তিন জেলায় মাদকবিরোধী অভিযান, ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৪

  যুগান্তর ডেস্ক ০৮ জুলাই ২০১৮, ১১:২৮ | অনলাইন সংস্করণ

তিন জেলায় মাদকবিরোধী অভিযান,  ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৪
প্রতীকী ছবি- যুগান্তর

তিন জেলায় র‌্যাব ও পুলিশের মাদকবিরোধী অভিযানকালে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ চার যুবক নিহত হয়েছেন।

শনিবার দিবাগত রাত ও রোববার ভোরে এ বন্দুকযুদ্ধে ঝিনাইদহে দুজন, গাইবান্ধায় এক ও ময়মনসিংহে একজন নিহত হন।

র‌্যাব ও পুলিশের দাবি, নিহতরা মাদক ব্যবসায়ী। তাদের নামে বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে।

আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

ঝিনাইদহ : জেলায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ সাজ্জাদুল ইসলাম ও আবদুর রাজ্জাক নামে দুজন মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন।

শনিবার দিবাগত রাত সোয়া ১টার দিকে শহরের পবহাটী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা সাজ্জাদুল ইসলাম জেলা শহরের বাঘাযতিন সড়ক এলাকা ও আবদুর রাজ্জাকের বাড়ি উদয়পুর গ্রামে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন র‌্যাবের দুই সদস্য।

র‌্যাব-৬ ঝিনাইদহ ক্যাম্পের ডিউটি অফিসার এএসআই মো. লিটন হোসেন জানান, টহল চলাকালে মোটরসাইকেলে মাদক ব্যবসায়ীরা ঘটনাস্থল দিয়ে গেলে র‌্যাব সদস্যরা ধাওয়া করেন। এ সময় মাদক ব্যবসায়ীরা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালালে আহত হন মাদক ব্যবসায়ী সাজ্জাদুল ইসলাম ও আব্দুর রাজ্জাক।

রাতেই দুজনকে আহতাবস্থায় উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত বলে ঘোষণা করেন।

ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা হয়েছে একটি মোটরসাইকেল, ৫৫ বোতল ফেনসিডিল, ১৫২ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট এবং দুই রাউন্ড গুলিসহ দুটি শুটারগান।

গাইবান্ধা : গাইবান্ধায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ শামসুল হক (৩৮) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।

রোববার ভোরে পলাশবাড়ী উপজেলার সাকোয়া ব্রিজ এলাকায় গাইবান্ধা-পলাশবাড়ী সড়কে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। নিহত শামসুলের বাড়ি পলাশবাড়ী উপজেলার বেতকাপা ইউনিয়নের সাকোয়া গ্রামে।

গাইবান্ধা সদর থানার ওসি খান মো. শাহারিয়ার জানান, শনিবার দুপুরে যৌথ অভিযান চালিয়ে শামসুলকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে তার তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশ অস্ত্র উদ্ধার ও অন্য সঙ্গীদের গ্রেফতারে আজ ভোরে সাকোয়া ব্রিজ এলাকায় অভিযান চালায়। এ সময় শামসুলকে ছিনিয়ে নিতে তার সঙ্গীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে।

একপর্যায়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে শামসুল গুলিবিদ্ধ হন। পরে উদ্ধার করে গাইবান্ধা সদর হাসপাতালে নিলে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য গাইবান্ধা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

নিহত শামসুল আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্য ছিলেন। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় হত্যা ও ডাকাতির ১২টি মামলা রয়েছে বলে জানান ওসি।

ময়মনসিংহ : ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ফারুক মিয়া (৩০) নামে ১১ মামলার এক আসামি নিহত হয়েছেন।

পুলিশের দাবি, নিহত ফারুক মাদক ব্যবসায়ী।

শনিবার দিবাগত রাত সোয়া ২টার দিকে উপজেলার আঠারবাড়ী তেলওয়ারী গণ্ডি মোড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ঘটনাস্থল থেকে ১০০টি ইয়াবা, সাতটি গুলির খোসা, একটি রামদা, একটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করেছে পুলিশ।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের এসআই পরিমল দাস জানান, উপজেলার আঠারবাড়ী তেলওয়ারী গণ্ডি মোড় এলাকায় কয়েকজন মাদক ভাগাভাগি করছে এমন গোপন খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে অভিযান চালায় পুলিশ। এ সময় পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপসহ এলোপাতাড়ি গুলি ছোড়ে মাদক ব্যবসায়ীরা। পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়।

গোলাগুলির একপর্যায়ে আসামিরা পালিয়ে যায়। এলাকা তল্লাশি করে মাদক ব্যবসায়ী ফারুক মিয়াকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। তাৎক্ষণিক তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠালে কর্তব্যরত চিকিৎসক ফারুক মিয়া মৃত ঘোষণা করেন।

বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় ঈশ্বরগঞ্জ থানার এসআই সাফায়েত, এএসআই মো. খলিল ও কনস্টেবল আনোয়ার হোসেন আহত হয়েছেন। তাদের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানান এসআই।

ঘটনাপ্রবাহ : মাদকবিরোধী অভিযান ২০১৮

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.