উনারাও দেশকে ভালোবাসেন: ইসি রাশেদা
jugantor
উনারাও দেশকে ভালোবাসেন: ইসি রাশেদা

  বগুড়া ব্যুরো  

৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২০:০৭:২৯  |  অনলাইন সংস্করণ

একটি বৃহত্তর রাজনৈতিক দলকে ইঙ্গিত করে নির্বাচন কমিশনার রাশেদা সুলতানা বলেছেন, আমরা আহ্বান করব উনারা নির্বাচনে আসবেন। কারণ উনারাও দেশকে ভালোবাসেন; তারাও জনগণের বন্ধু।

শুক্রবার দুপুরে বগুড়া সার্কিট হাউসের সম্মেলন কক্ষে আসন্ন জেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।

ইসি বলেন, আমরা সব সময় চেয়েছি, এখনো চাচ্ছি, সবাই নির্বাচনে আসবেন। কমিশনের সামনে নির্বাচন করার আইন ও সংবিধান দেওয়া আছে। কেউ আসবেন না বলে তো আমরা সংবিধান লঙ্ঘন করতে পারি না। দেশে ক্রাইসিস তৈরি করে দিতে পারব না। আর সেটা উচিতও হবে না। এতে দেশে নৈরাজ্য অবস্থা সৃষ্টি করবে। এতে দেশ ও জনগণের ক্ষতি হবে। তাই আমরা আইনের যে কাঠামো রয়েছে তার মধ্যে থেকেই নির্বাচন করব।

ইভিএম নিয়ে ইসি বলেন, ইভিএমে কারচুপি বা জাল ভোট দেওয়ার সুযোগ নেই। যারা ইভিএম নিয়ে সংশয়ের কথা বলেন তাদের অনেকবার বিশেষজ্ঞ নিয়ে ত্রুটি বের করার আহবান জানানো হয়েছে। শুধু মুখে বললে চলবে না, ইভিএমে কী কী ত্রুটি আছে তার প্রমাণ চাই। এখন পর্যন্ত কোনো রাজনৈতিক দল বা অন্য কেউ সমস্যা বের করতে পারেনি। তাই আগামী নির্বাচনে প্রায় ১৫০ আসনে ইভিএমে নির্বাচন করতে চাইছি।

নির্বাচন কমিশনার বলেন, আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ। যেখানে ভোটাররা ভোট দিয়ে পছন্দের প্রার্থী নির্বাচন করবেন।

রাশেদা সুলতানা বলেন, আগামী নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে। আর এটা চলমান বিষয়। সব নির্বাচনের বুথে সিসি ক্যামেরার ব্যবস্থা থাকবে। ইতোমধ্যে সিসি ক্যামেরার ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবে আসন্ন জেলা পরিষদ নির্বাচনে ইভিএমের ব্যবস্থা থাকলেও সিসি ক্যামেরা থাকবে না।

উনারাও দেশকে ভালোবাসেন: ইসি রাশেদা

 বগুড়া ব্যুরো 
৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৮:০৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

একটি বৃহত্তর রাজনৈতিক দলকে ইঙ্গিত করে নির্বাচন কমিশনার রাশেদা সুলতানা বলেছেন, আমরা আহ্বান করব উনারা নির্বাচনে আসবেন। কারণ উনারাও দেশকে ভালোবাসেন; তারাও জনগণের বন্ধু।

শুক্রবার দুপুরে বগুড়া সার্কিট হাউসের সম্মেলন কক্ষে আসন্ন জেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।

ইসি বলেন, আমরা সব সময় চেয়েছি, এখনো চাচ্ছি, সবাই নির্বাচনে আসবেন। কমিশনের সামনে নির্বাচন করার আইন ও সংবিধান দেওয়া আছে। কেউ আসবেন না বলে তো আমরা সংবিধান লঙ্ঘন করতে পারি না। দেশে ক্রাইসিস তৈরি করে দিতে পারব না। আর সেটা উচিতও হবে না। এতে দেশে নৈরাজ্য অবস্থা সৃষ্টি করবে। এতে দেশ ও জনগণের ক্ষতি হবে। তাই আমরা আইনের যে কাঠামো রয়েছে তার মধ্যে থেকেই নির্বাচন করব। 

ইভিএম নিয়ে ইসি বলেন, ইভিএমে কারচুপি বা জাল ভোট দেওয়ার সুযোগ নেই। যারা ইভিএম নিয়ে সংশয়ের কথা বলেন তাদের অনেকবার বিশেষজ্ঞ নিয়ে ত্রুটি বের করার আহবান জানানো হয়েছে। শুধু মুখে বললে চলবে না, ইভিএমে কী কী ত্রুটি আছে তার প্রমাণ চাই। এখন পর্যন্ত কোনো রাজনৈতিক দল বা অন্য কেউ সমস্যা বের করতে পারেনি। তাই আগামী নির্বাচনে প্রায় ১৫০ আসনে ইভিএমে নির্বাচন করতে চাইছি।

নির্বাচন কমিশনার বলেন, আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ। যেখানে ভোটাররা ভোট দিয়ে পছন্দের প্রার্থী নির্বাচন করবেন। 

রাশেদা সুলতানা বলেন, আগামী নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে। আর এটা চলমান বিষয়। সব নির্বাচনের বুথে সিসি ক্যামেরার ব্যবস্থা থাকবে। ইতোমধ্যে সিসি ক্যামেরার ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবে আসন্ন জেলা পরিষদ নির্বাচনে ইভিএমের ব্যবস্থা থাকলেও সিসি ক্যামেরা থাকবে না।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন