ইউপিএলের কর্ণধার মহিউদ্দিন আহমেদ আর নেই
jugantor
ইউপিএলের কর্ণধার মহিউদ্দিন আহমেদ আর নেই

  সাংস্কৃতিক প্রতিবেদক  

২২ জুন ২০২১, ১১:৩৩:২২  |  অনলাইন সংস্করণ

দেশের খ্যাতিমান প্রকাশক মহিউদ্দিন আহমেদ আর নেই (ইন্না ... রাজিউন)। প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান ইউনিভার্সিটি প্রেস লিমিটেডের (ইউপিএল) কর্ণধার ৭৭ বছর বয়সি এ গুণী মানুষটি সোমবার দিবাগত রাত ১টার দিকে রাজধানীর নিজ বাসায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি ফরিদ আহমেদ। তিনি জানান, ৭৭ বছর বয়সি ‘এমিরেটাস প্রকাশক’ মহিউদ্দিন আহমেদ দীর্ঘদিন মস্তিষ্কের রোগ পারকিনসনসে ভুগছিলেন।

‘তিনি দীর্ঘদিন ধরেই অসুস্থ। বাসাতেই থাকতেন তিনি। কদিন আগে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। তবে তা থেকে সেরেও ওঠেন। কাল রাতে তিনি আমাদের ছেড়ে চলে গেলেন'-যোগ করেন ফরিদ আহমেদ।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার বাদ জোহর গুলশানের আজাদ মসজিদে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হবে, পরে বনানী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

মহিউদ্দিন আহমেদের জন্ম ১৯৪৪ সালে। তার পেশাজীবন শুরু হয় সাংবাদিকতার মাধ্যমে। পরে লাহোরের পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকতা বিষয়ে অধ্যাপনা করেন। পরে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেসের পাকিস্তান শাখায় সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন।

স্বাধীনতার পর অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস, বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী নিযুক্ত হন। তিনি ইউনিভার্সিটি প্রেস লিমিটেডের প্রতিষ্ঠা থেকে এ পর্যন্ত তার প্রকাশক ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকরূপে কর্মরত আছেন।

পুস্তক প্রকাশনায় বিশেষ অবদানের জন্য ১৯৯১ সালে জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্র তাকে স্বর্ণপদক দেয়।


ইউপিএলের কর্ণধার মহিউদ্দিন আহমেদ আর নেই

 সাংস্কৃতিক প্রতিবেদক 
২২ জুন ২০২১, ১১:৩৩ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দেশের খ্যাতিমান প্রকাশক মহিউদ্দিন আহমেদ আর নেই (ইন্না ... রাজিউন)।  প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান ইউনিভার্সিটি প্রেস লিমিটেডের (ইউপিএল) কর্ণধার ৭৭ বছর বয়সি এ গুণী মানুষটি সোমবার দিবাগত রাত ১টার দিকে রাজধানীর নিজ বাসায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। 

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি ফরিদ আহমেদ।  তিনি জানান, ৭৭ বছর বয়সি ‘এমিরেটাস প্রকাশক’ মহিউদ্দিন আহমেদ দীর্ঘদিন মস্তিষ্কের রোগ পারকিনসনসে ভুগছিলেন।

‘তিনি দীর্ঘদিন ধরেই অসুস্থ। বাসাতেই থাকতেন তিনি। কদিন আগে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন।  তবে তা থেকে সেরেও ওঠেন।  কাল রাতে তিনি আমাদের ছেড়ে চলে গেলেন'-যোগ করেন ফরিদ আহমেদ। 

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার বাদ জোহর গুলশানের আজাদ মসজিদে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হবে, পরে বনানী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

মহিউদ্দিন আহমেদের জন্ম ১৯৪৪ সালে। তার পেশাজীবন শুরু হয় সাংবাদিকতার মাধ্যমে। পরে লাহোরের পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকতা বিষয়ে অধ্যাপনা করেন। পরে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেসের পাকিস্তান শাখায় সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন।

স্বাধীনতার পর অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস, বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী নিযুক্ত হন।  তিনি ইউনিভার্সিটি প্রেস লিমিটেডের প্রতিষ্ঠা থেকে এ পর্যন্ত তার প্রকাশক ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকরূপে কর্মরত আছেন।

পুস্তক প্রকাশনায় বিশেষ অবদানের জন্য  ১৯৯১ সালে জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্র তাকে স্বর্ণপদক দেয়।


 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন