খাগড়াছড়িতে হবে সাত তলা মহিলা কমপ্লেক্স ভবন 
jugantor
খাগড়াছড়িতে হবে সাত তলা মহিলা কমপ্লেক্স ভবন 

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:৫১:৫৯  |  অনলাইন সংস্করণ

মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বলেছেন, খাগড়াছড়ি জেলায় নারী উন্নয়ন ও ক্ষমতায়নে সাত তলা বিশিষ্ট বহুমুখী মহিলা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ করা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারী উন্নয়নে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছেন।

খাগড়াছড়ি পৌর এলাকায় বুধবার দুপুরে এক সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় প্রতিমন্ত্রী খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা শিশু একাডেমি ভবনের উদ্বোধন করেন। শিশু একাডেমি ভবনটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ উপহার বলে তিনি তার বক্তৃতায় বলেন।

খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য বাসন্তী চাকমা, মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সায়েদুল ইসলাম, জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান বেগম চেমন আরা তৈয়ব, মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক রাম চন্দ্র দাস ও শিশু একাডেমির মহাপরিচালক জ্যোতি লাল কুরী। এছাড়া খাগড়াছড়ির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানসহ জনপ্রতিনিধি ও নারী নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার শিশু একাডেমি ভবন নির্মাণের ফলে সাংস্কৃতিক চর্চার মাধ্যমে শিশুদের সুষম মানসিক ও সুপ্ত প্রতিভার বিকাশ হবে। তারা বিজ্ঞান মনস্ক ও সুনাগরিক হিসাবে গড়ে উঠবে। শিশু একাডেমির কার্যক্রম যথাযথ বাস্তবায়নের মাধ্যমে এই জেলার শিশুরা বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে পারবে। তাদের নিজস্ব সংস্কৃতি জাতীয় পর্যায় ও বিদেশেও তুলে ধরতে পারবে।

মন্ত্রী বলেন, মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয় নারী ও শিশুর সুরক্ষায় সচেতনতা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। প্রয়োজনে আইনের কঠোর প্রয়োগ করা হচ্ছে। অপরাধীদের শাস্তি ও দ্রুত বিচার নিশ্চিত করতে সরকার ট্রাইব্যুনাল ও বিচারকের সংখ্যা বৃদ্ধি করেছে।

প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা অভিভাবক ও শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা শিশুদের শুধু পাঠ্যবইয়ে সীমাবদ্ধ রাখবেন না। শিশুদের মেধা ও মনন বিকাশে তাদের সৃজনশীল কাজে যুক্ত করতে হবে।

অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী দুস্থ নারীদের মাঝে খাদ্য সহায়তা ও স্বেচ্ছাসেবী সমিতিকে অনুদানের চেক প্রদান করেন। উদ্বোধন অনুষ্ঠান শেষে শিশুদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক পর্ব অনুষ্ঠিত হয়।

খাগড়াছড়িতে হবে সাত তলা মহিলা কমপ্লেক্স ভবন 

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৫১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বলেছেন, খাগড়াছড়ি জেলায় নারী উন্নয়ন ও ক্ষমতায়নে সাত তলা বিশিষ্ট বহুমুখী মহিলা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ করা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারী উন্নয়নে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছেন। 

খাগড়াছড়ি পৌর এলাকায় বুধবার দুপুরে এক সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় প্রতিমন্ত্রী খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা শিশু একাডেমি ভবনের উদ্বোধন করেন। শিশু একাডেমি ভবনটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ উপহার বলে তিনি তার বক্তৃতায় বলেন। 

খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য বাসন্তী চাকমা, মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সায়েদুল ইসলাম, জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান বেগম চেমন আরা তৈয়ব, মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক রাম চন্দ্র দাস ও শিশু একাডেমির মহাপরিচালক জ্যোতি লাল কুরী। এছাড়া খাগড়াছড়ির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানসহ জনপ্রতিনিধি ও নারী নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার শিশু একাডেমি ভবন নির্মাণের ফলে সাংস্কৃতিক চর্চার মাধ্যমে শিশুদের সুষম মানসিক ও সুপ্ত প্রতিভার বিকাশ হবে। তারা বিজ্ঞান মনস্ক ও সুনাগরিক হিসাবে গড়ে উঠবে। শিশু একাডেমির কার্যক্রম যথাযথ বাস্তবায়নের মাধ্যমে এই জেলার শিশুরা বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে পারবে। তাদের নিজস্ব সংস্কৃতি জাতীয় পর্যায় ও বিদেশেও তুলে ধরতে পারবে।

মন্ত্রী বলেন, মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয় নারী ও শিশুর সুরক্ষায় সচেতনতা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। প্রয়োজনে আইনের কঠোর প্রয়োগ করা হচ্ছে। অপরাধীদের শাস্তি ও দ্রুত বিচার নিশ্চিত করতে সরকার ট্রাইব্যুনাল ও বিচারকের সংখ্যা বৃদ্ধি করেছে।

প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা অভিভাবক ও শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা শিশুদের শুধু পাঠ্যবইয়ে সীমাবদ্ধ রাখবেন না। শিশুদের মেধা ও মনন বিকাশে তাদের সৃজনশীল কাজে যুক্ত করতে হবে। 

অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী দুস্থ নারীদের মাঝে খাদ্য সহায়তা ও স্বেচ্ছাসেবী সমিতিকে অনুদানের চেক প্রদান করেন। উদ্বোধন অনুষ্ঠান শেষে শিশুদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক পর্ব অনুষ্ঠিত হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন