খালেদা জিয়ার সাবেক পিএসকে ক্ষমা চাইতে ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম
jugantor
খালেদা জিয়ার সাবেক পিএসকে ক্ষমা চাইতে ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:১৯:৪৯  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে গুজব ও মিথ্যা তথ্য প্রচারের অভিযোগে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সাবেক একান্ত সচিব (পিএস) মোহাম্মদ সামছুল আলমের বিরুদ্ধে আইনি নোটিশ দেওয়া হয়েছে। নোটিশে তাকে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ক্ষমা চাইতে বলা হয়েছে, অন্যথায় আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে।

বুধবার আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা উপ-কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট শওকত আলী পাটোয়ারি তুহিন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ওমর ফারুক (আসিফ) এর মাধ্যমে এ নোটিশ পাঠান।

মোহাম্মদ সামছুল আলমের স্থায়ী ঠিকানা শরীয়তপুরে ও বর্তমান ঠিকানা নিউইয়র্কে এ নোটিশ পাঠানো হয়।

নোটিশে উল্লেখ করা হয়, আপনি (সামছুল আলম) জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কন্যা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে চরম ঘৃণ্য, ঔদ্ধত্যপূর্ণ, অরুচিকর, মিথ্যা ও সম্পূর্ণ বানোয়াট কথা ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন। এর মাধ্যমে আপনি বহির্বিশ্বে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করেছেন। এ লেখা গোটা বাংলাদেশের মানুষের প্রতি অবমাননাকর। এ বক্তব্যে বাংলাদের মানুষ আপনার ওপর ক্ষিপ্ত ও বিক্ষুব্ধ। রাষ্ট্রবিরোধী এ ঔদ্ধত্যপূর্ণ স্ট্যাটাস বাংলাদেশের সব মানুষ এবং আওয়ামী লীগের প্রতিটি কর্মীকে আঘাত করেছে।

আরও বলা হয়, আপনার এ বক্তব্য চরম ঘৃণ্য, ঔদ্ধত্যপূর্ণ, অরুচিকর, মিথ্যা ও সম্পূর্ণ বানোয়াট। এ বক্তব্য ফেসবুকে আপলোড করায় আপনি রাষ্ট্রদ্রোহিতামূলক অপরাধ, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন-২০০৮ এর ধারাসমূহের অপরাধ এবং অন্যান্য ফৌজদারি আইনের অপরাধ করেছেন।

এ নোটিশ পাওয়ার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে আপনি আপনার উল্লেখিত ফেসবুক আইডিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বাংলাদেশের জনগণের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা না করলে আপনার বিরুদ্ধে ফৌজদারি ও দেওয়ানি অধিক্ষেত্রে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নোটিশে মোহাম্মদ সামছুল আলমের ফেসবুকের স্ট্যাটাস ও এটির লিংকও তুলে ধরা হয়।

খালেদা জিয়ার সাবেক পিএসকে ক্ষমা চাইতে ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:১৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে গুজব ও মিথ্যা তথ্য প্রচারের অভিযোগে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সাবেক একান্ত সচিব (পিএস) মোহাম্মদ সামছুল আলমের বিরুদ্ধে আইনি নোটিশ দেওয়া হয়েছে। নোটিশে তাকে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ক্ষমা চাইতে বলা হয়েছে, অন্যথায় আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে।

বুধবার আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা উপ-কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট শওকত আলী পাটোয়ারি তুহিন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ওমর ফারুক (আসিফ) এর মাধ্যমে এ নোটিশ পাঠান।

মোহাম্মদ সামছুল আলমের স্থায়ী ঠিকানা শরীয়তপুরে ও বর্তমান ঠিকানা নিউইয়র্কে এ নোটিশ পাঠানো হয়।

নোটিশে উল্লেখ করা হয়, আপনি (সামছুল আলম) জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কন্যা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে চরম ঘৃণ্য, ঔদ্ধত্যপূর্ণ, অরুচিকর, মিথ্যা ও সম্পূর্ণ বানোয়াট কথা ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন। এর মাধ্যমে আপনি বহির্বিশ্বে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করেছেন। এ লেখা গোটা বাংলাদেশের মানুষের প্রতি অবমাননাকর। এ বক্তব্যে বাংলাদের মানুষ আপনার ওপর ক্ষিপ্ত ও বিক্ষুব্ধ। রাষ্ট্রবিরোধী এ ঔদ্ধত্যপূর্ণ স্ট্যাটাস বাংলাদেশের সব মানুষ এবং আওয়ামী লীগের প্রতিটি কর্মীকে আঘাত করেছে।

আরও বলা হয়, আপনার এ বক্তব্য চরম ঘৃণ্য, ঔদ্ধত্যপূর্ণ, অরুচিকর, মিথ্যা ও সম্পূর্ণ বানোয়াট। এ বক্তব্য ফেসবুকে আপলোড করায় আপনি রাষ্ট্রদ্রোহিতামূলক অপরাধ, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন-২০০৮ এর ধারাসমূহের অপরাধ এবং অন্যান্য ফৌজদারি আইনের অপরাধ করেছেন।

এ নোটিশ পাওয়ার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে আপনি আপনার উল্লেখিত ফেসবুক আইডিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বাংলাদেশের জনগণের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা না করলে আপনার বিরুদ্ধে ফৌজদারি ও দেওয়ানি অধিক্ষেত্রে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নোটিশে মোহাম্মদ সামছুল আলমের ফেসবুকের স্ট্যাটাস ও এটির লিংকও তুলে ধরা হয়। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর