ই-ভ্যালির রাসেল গ্রেফতার, গ্রাহকদের টাকার কী হবে?
jugantor
ই-ভ্যালির রাসেল গ্রেফতার, গ্রাহকদের টাকার কী হবে?

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:১৫:৩০  |  অনলাইন সংস্করণ

ই-ভ্যালির রাসেল ও তার স্ত্রী গ্রেফতার

ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মোহাম্মদ রাসেল এবং তার স্ত্রী ও প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব। তাদের গ্রেফতারের পর গ্রাহকরা নিজেদের পাওনা নিয়ে হতাশায় পড়েছেন। রাসেলকে গ্রেফতারের পর এখন গ্রাহকদের পাওনা টাকা কে দেবেন, এমন প্রশ্ন করছেন গ্রাহকরা।

বৃহস্পতিবার বিকালে রাসেলের মোহাম্মদপুরের স্যার সৈয়দ রোডের বাসায় অভিযান পরিচালনা শেষে তাদের গ্রেফতার করা হয়। রাসেলকে গ্রেফতারের সময় গ্রাহকরা সেখানে ভিড় করেন।

তারা বলেন, রাসেলকে গ্রেফতার করা হলে গ্রাহকরা আরও বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। অতীত অভিজ্ঞতায় দেখা গেছে, ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের যেসব কর্ণধারদের গ্রেফতার করা হয়েছে, সেসব প্রতিষ্ঠান দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত কেউই তাদের বিনিয়োগ করা অর্থ ফেরত পাননি।

বিল্লাল হোসেন নামে একজন গ্রাহক বলেন, ইভ্যালির রাসেলকে যথাযথ নজরদারির মধ্যে রেখে আরও কিছুদিন সময় দেওয়া উচিত। একটা নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দিয়ে তাকে গ্রাহকদের টাকা ফেরত বা পণ্য দিতে বাধ্য করা যেতে পারে। তাকে ধরে নিয়ে গেলে গ্রাহকরা পণ্য বা টাকা কিছুই পাবে না।

ই-ভ্যালির রাসেল গ্রেফতার, গ্রাহকদের টাকার কী হবে?

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:১৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ই-ভ্যালির রাসেল ও তার স্ত্রী গ্রেফতার
ছবি: সংগৃহীত

ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মোহাম্মদ রাসেল এবং তার স্ত্রী ও প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব। তাদের গ্রেফতারের পর গ্রাহকরা নিজেদের পাওনা নিয়ে হতাশায় পড়েছেন। রাসেলকে গ্রেফতারের পর এখন গ্রাহকদের পাওনা টাকা কে দেবেন, এমন প্রশ্ন করছেন গ্রাহকরা।

বৃহস্পতিবার বিকালে রাসেলের মোহাম্মদপুরের স্যার সৈয়দ রোডের বাসায় অভিযান পরিচালনা শেষে তাদের গ্রেফতার করা হয়। রাসেলকে গ্রেফতারের সময় গ্রাহকরা সেখানে ভিড় করেন। 

তারা বলেন, রাসেলকে গ্রেফতার করা হলে গ্রাহকরা আরও বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। অতীত অভিজ্ঞতায় দেখা গেছে, ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের যেসব কর্ণধারদের গ্রেফতার করা হয়েছে, সেসব প্রতিষ্ঠান দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত কেউই তাদের বিনিয়োগ করা অর্থ ফেরত পাননি।

বিল্লাল হোসেন নামে একজন গ্রাহক বলেন, ইভ্যালির রাসেলকে যথাযথ নজরদারির মধ্যে রেখে আরও কিছুদিন সময় দেওয়া উচিত। একটা নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দিয়ে তাকে গ্রাহকদের টাকা ফেরত বা পণ্য দিতে বাধ্য করা যেতে পারে। তাকে ধরে নিয়ে গেলে গ্রাহকরা পণ্য বা টাকা কিছুই পাবে না।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর