৬৫ বছরের বেশি ব্যক্তিরাও হজে যেতে পারবেন: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী
jugantor
৬৫ বছরের বেশি ব্যক্তিরাও হজে যেতে পারবেন: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

  নেত্রকোনা প্রতিনিধি  

০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ২১:১৯:২৯  |  অনলাইন সংস্করণ

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান বলেছেন, যাদের বয়স ৬৫ পার হয়ে গেছে এখন থেকে তারাও হজে যেতে পারবেন। সবাই যাতে নিরাপদে হজে যেতে পারেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে ৬৫ বছরের বেশি বয়সের ব্যক্তিদেরও হজ পালন করার সুযোগ করে দিচ্ছেন।

তিনি বলেন, করোনার কারণে বিগত দুই বছর পবিত্র হজ পালন করা সম্ভব হয়নি। এ বছর আমরা হজ পালন করতে পেরেছি। এখন থেকে সব কিছু সহজ হয়ে যাচ্ছে। আগে হজের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে অনেক সময় লাগতো এখন কয়েক দিনের মধ্যে সম্ভব হয়।

মঙ্গলবার নেত্রকোনায় ধর্মীয় সম্প্রতি ও সচেতনতামূলক আন্তঃধর্মীয় সংলাপ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, গত ৩৬ বছরে যা সম্ভব হয়নি তা প্রায় ১৪ বছরে শেখ হাসিনা সরকার তা সম্ভব করছে। সব কিছুতেই উন্নয়ন হচ্ছে। শুধু ইসলাম ধর্মের জন্যই নয় পাশাপাশি বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট্রের আমান ৪ কোটি টাকা থেকে ৭ কোটি টাকায় বৃদ্ধি করা হয়েছে। বৌদ্ধ বিহার প্যাগোডা নির্মাণ ও সংস্কারের ২ কোটি ৫৭ লাখ টাকা, অসচ্ছল ভিক্ষুক ব্যক্তিদের চিকিৎসায় প্রায় ৩৮ লাখ টাকার অনুদান, ২ হাজার ৪ বৌদ্ধ বিহারে ৭ কোটি ৮৫ লাখ, বৌদ্ধ বিহার ও শ্মশান উন্নয়নে ৪ কোটি ২৮ লাখ টাকা প্রদানসহ দেশের অর্থায়নে নেপালের লুম্বিনীতে বৌদ্ধ বিহার নির্মাণে ৬ কোটি ৬৭ লাখ টাকার প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে।

হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট্রের স্থায়ী মূলধন ২১ কোটি টাকা থেকে ১০০ কোটি টাকায় উন্নীত করা হয়েছে। মন্দির ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান নির্মাণ ও সংস্কারে ২৬৩ কোটি টাকা, ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির উন্নয়নে প্রায় ৩৩ কোটি টাকা, পুরোহিতদের প্রশিক্ষণে ৫০ কোটি টাকা, মন্দিরভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম চালু রয়েছে।

এছাড়া ২০১৮ সালের ১৯ এপ্রিল থেকে খ্রিস্টান ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট আইন প্রবর্তন করা হয়েছে। দেশের এ উন্নয়ন ধরে রাখতে হলে শেখ হাসিনা সরকারকে ভোট দিয়ে আবারো ক্ষমতায় রাখতে হবে।

জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মনির হোসেনের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি ছাড়াও বক্তব্য দেন- সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য হাবিবা রহমান খান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অসিত সরকার, পুলিশ সুপার মো. ফয়েজ আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আমিরুল ইসলাম, কলমাকান্দা উপজেলার পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল খালেক, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহমুদা আক্তার, প্যানেল মেয়র মহসিন আলম, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি অর্পিতা খানম, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি জ্ঞানেশ সরকার, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি সীতাংশু বিকাশ আচার্য, জেলা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এম মুখলেছুর রহমান খান প্রমুখ।

সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ বলেন, এ দেশ অসাম্প্রদায়িক। এখানে হাজার বছর ধরে বহু ধর্মের মানুষ মিলেমিশে একসাথে বসবাস করছেন। প্রত্যেক ধর্মেই শান্তির কথা বলা আছে। সব ধর্মকেই সম্মান দিতে হবে। স্বাধীনতা যুদ্ধে সব ধর্মের মানুষ রক্ত দিয়েছে। হাজার বছরের এ সম্প্রতি বজায় রাখতে হবে।

৬৫ বছরের বেশি ব্যক্তিরাও হজে যেতে পারবেন: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

 নেত্রকোনা প্রতিনিধি 
০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:১৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান বলেছেন, যাদের বয়স ৬৫ পার হয়ে গেছে এখন থেকে তারাও হজে যেতে পারবেন। সবাই যাতে নিরাপদে হজে যেতে পারেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে ৬৫ বছরের বেশি বয়সের ব্যক্তিদেরও হজ পালন করার সুযোগ করে দিচ্ছেন। 

তিনি বলেন, করোনার কারণে বিগত দুই বছর পবিত্র হজ পালন করা সম্ভব হয়নি। এ বছর আমরা হজ পালন করতে পেরেছি। এখন থেকে সব কিছু সহজ হয়ে যাচ্ছে। আগে হজের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে অনেক সময় লাগতো এখন কয়েক দিনের মধ্যে সম্ভব হয়।  

মঙ্গলবার নেত্রকোনায় ধর্মীয় সম্প্রতি ও সচেতনতামূলক আন্তঃধর্মীয় সংলাপ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, গত ৩৬ বছরে যা সম্ভব হয়নি তা প্রায় ১৪ বছরে শেখ হাসিনা সরকার তা সম্ভব করছে। সব কিছুতেই উন্নয়ন হচ্ছে। শুধু ইসলাম ধর্মের জন্যই নয় পাশাপাশি বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট্রের আমান ৪ কোটি টাকা থেকে ৭ কোটি টাকায় বৃদ্ধি করা হয়েছে। বৌদ্ধ বিহার প্যাগোডা নির্মাণ ও সংস্কারের ২ কোটি ৫৭ লাখ টাকা, অসচ্ছল ভিক্ষুক ব্যক্তিদের চিকিৎসায় প্রায় ৩৮ লাখ টাকার অনুদান, ২ হাজার ৪ বৌদ্ধ বিহারে ৭ কোটি ৮৫ লাখ, বৌদ্ধ বিহার ও শ্মশান উন্নয়নে ৪ কোটি ২৮ লাখ টাকা প্রদানসহ দেশের অর্থায়নে নেপালের লুম্বিনীতে বৌদ্ধ বিহার নির্মাণে ৬ কোটি ৬৭ লাখ টাকার প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। 

হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট্রের স্থায়ী মূলধন ২১ কোটি টাকা থেকে ১০০ কোটি টাকায় উন্নীত করা হয়েছে। মন্দির ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান নির্মাণ ও সংস্কারে ২৬৩ কোটি টাকা, ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির উন্নয়নে প্রায় ৩৩ কোটি টাকা, পুরোহিতদের প্রশিক্ষণে ৫০ কোটি টাকা, মন্দিরভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম চালু রয়েছে। 

এছাড়া ২০১৮ সালের ১৯ এপ্রিল থেকে খ্রিস্টান ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট আইন প্রবর্তন করা হয়েছে। দেশের এ উন্নয়ন ধরে রাখতে হলে শেখ হাসিনা সরকারকে ভোট দিয়ে আবারো ক্ষমতায় রাখতে হবে।

জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ। 

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মনির হোসেনের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি ছাড়াও বক্তব্য দেন- সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য হাবিবা রহমান খান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অসিত সরকার, পুলিশ সুপার মো. ফয়েজ আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আমিরুল ইসলাম, কলমাকান্দা উপজেলার পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল খালেক, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহমুদা আক্তার, প্যানেল মেয়র মহসিন আলম, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি অর্পিতা খানম, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি জ্ঞানেশ সরকার, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি সীতাংশু বিকাশ আচার্য, জেলা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এম মুখলেছুর রহমান খান প্রমুখ।

সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ বলেন, এ দেশ অসাম্প্রদায়িক। এখানে হাজার বছর ধরে বহু ধর্মের মানুষ মিলেমিশে একসাথে বসবাস করছেন। প্রত্যেক ধর্মেই শান্তির কথা বলা আছে। সব ধর্মকেই সম্মান দিতে হবে। স্বাধীনতা যুদ্ধে সব ধর্মের মানুষ রক্ত দিয়েছে। হাজার বছরের এ সম্প্রতি বজায় রাখতে হবে।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন