দুটি কিডনিই নষ্ট, বাঁচার আকুতি ফাতেমার
jugantor
দুটি কিডনিই নষ্ট, বাঁচার আকুতি ফাতেমার

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২২ জুন ২০২১, ১১:৪৭:০৬  |  অনলাইন সংস্করণ

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব কিডনি ডিজিজেস ইউরোলজি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ফাতেমা বেগম।

ফাতেমা বেগম (৫৫)। দুটি কিডনিই তার অকেজো হয়ে গেছে। বর্তমানে তিনি রাজধানীর শেরেবাংলা নগর ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব কিডনি ডিজিজেস ইউরোলজি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, জটিল রোগে ফাতেমা বেগমের দুটি কিডনিই অকেজো হয়ে গেছে। তার ক্রিয়েটিনিন লেভেল ২৩.৭, হিমোগ্লোবিনের মাত্রা ৪-এর কম এবং অক্সিজেন লেভেল ৮০-এর ঘরে।

ডায়ালাইসিস করালে হয়তো কিছু দিন বাঁচানো যাবে তাকে। কিন্তু হতদরিদ্র ফাতেমার কোনো ছেলেসন্তান নেই। ফলে টাকার অভাবে চিকিৎসা করাতে পারছেন না তিনি।

বর্তমানে তিনি হাসপাতালের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের ৫ নম্বর বেডে চিকিৎসাধীন। আত্মীয়স্বজন ও প্রতিবেশীদের সহযোগিতায় এতদিন চিকিৎসা চললেও এখন টাকার অভাবে ডায়ালাইসিস করাতে পারছেন না।

তাই বেঁচে থাকার তীব্র আকুতি নিয়ে সমাজের বিত্তবানদের কাছে সহযোগিতা চেয়েছেন ফাতেমা।

ফাতেমার বাড়ি গাজীপুর সদর উপজেলার মির্জাপুর বাজারের পাইনশাইল গ্রামে।

ফাতেমার ভাইপো মো. কামরুজ্জামান যুগান্তরকে বলেন, বর্তমানে আমার ফুফুর অবস্থা খুবই খারাপ। তার দুটি কিডনিই নষ্ট হয়ে গেছে। ডাক্তাররা বলেছেন, একমাত্র ডায়ালাইসিস করে তাকে বাঁচিয়ে রাখা সম্ভব।

তিনি আরও বলেন, ফুফুর কোনো ছেলেসন্তান নেই। বয়স হওয়ার কারণে ফুপাও কোনো কাজ করতে পারেন না। তারা খুবই দরিদ্র। এতদিন ফুফুর চিকিৎসা খরচ ধারদেনা করে আমরা চালিয়েছি। এখন ডায়ালাইসিসের টাকা জোগাড় করতে হিমশিম খাচ্ছি। তাই ফুফুকে বাঁচিয়ে তুলতে অনেকটা নিরূপায় হয়ে বিত্তবান ও প্রবাসী ভাইদের কাছে সহযোগিতা চাইছি।

ফাতেমা বেগমকে সাহায্য পাঠাতে চাইলে এই (০১৭৬-২৬১৫৫৪৬) নম্বরে বিকাশ করুন।

দুটি কিডনিই নষ্ট, বাঁচার আকুতি ফাতেমার

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২২ জুন ২০২১, ১১:৪৭ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব কিডনি ডিজিজেস ইউরোলজি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ফাতেমা বেগম।
ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব কিডনি ডিজিজেস ইউরোলজি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ফাতেমা বেগম। ছবি-যুগান্তর

ফাতেমা বেগম (৫৫)। দুটি কিডনিই তার অকেজো হয়ে গেছে। বর্তমানে তিনি রাজধানীর শেরেবাংলা নগর ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব কিডনি ডিজিজেস ইউরোলজি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, জটিল রোগে ফাতেমা বেগমের দুটি কিডনিই অকেজো হয়ে গেছে। তার ক্রিয়েটিনিন লেভেল ২৩.৭, হিমোগ্লোবিনের মাত্রা ৪-এর কম এবং অক্সিজেন লেভেল ৮০-এর ঘরে। 

ডায়ালাইসিস করালে হয়তো কিছু দিন বাঁচানো যাবে তাকে। কিন্তু হতদরিদ্র ফাতেমার কোনো ছেলেসন্তান নেই। ফলে টাকার অভাবে চিকিৎসা করাতে পারছেন না তিনি। 

বর্তমানে তিনি হাসপাতালের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের ৫ নম্বর বেডে চিকিৎসাধীন। আত্মীয়স্বজন ও প্রতিবেশীদের সহযোগিতায় এতদিন চিকিৎসা চললেও এখন টাকার অভাবে ডায়ালাইসিস করাতে পারছেন না। 

তাই বেঁচে থাকার তীব্র আকুতি নিয়ে সমাজের বিত্তবানদের কাছে সহযোগিতা চেয়েছেন ফাতেমা। 

ফাতেমার বাড়ি গাজীপুর সদর উপজেলার মির্জাপুর বাজারের পাইনশাইল গ্রামে। 

ফাতেমার ভাইপো মো. কামরুজ্জামান যুগান্তরকে বলেন, বর্তমানে আমার ফুফুর অবস্থা খুবই খারাপ। তার দুটি কিডনিই নষ্ট হয়ে গেছে। ডাক্তাররা বলেছেন, একমাত্র ডায়ালাইসিস করে তাকে বাঁচিয়ে রাখা সম্ভব। 

তিনি আরও বলেন, ফুফুর কোনো ছেলেসন্তান নেই। বয়স হওয়ার কারণে ফুপাও কোনো কাজ করতে পারেন না। তারা খুবই দরিদ্র। এতদিন ফুফুর চিকিৎসা খরচ ধারদেনা করে আমরা চালিয়েছি। এখন ডায়ালাইসিসের টাকা জোগাড় করতে হিমশিম খাচ্ছি। তাই ফুফুকে বাঁচিয়ে তুলতে অনেকটা নিরূপায় হয়ে বিত্তবান ও প্রবাসী ভাইদের কাছে সহযোগিতা চাইছি। 

ফাতেমা বেগমকে সাহায্য পাঠাতে চাইলে এই (০১৭৬-২৬১৫৫৪৬) নম্বরে বিকাশ করুন। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন