‘ক্রসফায়ারে মাদক সমস্যার সমাধান সম্ভব নয়’

  যুগান্তর রিপোর্ট ২০ মে ২০১৮, ১০:৫২ | অনলাইন সংস্করণ

র‌্যাব

মাদকের বিরুদ্ধে ঘোষণা দিয়ে অভিযানে নেমেছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী৷ এই অভিযানের অগ্রভাগে রয়েছে ব়্যাব৷ এই অভিযানে পাঁচ দিনে ‘ক্রসফায়ারে’ মারা গেছেন অন্তত ৯ জন মানুষ৷

র‌্যাব বা পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, ‘ক্রসফায়ারে' নিহত প্রত্যেকেই মাদক ব্যবসায়ী৷ মাদক বহনের সময় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে তারা মারা গেছেন৷ খবর ডয়েচে ভেলের।

তবে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর এই কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধ' বা ‘ক্রসফায়ার' নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে৷ মানবাধিকার কর্মীরা বিভিন্ন ‘ক্রসফায়ারের' নিরপেক্ষ তদন্ত করতে বলছেন বহুদিন ধরে৷ তাদের ভাষ্য, যথাযথ আইনের মাধ্যমেই অপরাধীদের বিচার হতে হবে৷

মানবাধিকার কর্মী, পুলিশের সাবেক প্রধানসহ বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, ক্রসফায়ারের মাধ্যমে মাদক সমস্যার সমাধান মিলবে না৷ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর যথাযথ অভিযান এবং আইনের সঠিক প্রয়োগ ও জনগণকে সচেতন করে সমস্যা কমিয়ে আনা সম্ভব৷

পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক নুরুল হুদা ডয়চে ভেলেকে বলেন, বন্দুকযুদ্ধ কোনো সমাধান হতে পারে না৷ এটা একটা পথ, যেটা দিয়ে দীর্ঘমেয়াদী সমাধান সম্ভব নয়৷ মাদক ব্যবসা যারা করে, তারা তো ভয়ঙ্কর লোক৷ সে ক্ষেত্রে অভিযান পরিচালনা করতে গিয়ে যদি গোলাগুলিতে কেউ মারা যায়, সেটা ঠিক আছে৷ কারা ব্যবসা করছে, কারা এদের মদদ দিচ্ছে, এর মূল খুঁজে বের করতে হবে৷ তাদের আইনের আওতায় এনে বিচারের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণের পথ খুঁজতে হবে৷

প্রসঙ্গত, মাদক বিরোধী অভিযানে সর্বশেষ শুক্রবার রাতে যশোরে বন্দুকযুদ্ধে ৩ জন মারা গেছেন৷

ব়্যাব-৬ এর প্রধান অতিরিক্ত ডিআইজি খন্দকার রফিকুল ইসলাম ডয়চে ভেলেকে বলেন, বেনাপোল থেকে তারা একটি মোটরসাইকেলে করে অভয়নগরের বাগদাহ গ্রামে যাচ্ছিল৷ এ সময় ব়্যাবের চেকপোষ্টে তাদের চ্যালেঞ্জ করলে তারা গুলি ছোড়ে৷ র‌্যাবও পাল্টা গুলি ছোড়ে৷ এতে তিন জন মারা যান৷

তিনি বলেন, এ সময় তাদের কাছ থেকে একটি পালসার মোটরসাইকেল, দুইটি পিস্তল, এক বস্তা ফেনসিডিল, একটি চাইনিজ কুড়াল ও গুলিভর্তি একটি ম্যাগজিন উদ্ধার করা হয়েছে৷ নিহত তিন জনই মাদক ব্যবসায়ী৷

তবে নওয়াপাড়া পৌর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আজিম শেখ স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেছেন, তার বড় ভাই সহ তিনজনকে ধরে নিয়ে হত্যা করা হয়েছে৷ বৃহস্পতিবার তাদের যার যার বাড়ি থেকে সাদা পোশাকে ব়্যাব পরিচয়ে ধরে নেওয়া হয়৷ এরপর কোথাও তাদের খোঁজ মেলেনি৷ শনিবার সকালে তাদের মৃত্যুর খবর পাই৷ আমরা এই হত্যার সঠিক তদন্ত চাই৷

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল শনিবার রাজধানীতে পূজা উদযাপন পরিষদের সম্মেলনে শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, সরকার মাদকের বিষয়ে ‘জিরো টলারেন্স' নীতি অবলম্বন করেছে'

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযানে মাদকসেবী ও ব্যবসায়ী নিহত হওয়ার ঘটনার বিষয়ে প্রশ্ন করলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বলেন, এসব ঘটনার তদন্ত করা হবে৷ তদন্ত করে দোষীদের আইনের আওতায় আনা হবে৷

উল্লেখ্য, গত ৩ মে ব়্যাবের ১৪ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে ব়্যাব কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন৷

এরপর থেকেই ব়্যাব মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর অভিযান শুরু করে৷ ১৮ মে পর্যন্ত দেড় হাজার মাদকসেবীকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে৷ তবে মূল অভিযান শুরু হয়েছে গত মঙ্গলবার থেকে৷

এরপর বুধবার রাজশাহীতে এক ব্যক্তি নিহত হন। এরপর বৃহস্পতিবার রাতে চট্টগ্রামে দুই ব্যক্তি ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে' এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন৷

পুলিশ সদর দফতরের এক হিসেবে দেখা গেছে, গত কয়েক বছরে দেশে মাদক সংক্রান্ত মামলার সংখ্যা বেড়েছে৷ ২০১৭ সালে মাদক মামলা হয়েছে ৯৮ হাজার ৯৮৪টি৷ ২০১৬ সালে ১৮ হাজার ২৮৭টি, ২০১৫ সালে ৪৬ হাজার ৫১২টি, ২০১৪ সালে ৪২ হাজার ১৯০টি, ২০১৩ সালে ২৯ হাজার ৩৪টি৷ পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে প্রতি বছরই মামলা বাড়ছে৷

‘ক্রসফায়ারে' কি মাদক সমস্যার সমাধান সম্ভব? এমন প্রশ্নের জবাবে মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্রের সাবেক নির্বাহী পরিচালক নূর খান লিটন ডয়চে ভেলেকে বলেন, এভাবে সমাধান মিলবে না৷ সরকার বা আইন শৃঙ্খলা বাহিনী সব সময়ই শর্ট-কার্ট পদ্ধতিতে সমাধান চায়৷ যেটা সম্ভব নয়৷ বরং একটা অপরাধ নির্মূল করতে গিয়ে আরেকটা অপরাধের জন্ম দিচ্ছে৷ ফলে মূল সমস্যার সমাধান হচ্ছে না৷

তিনি বলেন, আমি মনে করি, আইনের সঠিক প্রয়োগের মাধ্যমেই এর সমাধান সম্ভব৷ উৎসগুলো খুঁজে বের করে সমাধান করতে হবে৷

ঘটনাপ্রবাহ : মাদকবিরোধী অভিযান ২০১৮

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter