রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন: যৌথ ওয়ার্কিং বৈঠকে মাঠপর্যায়ের চুক্তি চূড়ান্ত

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৬ জানুয়ারি ২০১৮, ১১:২৪ | অনলাইন সংস্করণ

রোহিঙ্গা
ফাইল ছবি

রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারের রাখাইনে ফেরত পাঠানোর বিষয়ে ‘ফিজিক্যাল অ্যারেঞ্জমেন্ট’ নামে মাঠপর্যায়ের চুক্তিটি চূড়ান্ত হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে বাংলাদেশ-মিয়ানমারের যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের বৈঠকে চুক্তিটি চূড়ান্ত হয়।

সোমবার থেকে টানা ১৩ ঘণ্টার বৈঠকের পর মঙ্গলবার সকালে আবার বৈঠক বসেছেন দুই দেশের প্রতিনিধিরা।

মিয়ানমারের রাজধানী নেইপিদোতে পররাষ্ট্র সচিব পর্যায়ের জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের (জেডব্লিউজি) বৈঠকে চুক্তিটি চূড়ান্ত রূপ পায়।

ফলে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন শুরুর জন্য সরকারি পর্যায়ের কাজটি সম্পন্ন হল।

পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক মঙ্গলবার সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের জন্য আমরা সফলভাবে ফিজিক্যাল অ্যারেঞ্জমেন্ট চূড়ান্ত করে ফেলেছি। সেই সঙ্গে যেসব রোহিঙ্গা ফেরত যাবেন, তাদের জন্য একটি ফরমের রূপও চূড়ান্ত করা হয়েছে।

শহীদুল হক বলেন, সামগ্রিকভাবে দুই পক্ষের আলোচনার পর একটি ভারসাম্যপূর্ণ চুক্তি হয়েছে। এখন দুই পক্ষ যদি আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করে, তবে টেকসই উপায়ে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের কাজ শুরু করা যাবে বলে আশা করা যায়।

নেইপিদোতে নিযুক্ত বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূত পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক বাংলাদেশের পক্ষে এবং মিয়ানমারের পক্ষে দেশটির পার্মামেন্ট সেক্রেটারি মিন্ট থো বৈঠকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। দুই দেশের ১৫ জন করে মোট ৩০ সদস্যের সমন্বয়ে জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠন করা হয়েছে।

রোহিঙ্গাদের পুনর্বাসনের বিষয়ে গত ২৩ নভেম্বর বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে একটি দ্বিপক্ষীয় চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের প্রথম বৈঠকে এক লাখ রোহিঙ্গার প্রাথমিক তালিকা নেইপিদোর কাছে হস্তান্তর করার কথা রয়েছে ঢাকার।

জানা গেছে, ২০১৬ সালের অক্টোবরের পর থেকে যেসব রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে, তাদের ফেরত নেবে মিয়ানমার।

আগামী ২৩ জানুয়ারি থেকে রোহিঙ্গাদের আনুষ্ঠানিকভাবে ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার কথা রয়েছে।

উল্লেখ্য, গত বছরের ২৫ আগস্ট রাখাইনের মংডু জেলায় নিরাপত্তা বাহিনীর তল্লাশিচৌকিতে হামলার জেরে রোহিঙ্গাদের গ্রামে অভিযান শুরু করে সেনাবাহিনী। সেনাবাহিনীর সদস্যরা রোহিঙ্গা নারী-শিশুদের ধর্ষণ-হত্যাসহ তাদের ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দেয়। প্রাণ বাঁচাতে রাখাইন ছেড়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসতে থাকে রোহিঙ্গারা। এখন পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ছয় লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে।

ঘটনাপ্রবাহ : রোহিঙ্গা বর্বরতা

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.