টিকা নেওয়া থাকলেই যাওয়া যাবে থাইল্যান্ড
jugantor
টিকা নেওয়া থাকলেই যাওয়া যাবে থাইল্যান্ড

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৫ অক্টোবর ২০২১, ২২:২০:৫৮  |  অনলাইন সংস্করণ

থাইল্যান্ড

আগামী ১ নভেম্বর থেকে টিকা নেওয়া থাকলেই থাইল্যান্ড যাওয়ার অনুমতি পাবেন বাংলাদেশিরা। আর এ জন্য দেশটিতে পৌঁছে কোনো কোয়ারেন্টিনও করতে হবে না। ট্যুরিজম খাতে ‘স্যান্ডবক্স স্ক্রিম’ একটি বিশেষ প্রকল্পের আওতায় বাংলাদেশিদের এই সুবিধা দিচ্ছে থাইল্যান্ড। এই সুবিধার আওতায় বাংলাদেশিরা নির্দিষ্ট এলাকায় এক সপ্তাহ কাটানোর পর কোনো বাধা ছাড়াই পুরো থাইল্যান্ড ঘুরতে পারবেন। এ নিয়ে শিগগিরই একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করবে ঢাকার থাই দূতাবাস।

সোমবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায় ঢাকার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এরআগে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলমের সঙ্গে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সাক্ষাৎ করেন ঢাকায় থাইল্যান্ডের নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মাকাওয়াদি সুমিতমোর।

বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী নতুন রাষ্ট্রদূতকে স্বাগত জানান। এ সময় তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, নতুন রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালনকালে বাংলাদেশ ও থাইল্যান্ডের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরও এগিয়ে যাবে। পাশাপাশি বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহযোগিতার মাধ্যমে দুই দেশ নতুন উচ্চতায় পৌঁছাবে।

শাহরিয়ার আলম বলেন, বাংলাদেশ ও থাইল্যান্ড স্বাধীনতার পর থেকে চমৎকার বন্ধুত্বপূর্ণ ও সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক উপভোগ করছে। বাণিজ্য, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, চিকিৎসাসেবা, পর্যটন, বিদেশি বিনিয়োগ, যোগাযোগসহ বিভিন্ন বিষয়ে থাইল্যান্ড বাংলাদেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। দুই দেশের জনগণের মধ্যে আরও যোগাযোগ বাড়াতে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বাধা দূর করতে হবে।

প্রতিমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের প্রতি মানবিক সহায়তার জন্য থাইল্যান্ডকে ধন্যবাদ জানান এবং রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবর্তনে দেশটির রাজনৈতিক সহায়তা কামনা করেন। একইসঙ্গে প্রতিমন্ত্রী আসিয়ান সেক্টরাল ডায়ালগ পার্টনারের জন্য বাংলাদেশের প্রার্থিতার পক্ষে থাই সমর্থন চান।

টিকা নেওয়া থাকলেই যাওয়া যাবে থাইল্যান্ড

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৫ অক্টোবর ২০২১, ১০:২০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
থাইল্যান্ড
ফাইল ছবি

আগামী ১ নভেম্বর থেকে টিকা নেওয়া থাকলেই থাইল্যান্ড যাওয়ার অনুমতি পাবেন বাংলাদেশিরা। আর এ জন্য দেশটিতে পৌঁছে কোনো কোয়ারেন্টিনও করতে হবে না। ট্যুরিজম খাতে ‘স্যান্ডবক্স স্ক্রিম’ একটি বিশেষ প্রকল্পের আওতায় বাংলাদেশিদের এই সুবিধা দিচ্ছে থাইল্যান্ড। এই সুবিধার আওতায় বাংলাদেশিরা নির্দিষ্ট এলাকায় এক সপ্তাহ কাটানোর পর কোনো বাধা ছাড়াই পুরো থাইল্যান্ড ঘুরতে পারবেন। এ নিয়ে শিগগিরই একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করবে ঢাকার থাই দূতাবাস। 

সোমবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায় ঢাকার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এরআগে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলমের সঙ্গে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সাক্ষাৎ করেন ঢাকায় থাইল্যান্ডের নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মাকাওয়াদি সুমিতমোর।

বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী নতুন রাষ্ট্রদূতকে স্বাগত জানান। এ সময় তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, নতুন রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালনকালে বাংলাদেশ ও থাইল্যান্ডের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরও এগিয়ে যাবে। পাশাপাশি বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহযোগিতার মাধ্যমে দুই দেশ নতুন উচ্চতায় পৌঁছাবে।

শাহরিয়ার আলম বলেন, বাংলাদেশ ও থাইল্যান্ড স্বাধীনতার পর থেকে চমৎকার বন্ধুত্বপূর্ণ ও সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক উপভোগ করছে। বাণিজ্য, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, চিকিৎসাসেবা, পর্যটন, বিদেশি বিনিয়োগ, যোগাযোগসহ বিভিন্ন বিষয়ে থাইল্যান্ড বাংলাদেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। দুই দেশের জনগণের মধ্যে আরও যোগাযোগ বাড়াতে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বাধা দূর করতে হবে। 

প্রতিমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের প্রতি মানবিক সহায়তার জন্য থাইল্যান্ডকে ধন্যবাদ জানান এবং রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবর্তনে দেশটির রাজনৈতিক সহায়তা কামনা করেন। একইসঙ্গে প্রতিমন্ত্রী আসিয়ান সেক্টরাল ডায়ালগ পার্টনারের জন্য বাংলাদেশের প্রার্থিতার পক্ষে থাই সমর্থন চান।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন