ঝরে পড়া ও পথশিশুদের জন্য পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আক্ষেপ
jugantor
ঝরে পড়া ও পথশিশুদের জন্য পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আক্ষেপ

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৯ অক্টোবর ২০২১, ০২:১২:৫৬  |  অনলাইন সংস্করণ

ঝরে পড়া ও পথশিশুদের জীবন নিয়ে আক্ষেপ প্রকাশ করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে শেখ রাসেল দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ আক্ষেপ প্রকাশ করেন।

‘জীবন উপভোগ করতে না পারা আরেক ধরনের মৃত্যু এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, প্রতিটি শিশু যেন আরও উন্নত জীবন পায় সেটাই রাসেল দিবসের অঙ্গীকার হোক।

শিশুদের প্রতি সকলের দায়বদ্ধতা আছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা শিশুদের জন্য একটি সুন্দর ভবিষ্যৎ গড়ে তুলতে চাই। কিন্তু দুঃখের বিষয় একটা বিরাট সংখ্যক শিশু ঝরে পড়ে। একটি বড় অংশ পথশিশু হয়ে জীবন কাটাচ্ছে। আমরা কীভাবে আমাদের এসব ছেলেমেয়েদের জন্য সুন্দর ভবিষ্যৎ গড়ে তুলতে পারি তা নিয়ে ভাবতে হবে।

প্রতিটি শিশুকে উন্নত জীবন দেওয়ার চেষ্টা চালানো হবে জানিয়ে মোমেন বলেন, দেশের যত শিশু আছে প্রত্যেককে আমরা স্কুলিং দেব, কিংবা তাদের কেয়ারে আরও সজাগ হবো। আমরা চাই, আমাদের শিশুরা জীবন উপভোগ করার সুযোগ পাক।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্মৃতি জাদুঘর এবং ট্রাস্টের সদস্য কিউরেটর মো. নজরুল ইসলাম খান, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম ও পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন।

ঝরে পড়া ও পথশিশুদের জন্য পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আক্ষেপ

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৯ অক্টোবর ২০২১, ০২:১২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ঝরে পড়া ও পথশিশুদের জীবন নিয়ে আক্ষেপ প্রকাশ করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে শেখ রাসেল দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ আক্ষেপ প্রকাশ করেন।

‘জীবন উপভোগ করতে না পারা আরেক ধরনের মৃত্যু এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, প্রতিটি শিশু যেন আরও উন্নত জীবন পায় সেটাই রাসেল দিবসের অঙ্গীকার হোক।

শিশুদের প্রতি সকলের দায়বদ্ধতা আছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা শিশুদের জন্য একটি সুন্দর ভবিষ্যৎ গড়ে তুলতে চাই। কিন্তু দুঃখের বিষয় একটা বিরাট সংখ্যক শিশু ঝরে পড়ে। একটি বড় অংশ পথশিশু হয়ে জীবন কাটাচ্ছে। আমরা কীভাবে আমাদের এসব ছেলেমেয়েদের জন্য সুন্দর ভবিষ্যৎ গড়ে তুলতে পারি তা নিয়ে ভাবতে হবে।

প্রতিটি শিশুকে উন্নত জীবন দেওয়ার চেষ্টা চালানো হবে জানিয়ে মোমেন বলেন, দেশের যত শিশু আছে প্রত্যেককে আমরা স্কুলিং দেব, কিংবা তাদের কেয়ারে আরও সজাগ হবো। আমরা চাই, আমাদের শিশুরা জীবন উপভোগ করার সুযোগ পাক।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্মৃতি জাদুঘর এবং ট্রাস্টের সদস্য কিউরেটর মো. নজরুল ইসলাম খান, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম ও পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন