মুম্বাই হামলার বার্ষিকীতে নিহতদের স্মরণ 
jugantor
মুম্বাই হামলার বার্ষিকীতে নিহতদের স্মরণ 

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৭ নভেম্বর ২০২২, ১৩:১৭:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতের মুম্বাইয়ে সন্ত্রাসী হামলার ১৪তম বার্ষিকীর দিনটি পালন করেছে বিবিএসএস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন।

শনিবার দিবসটি উপলক্ষে বিবিএসএস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে এক সাইকেল র‌্যালি ও সংক্ষিপ্ত প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রী, সাংবাদিক ও রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা অংশ নেন।

প্রতিবাদ সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান তৌফিক আহমেদ তফছির। সংগঠনের মহাসচিব ও গাজী টিভির প্রযোজক শফিকুল ইসলামের পরিচালনায় সংক্ষিপ্ত আলোচনায় অংশ নেন জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা এমদাদুল হক ছালেক, বাংলাদেশ জাসদের কেন্দ্রীয় নেতা মহিউদ্দিন, বিশিষ্ট সাংবাদিক মুস্তাফিজুর রহমান, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা নাসির উদ্দিন মুন্সী, যুব সংগঠক এম এইস মিল্টন, সোস্যাল এক্টিভিস্ট হাফিজ সম্ভুসহ আরও অনেকে।

বক্তারা বলেন, আপনারা সবাই অবগত যে পাকিস্তান দীর্ঘদিন থেকে সন্ত্রাস ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের মদদ দিয়ে আসছে। আমরা তাদের এহেন কান্ডের তীব্র নিন্দা জানাই ও বিশ্বের নেতাদের কাছে এর প্রতিকার প্রত্যাশা করি।

সভাপতির বক্তব্যে তৌফিক আহমেদ তফছির বলেন, নিঃস্বার্থ চেতনার বাংলাদেশ সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদকের বিরুদ্ধে সবসময় বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করে আসছে। বর্তমান সরকারের কঠোর অবস্থান ও জিরো টলারেন্স নীতির কারণে দেশে বর্তমানে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

প্রসঙ্গত, ভারতের মুম্বাইয়ে ২০০৮ সালের ২৬ নভেম্বর নৃশংস ওই হামলায় ১৬০ জন নিরীহ মানুষ নিহত হয়।

মুম্বাই হামলার বার্ষিকীতে নিহতদের স্মরণ 

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৭ নভেম্বর ২০২২, ০১:১৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতের মুম্বাইয়ে সন্ত্রাসী হামলার ১৪তম বার্ষিকীর দিনটি পালন করেছে বিবিএসএস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন।

শনিবার দিবসটি উপলক্ষে বিবিএসএস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে এক সাইকেল র‌্যালি ও সংক্ষিপ্ত প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রী, সাংবাদিক ও রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা অংশ নেন।

প্রতিবাদ সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান তৌফিক আহমেদ তফছির। সংগঠনের মহাসচিব ও গাজী টিভির প্রযোজক শফিকুল ইসলামের পরিচালনায় সংক্ষিপ্ত আলোচনায় অংশ নেন জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা এমদাদুল হক ছালেক, বাংলাদেশ জাসদের কেন্দ্রীয় নেতা মহিউদ্দিন, বিশিষ্ট সাংবাদিক মুস্তাফিজুর রহমান, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা নাসির উদ্দিন মুন্সী, যুব সংগঠক এম এইস মিল্টন, সোস্যাল এক্টিভিস্ট হাফিজ সম্ভুসহ আরও অনেকে।

বক্তারা বলেন, আপনারা সবাই অবগত যে পাকিস্তান দীর্ঘদিন থেকে সন্ত্রাস ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের মদদ দিয়ে আসছে। আমরা তাদের এহেন কান্ডের তীব্র নিন্দা জানাই ও বিশ্বের নেতাদের কাছে এর প্রতিকার প্রত্যাশা করি।

সভাপতির বক্তব্যে তৌফিক আহমেদ তফছির বলেন, নিঃস্বার্থ চেতনার বাংলাদেশ সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদকের বিরুদ্ধে সবসময় বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করে আসছে। বর্তমান সরকারের কঠোর অবস্থান ও জিরো টলারেন্স নীতির কারণে দেশে বর্তমানে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

প্রসঙ্গত, ভারতের মুম্বাইয়ে ২০০৮ সালের ২৬ নভেম্বর নৃশংস ওই হামলায় ১৬০ জন নিরীহ মানুষ নিহত হয়। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন