সবাইকে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান বাণিজ্যমন্ত্রীর
jugantor
সবাইকে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান বাণিজ্যমন্ত্রীর

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৬ মে ২০২২, ১৬:৫৯:৪৩  |  অনলাইন সংস্করণ

মানুষকে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান বাণিজ্যমন্ত্রীর

বৈশ্বিক বাজারে নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে জানিয়ে মানুষকে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

তিনি বলেছেন, বৈশ্বিক বাজারে নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে, এ জন্য এখন থেকে মানুষকে সাশ্রয়ী হতে হবে। অপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র বর্জন করতে হবে। দেশের কয়টি রাজনৈতিক দল মনে করছে বাংলাদেশেশ্রীলংকার পরিস্থিতি হবে,কিন্তু তা কখনো হবে না।

সোমবার সচিবালয়ের গণমাধ্যম কেন্দ্রে বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএসআরএফ) আয়োজিত ‘বিএসআরএফ সংলাপ’ এ বাণিজ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, তেল-চিনি ডালসহ বিভিন্ন পণ্য আমদানির ওপর নির্ভরশীল। ৯০ শতাংশ আমদানি করে চাহিদা পূরণ করতে হয়। আন্তর্জাতিক বাজারের দাম বাড়লে দেশের কিছু করার থাকে না। এ কয়েকটি পণ্য বেসরকারি সেক্টর আমদানি করে চাহিদা পূরণ করছে। সরকার একটি অভিন্ন মূল্য পদ্ধতি অনুযায়ী কয়েকটি পণ্যের দাম নির্ধারণ করে। বিশেষ করে আমদানি মূল্য ট্যাক্স, জাহাজ ভাড়া এবং লাভসহ হিসাব বিবেচনায় নিয়ে একটি দাম নির্ধারণ করা হয়।

ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ করার পর থেকে দেশে হু হু করবে বাড়ছে এই পণ্যের দাম। এ বিষয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, দেশের কৃষকের কথা মাথায় রেখে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ করা হয়েছে। পেঁয়াজের কেজি ৪৫ টাকা পর্যন্ত যৌক্তিক। কিন্তু ৫০ টাকার বেশি হলে সেটা আর যৌক্তিক হবে না।

ভোজ্যতেল কারসাজির সঙ্গে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে কী ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে জানতে চাইলে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, অভিযুক্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। তবে সরকারকে এটাও মাথায় রাখতে হয়, বাজারে যাতে ভীতিকর পরিবেশ তৈরি না হয়।

বাজারে অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়ছে স্বীকার করে মন্ত্রী বলেন, দাম কমাতে সরকার উদ্যোগ নিয়েছে।

সবাইকে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান বাণিজ্যমন্ত্রীর

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৬ মে ২০২২, ০৪:৫৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মানুষকে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান বাণিজ্যমন্ত্রীর
ছবি: সংগৃহীত

বৈশ্বিক বাজারে নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে জানিয়ে মানুষকে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

তিনি বলেছেন, বৈশ্বিক বাজারে নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে, এ জন্য এখন থেকে মানুষকে সাশ্রয়ী হতে হবে। অপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র বর্জন করতে হবে। দেশের কয়টি রাজনৈতিক দল মনে করছে বাংলাদেশে শ্রীলংকার পরিস্থিতি হবে, কিন্তু তা কখনো হবে না।  

সোমবার সচিবালয়ের গণমাধ্যম কেন্দ্রে বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএসআরএফ) আয়োজিত ‘বিএসআরএফ সংলাপ’ এ বাণিজ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। 

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, তেল-চিনি ডালসহ বিভিন্ন পণ্য আমদানির ওপর নির্ভরশীল। ৯০ শতাংশ আমদানি করে চাহিদা পূরণ করতে হয়। আন্তর্জাতিক বাজারের দাম বাড়লে দেশের কিছু করার থাকে না। এ কয়েকটি পণ্য বেসরকারি সেক্টর আমদানি করে চাহিদা পূরণ করছে। সরকার একটি অভিন্ন মূল্য পদ্ধতি অনুযায়ী কয়েকটি পণ্যের দাম নির্ধারণ করে। বিশেষ করে আমদানি মূল্য ট্যাক্স, জাহাজ ভাড়া এবং লাভসহ হিসাব বিবেচনায় নিয়ে একটি দাম নির্ধারণ করা হয়। 

ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ করার পর থেকে দেশে হু হু করবে বাড়ছে এই পণ্যের দাম। এ বিষয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, দেশের কৃষকের কথা মাথায় রেখে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ করা হয়েছে। পেঁয়াজের কেজি ৪৫ টাকা পর্যন্ত যৌক্তিক। কিন্তু ৫০ টাকার বেশি হলে সেটা আর যৌক্তিক হবে না। 

ভোজ্যতেল কারসাজির সঙ্গে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে কী ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে জানতে চাইলে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, অভিযুক্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। তবে সরকারকে এটাও মাথায় রাখতে হয়, বাজারে যাতে ভীতিকর পরিবেশ তৈরি না হয়।

বাজারে অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়ছে স্বীকার করে মন্ত্রী বলেন, দাম কমাতে সরকার উদ্যোগ নিয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন