বাংলাদেশ ব্যাংকের স্বর্ণের ভল্টে যারা ঢোকেন

  যুগান্তর ডেস্ক    ১৯ জুলাই ২০১৮, ১৯:৪৬ | অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টে কারা ঢোকেন?
ভল্টে এভাবেই সাজিয়ে রাখা হয় স্বর্ণের বার

বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টে গচ্ছিত স্বর্ণের ধরন ও পরিমাণ বদলে যাওয়ার অভিযোগ নিয়ে সম্প্রতি বেশ তুলকালাম হয়েছে। একটি জাতীয় পত্রিকায় খবর প্রকাশের পরপরই তুমুল বিতর্ক সৃষ্টি হয়। পরে এ অভিযোগের জবাব দিয়েছে ব্যাংকটি।

বাংলাদেশর ব্যাংকের ফরেন এক্সচেঞ্জ পলিসি ডিপার্টমেন্টের জেনারেল ম্যানেজার মোহাম্মদ খুরশিদ ওয়াহাব গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, দেশের সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ ভল্টে ঢোকার অধিকার রয়েছে শুধুমাত্র জব্দ হওয়া স্বর্ণের।

তার দেয়া তথ্য মতে, কাস্টমস বা অন্যান্য আইন প্রয়োগকারী সংস্থা চোরাচালান বা চুরি-ডাকাতির যে স্বর্ণ আটক করে, সেগুলো কোর্টের নির্দেশক্রমে বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃপক্ষ সংরক্ষণ করে থাকে।

যখন আদালতের নির্দেশ আসে যে রাষ্ট্রের অনুকূলে এই স্বর্ণ বাজেয়াপ্ত করা হল তখন সেটি বিক্রি করে তার অর্থ সরকারকে দিয়ে দেয়া হয়। রাষ্ট্রের অনুকূলে বিষয়টি কোর্টে নিষ্পত্তি হলে, এমন স্বর্ণ যদি বার আকারে থাকে, বলা হয় তা প্রায় ৯৯ শতাংশ খাটি, তা আসলে ক্রয় করতে পারে শুধুমাত্র বাংলাদেশ ব্যাংক নিজে।

মোহাম্মদ খুরশিদ ওয়াহাব জানান, বাংলাদেশে ব্যাংকের ওই ভল্টে ঢোকার অধিকার রয়েছে শুধু কারেন্সি অফিসার, জয়েন্ট ম্যানেজার বুলিয়ন (স্বর্ণ), জয়েন্ট ম্যানেজার ক্যাশ এবং ডিজিএম ক্যাশ। তারাই শুধু ঢুকতে পারেন। কারেন্সি অফিসার যদি প্রয়োজন মনে করেন তবে তার অনুমতি যিনি পাবেন তিনি শুধু যান। এখানে গভর্নর বা ডেপুটি গভর্নর এবং সরকারের অন্যান্য কর্মকর্তারা , অননুমোদিত ব্যক্তিদের যাওয়ার কোন অধিকার নেই, প্রয়োজনও নেই। সূত্র: বিবিসি বাংলা।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×