পরিবহন সংকটে ঝুঁকি নিয়ে অফিসগামী লোকজনের ট্রেনযাত্রা

প্রকাশ : ০৪ আগস্ট ২০১৮, ১৪:৫৬ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর ডেস্ক

ছবি: প্রতীকী

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে কেন্দ্র করে বাস মালিক শ্রমিকদের অঘোষিত ধর্মঘটে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ট্রেনের অতিরিক্ত যাত্রী হয়ে কর্মস্থলে আসছেন অফিসগামী লোকজন।

রাস্তায় কোন ধরনের গণপরিবহন না পেয়ে তারা গাদাগাদি করে ট্রেনে উঠতে গিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন। শনিবারও ভোর খেকে নারায়ণগঞ্জ, কমলাপুর ও বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশনে প্রতিটি ট্রেনে যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে।

এসব ট্রেনে অতিরিক্ত চাপে অনেক যাত্রী অসুস্থ হয়ে পড়েন। অনেকে উপায় না পেয়ে এক্সপ্রেস ট্রেনে চেপে দূরের স্টেশনে নেমে আবার পায়ে হেঁটে অফিসে গিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ছেন।

শনিবার ভোর সাড়ে ৫টা থেকেই নারায়ণগঞ্জ ও চাষাড়া স্টেশনে ভিড় করতে থাকেন অফিসগামী লোকজন। সকাল সাড়ে ৬টায় ট্রেন নারায়ণগঞ্জ স্টেশনে আসা মাত্র হুড়ুহুড়ি করে উঠতে গিয়ে অনেকে আহত হন।

এরপর পাগলা স্টেশনে এসে দুই নারী প্রচন্ঢ ভিড়ের কারণে দম বন্ধ হওয়ার উপক্রম হলে ট্রেন থেকে অন্য যাত্রীদের সহায়তায় নামিয়ে দেয়া হয়। একই অবস্থা কমলাপুর ও আশপাশের স্টেশনগুলোতে। সালাহউদ্দিন নামে এক অফিসগামী যাত্রী ক্যান্টম্যান্ট স্টেশনে এক্সপ্রেস ট্রেন থেকে নামতে গিয়ে অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পান।      
     
কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার এনসি দাশ জানান,  বুধবার থেকেই প্রতিটি ট্রেনে উপচেপড়া ভিড়। যে সব ট্রেন কমলাপুর স্টেশনে প্রবেশ করছে সেসব ট্রেনেও ভিড় দেখা গেছে। ঈদ উপলক্ষে যেমন ভিড় হয় ট্রেনগুলোতে ঠিক তেমনই দৃশ্য দেখা গেছে।

যাত্রীরা বলছেন,  শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে কেন্দ্র করে বাস শ্রমিকরা এক ধরনের অঘোষিত ধর্মঘট ডেকেছে।  রাস্তায় বাস দেখাই যাচ্ছে না। বাধ্য হয়েই তাদের ট্রেনে ঝুলে, ছাদে চড়ে গন্তব্যে রওনা হতে হচ্ছে। তারা আরও জানান, প্রচণ্ড ভিড় উপেক্ষা করে জীবনের ঝুঁকি তাদের ট্রেনে চলতে হচ্ছে। এখন ট্রেনই তাদের একমাত্র ভরসা।