জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম গুরুতর অসুস্থ
jugantor
জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম গুরুতর অসুস্থ

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৭ নভেম্বর ২০২১, ০১:৩৭:১৭  |  অনলাইন সংস্করণ

জাতীয় অধ্যাপক মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম

জাতীয় অধ্যাপক ও বাংলা একাডেমির সভাপতি রফিকুল ইসলাম গুরুতর অসুস্থ। তাকে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ‘ভেন্টিলেশনে’ নেওয়া হয়েছে। বিভিন্নসমস্যার পাশাপাশি তিনি তীব্র শ্বাসকষ্টে ভুগছেন

অধ্যাপক রফিকুল ইসলামের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গত ৭ অক্টোবর পেটে ব্যথার কারণে তাকে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ভর্তি করা হয়। সেখানে পরীক্ষার পর তার ফুসফুসে পানি জমার বিষয়টি ধরা পড়ে। তখন থেকে বিএসএমএমইউর বক্ষব্যাধি (রেসপিরেটরি মেডিসিন) বিভাগের অধ্যাপক এ কে এম মোশাররফ হোসেনের তত্ত্বাবধানে তার চিকিৎসা চলছিল।

রফিকুল ইসলামকে পরিবারের সদস্যরা উন্নত চিকিৎসার জন্য ভারতে নিয়ে যেতে চাইলেও তাতে তিনি সায় দেননি। এর মধ্যে গত সোমবার তাকে বিএসএমএমইউ থেকে এভারকেয়ার হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে নেওয়ার পর তার শ্বাসকষ্ট শুরু হয়।

অধ্যাপক রফিকুল ইসলামের ছেলে বর্ষণ ইসলাম শুক্রবার রাতে একটি গণমাধ্যমকে বলেন, নিউমোনিয়ার কারণে আব্বা দুদিন ধরেতীব্র শ্বাসকষ্টে ভুগছেন। শুক্রবার সকালে শ্বাসকষ্টে নিস্তেজ হয়ে পড়ায় তাকে ভেন্টিলেশনে দেওয়া হয়, এখন তিনি ঘুমাচ্ছেন।

বর্ষণ ইসলাম জানান, নিউমোনিয়ার জন্য তার বাবাকে একটি অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া হয়েছে। এর জন্য পাঁচ-ছয় দিন সময় লাগে। এটা যদি কাজ করে এবং ফুসফুস যদি পরিষ্কার হয়, তাহলে রফিকুল ইসলাম স্বাভাবিকভাবে শ্বাস নিতে পারবেন। বর্ষণ ইসলাম বাবার সুস্থতার জন্য সবার দোয়া চেয়েছেন।

রফিকুল ইসলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সাবেক অধ্যাপক। ভাষা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করা রফিকুল ইসলাম সেই সময়ের দুর্লভ আলোকচিত্রও ধারণ করছিলেন।

রফিকুল ইসলাম বাংলা একাডেমির মহাপরিচালকের দায়িত্বও পালন করেছেন। ২০১৮ সালে তিনি জাতীয় অধ্যাপক হন। অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম শিক্ষা, সাহিত্য ও গবেষণায় অবদানের জন্য স্বাধীনতা পুরস্কার ও একুশে পদক পেয়েছেন । ২০২১ সালের ১৮ মে সরকার তাকে তিন বছরের জন্য বাংলা একাডেমির সভাপতির দায়িত্ব দেয়।

জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম গুরুতর অসুস্থ

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৭ নভেম্বর ২০২১, ০১:৩৭ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
জাতীয় অধ্যাপক মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম
জাতীয় অধ্যাপক মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম

জাতীয় অধ্যাপক ও বাংলা একাডেমির সভাপতি রফিকুল ইসলাম গুরুতর অসুস্থ। তাকে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ‘ভেন্টিলেশনে’ নেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন সমস্যার পাশাপাশি তিনি তীব্র শ্বাসকষ্টে ভুগছেন 

 অধ্যাপক রফিকুল ইসলামের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গত ৭ অক্টোবর পেটে ব্যথার কারণে তাকে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ভর্তি করা হয়। সেখানে পরীক্ষার পর তার ফুসফুসে পানি জমার বিষয়টি ধরা পড়ে। তখন থেকে বিএসএমএমইউর বক্ষব্যাধি (রেসপিরেটরি মেডিসিন) বিভাগের অধ্যাপক এ কে এম মোশাররফ হোসেনের তত্ত্বাবধানে তার চিকিৎসা চলছিল।

রফিকুল ইসলামকে পরিবারের সদস্যরা উন্নত চিকিৎসার জন্য ভারতে নিয়ে যেতে চাইলেও তাতে তিনি সায় দেননি। এর মধ্যে গত সোমবার তাকে বিএসএমএমইউ থেকে এভারকেয়ার হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে নেওয়ার পর তার শ্বাসকষ্ট শুরু হয়।

অধ্যাপক রফিকুল ইসলামের ছেলে বর্ষণ ইসলাম শুক্রবার রাতে একটি গণমাধ্যমকে বলেন, নিউমোনিয়ার কারণে আব্বা দুদিন ধরে তীব্র শ্বাসকষ্টে ভুগছেন। শুক্রবার সকালে শ্বাসকষ্টে নিস্তেজ হয়ে পড়ায় তাকে ভেন্টিলেশনে দেওয়া হয়, এখন তিনি ঘুমাচ্ছেন।

বর্ষণ ইসলাম জানান, নিউমোনিয়ার জন্য তার বাবাকে একটি অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া হয়েছে। এর জন্য পাঁচ-ছয় দিন সময় লাগে। এটা যদি কাজ করে এবং ফুসফুস যদি পরিষ্কার হয়, তাহলে রফিকুল ইসলাম স্বাভাবিকভাবে শ্বাস নিতে পারবেন। বর্ষণ ইসলাম বাবার সুস্থতার জন্য সবার দোয়া চেয়েছেন।

রফিকুল ইসলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সাবেক অধ্যাপক। ভাষা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করা রফিকুল ইসলাম সেই সময়ের দুর্লভ আলোকচিত্রও ধারণ করছিলেন। 

রফিকুল ইসলাম বাংলা একাডেমির মহাপরিচালকের দায়িত্বও পালন করেছেন। ২০১৮ সালে তিনি জাতীয় অধ্যাপক হন। অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম শিক্ষা, সাহিত্য ও গবেষণায় অবদানের জন্য স্বাধীনতা পুরস্কার ও একুশে পদক পেয়েছেন । ২০২১ সালের ১৮ মে সরকার তাকে তিন বছরের জন্য বাংলা একাডেমির সভাপতির দায়িত্ব দেয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর