জাতিসংঘ কীভাবে এত বড় ভুল করে: জয় 
jugantor
জাতিসংঘ কীভাবে এত বড় ভুল করে: জয় 

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:১৯:৪৩  |  অনলাইন সংস্করণ

জাতিসংঘের দেওয়া বাংলাদেশের গুম হওয়া ৭৬ ব্যক্তির তালিকাকে প্রশ্নবিদ্ধ বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ-প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।

তিনি বলেছেন, তালিকায় থাকা ৭৬ জনের মধ্যে অনেকেই বাংলাদেশে বসবাস করছে, যার প্রমাণ মিলেছে। জাতিসংঘ কীভাবে এত বড় ভুল করে সেই প্রশ্নও তুলেছেন জয়।

বৃহস্পতিবার নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেইজে এ কথা বলেন জয়।

সজীব ওয়াজেদ জয়ের স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হলো—বাংলাদেশে 'জোর করে গুমের' শিকার ৭৬ ব্যক্তির তালিকা প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ। কিন্তু এই তালিকা প্রশ্নবিদ্ধ করছে আন্তর্জাতিক সংস্থাটির গ্রহণযোগ্যতাকে। তালিকায় থাকা ৭৬ জনের মধ্যে অনেকে বাংলাদেশে বসবাস করছে যার প্রমাণ মিলেছে। সেখানে দু’জন ভারতীয় নাগরিকের নাম আছে। আবার অনেক তালিকাভুক্ত পলাতক আসামির নাম রয়েছে এখানে। যার কারণে যেই এনজিওগুলোর ওপর নির্ভর করে জাতিসংঘের প্রতিবেদন তৈরি হয়েছে, সেই এনজিওসহ প্রশ্ন উঠছে খোদ জাতিসংঘের তথ্য সংগ্রহের পদ্ধতি নিয়ে।

তালিকায় ২ জন ভারতের মনিপুর রাজ্যের বিচ্ছিন্নতাবাদী, নিষিদ্ধ সংগঠন ইউনাইটেড ন্যাশনাল লিবারেশন ফ্রন্ট-ইউএনএলফের শীর্ষ নেতা। একজন সংগঠনটির চেয়ারম্যান, অপরজন মেজর পদমর্যাদার। তারা হলেন- সানায়াইমা রাজকুমার ওরফে মেঘান ও কেইথেল্লাকপাম নবচন্দ্র ওরফে শিলহেইবা।
প্রশ্ন হলো- জাতিসংঘের একটি গ্রুপ কীভাবে এত বড় ভুল করতে পারে? উত্তরটি সহজ- তারা শুধুমাত্র স্থানীয় বাংলাদেশভিত্তিক এনজিওদের দ্বারা সরবরাহ করা গুমের ঘটনাবলীকে তথ্য যাচাই না করেই প্রকাশ করেছে।

জাতিসংঘ কীভাবে এত বড় ভুল করে: জয় 

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:১৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

জাতিসংঘের দেওয়া বাংলাদেশের গুম হওয়া ৭৬ ব্যক্তির তালিকাকে প্রশ্নবিদ্ধ বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ-প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।

তিনি বলেছেন, তালিকায় থাকা ৭৬ জনের মধ্যে অনেকেই বাংলাদেশে বসবাস করছে, যার প্রমাণ মিলেছে। জাতিসংঘ কীভাবে এত বড় ভুল করে সেই প্রশ্নও তুলেছেন জয়।

বৃহস্পতিবার নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেইজে এ কথা বলেন জয়।

সজীব ওয়াজেদ জয়ের স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হলো—বাংলাদেশে 'জোর করে গুমের' শিকার ৭৬ ব্যক্তির তালিকা প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ। কিন্তু এই তালিকা প্রশ্নবিদ্ধ করছে আন্তর্জাতিক সংস্থাটির গ্রহণযোগ্যতাকে। তালিকায় থাকা ৭৬ জনের মধ্যে অনেকে বাংলাদেশে বসবাস করছে যার প্রমাণ মিলেছে। সেখানে দু’জন ভারতীয় নাগরিকের নাম আছে। আবার অনেক তালিকাভুক্ত পলাতক আসামির নাম রয়েছে এখানে। যার কারণে যেই এনজিওগুলোর ওপর নির্ভর করে জাতিসংঘের প্রতিবেদন তৈরি হয়েছে, সেই এনজিওসহ প্রশ্ন উঠছে খোদ জাতিসংঘের তথ্য সংগ্রহের পদ্ধতি নিয়ে। 

তালিকায় ২ জন ভারতের মনিপুর রাজ্যের বিচ্ছিন্নতাবাদী, নিষিদ্ধ সংগঠন ইউনাইটেড ন্যাশনাল লিবারেশন ফ্রন্ট-ইউএনএলফের শীর্ষ নেতা। একজন সংগঠনটির চেয়ারম্যান, অপরজন মেজর পদমর্যাদার। তারা হলেন- সানায়াইমা রাজকুমার ওরফে মেঘান ও কেইথেল্লাকপাম নবচন্দ্র ওরফে শিলহেইবা। 
প্রশ্ন হলো- জাতিসংঘের একটি গ্রুপ কীভাবে এত বড় ভুল করতে পারে? উত্তরটি সহজ- তারা শুধুমাত্র স্থানীয় বাংলাদেশভিত্তিক এনজিওদের দ্বারা সরবরাহ করা গুমের ঘটনাবলীকে তথ্য যাচাই না করেই প্রকাশ করেছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন