহীত

ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলায় ৫ আসামি গ্রেফতারের পর দিন মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে মিন্টো রোডে ডিবি কার্যালয়ে যান চিত্রনায়িকা পরীমনি।   

পরে সেখান থেকে তিনি সন্ধ্যার কিছু আগে বের হন।  সেসময় তিনি গণমাধ্যমের মুখোমুখি হন।  সাংবাদিকদের নানা প্রশ্নের উত্তর দেন।  এ সময় উপস্থিত ডিবি উত্তর বিভাগের যুগ্ম-কমিশনার হারুন অর রশীদ পরীমনির বিষয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন। 

পরীমনিকে কেন ডাকা হয়েছে জানতে চাইলে হারুন বলেন, আপনারা জানেন পরীমনি বাংলাদেশের একজন স্বনামধন্য নায়িকা।  একদিকে সে স্বনামধন্য নায়িকা, আরেকদিকে হচ্ছে আমাদের ছোট বোন। সে হিসেবে আমাদের দায়িত্বটা হচ্ছে, যখন আমরা মিডিয়াতে ওর কথাটা শুনলাম, তখন আমাদের ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ আমাদের বলেছেন বিষয়টা একটু দেখ। 

আসামি দ্রুত গ্রেফতারের কথা জানিয়ে ডিবির এ কর্মকর্তা বলেন, মামলা হওয়ার ১২ ঘণ্টার মধ্যেই কিন্তু আমরা আসামিদের গ্রেফতার করেছি। পরীমনি আপনাদের ইতিমধ্যে বলেছে, পুলিশ ম্যাজিকের মতো কাজ করেছে।  তিনি বলেছেন, আমি ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশের কাছে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলাম, শিল্পীসমিতিতে আমি আবেদনও করেছিলাম, কিন্তু আমি ওনার কাছে যেতে পারিনি।  

ডিবি যগ্মকমিশনার বলেন, উনি যেতে পারে নাই। তারপরও আমাদের ইন্সপেক্টর জেনারেল ঘটনা জানার সঙ্গে সঙ্গেই উনি আমাদেরকে ইনফর্ম করেছেন, আমরা তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে সকালে তাদের গ্রেফতার করেছি।  

বনানী থানায় পরীমনির অভিযোগ না নেওয়ার বিষয়ে ডিবির এ কর্মকর্তা বলেন, বনানী থানায় ভোররাত ৪টায় গিয়েছিলেন।  তখন ওসি সাহেব ছিলেন না। উনি একটু অস্বস্তিবোধ করেছিলেন, বোট ক্লাবের বিষয়টি তিনি মেনে নিতে পারেননি। তিনি অসুস্থ ছিলেন। তিনি পুলিশকে নিয়ে হাসপাতালে চলে গিয়েছিলেন।  তিনি আইজিপি স্যারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু শিল্পী সমিতির লোকজন তাকে সেই সুযোগটা করে দেয়নি বলে তার অভিযোগ ছিল।  

পুলিশকে ধন্যবাদ জানানোর কথা জানিয়েছে তিনি বলেন, আজকে দেখেন তিনি পুলিশকে ধন্যবাদ দেওয়ার জন্য, আমরা যে ম্যাজিকের মতো কাজটা করেছি উনি বাসা থেকে আমাদের ডিবি অফিসে চলে এসেছেন। উনি এসে আমাদের ধন্যবাদ দিয়েছেন।  এ ছাড়া তার মামলার যাবতীয় বিষয় নিয়ে কথা বলেছি।  

‘উনি আমাদের কাছে বলেছেন, মামলাটা যেন সুষ্ঠুভাবে সমাধান হয়। আর যারা যত বড় শক্তিশালী হয়, তাদের যেন ছাড় না দেওয়া হয়। ’    

‘আমরা ওনাকে আশ্বস্ত করেছি। যে যত বড় হউক কাউকে আমরা ছাড় দেব না। আমরা এই মামলাটি সমাপ্ত পর্যন্ত সহযোগিতা করব। তিনি আমাদের কাছে এ সাহায্য চেয়েছেন। আরও আসামি থেকে থাকে তাদেরও গ্রেফতার করব’। 

‘আমরা শিল্পী সমিতির যারা আছেন সকলকে নিয়ে একসঙ্গে মিলেমিশে কাজ করব।  ওনাদের যে কোনো প্রয়োজন হলে আমরা এগিয়ে যাব, এটি আমাদের কাছে আইজি স্যারের নির্দেশনা’। 

পরীমনি ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে সোমবার সাভার থানায় একটি মামলা করেন। সেদিন বিকালে ডিবি পুলিশ মামলার মূল অভিযুক্ত নাসির উদ্দিন মাহমুদ, তুহিন সিদ্দিকী অমিসহ পাঁচ জনকে গ্রেফতার করে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : পরীমনিকে ধর্ষণচেষ্টা