বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত

দুই পরিবারকে ১০ লাখ টাকা দেয়ার আদেশ বহাল

  যুগান্তর রিপোর্ট ০৯ আগস্ট ২০১৮, ২১:৩৬ | অনলাইন সংস্করণ

হাইকোর্ট
ফাইল ছবি

বেপরোয়া বাসের চাপায় দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় তাদের পরিবারকে এক সপ্তাহের মধ্যে ৫ লাখ টাকা করে দেয়ার আদেশের বিরুদ্ধে করা আবেদনটি পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠিয়েছেন চেম্বার আদালত।

আগামী ৪ অক্টোবর এ বিষয়ে পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানি হবে। এর ফলে হাইকোর্টর দেয়া আদেশ বহাল রয়েছে বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।

বৃহস্পতিবার চেম্বার বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর আদালত এ আদেশ দেন।

আদালতে জাবালে নূরের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী পঙ্কজ কুমার কুণ্ডু। রিট আবেদনের পক্ষে ছিলেন আবেদনকারী আইনজীবী ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল।

তিনি জানান, হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে জাবালে নূর আপিল বিভাগে আবেদন করেছিল। বৃহস্পতিবার আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত আবেদনটি ৪ অক্টোবর শুনানির জন্য পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠিয়েছেন। এর ফলে ১০ লাখ টাকা দেয়ার আদেশ বহাল রইল। এর আগে ৩০ জুলাই এক রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট আদেশ দেন।

গত ৩০ জুলাই এক রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে বেপরোয়া বাসের চাপায় নিহত দুই কলেজশিক্ষার্থীর পরিবারকে এক সপ্তাহের মধ্যে আপাতত ৫ লাখ টাকা করে দিতে জাবালে নূর পরিবহনকে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে আদালত ওই ঘটনায় আহত ব্যক্তিদের চিকিৎসার ব্যয় মেটাতে জাবালে নূর পরিবহনকে নির্দেশ দেন।

ক্ষতিপূরণের অর্থ নিহতদের পরিবার পেল কিনা, তা নিশ্চিত করে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষকে (বিআরটিএ) এ ব্যাপারে তদারকি করে আগামী ১২ আগস্ট আদালতে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়।

বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এই আদেশ দেন। রুলে নিহত দুই শিক্ষার্থীর পরিবারকে দুই কোটি টাকা করে ক্ষতিপূরণ কেন দেয়া হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়। একই সঙ্গে যাত্রীসাধারণের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে, তা জানতে চেয়েছেন আদালত।

এছাড়া কোন যোগ্যতার ভিত্তিতে বিআরটিএ বাস-ট্রাক চালকদের লাইসেন্স প্রদান করে রুলে তা-ও জানতে চাওয়া হয়। স্বরাষ্ট্র সচিব, সড়ক পরিবহন সচিব, পুলিশ মহাপরিদর্শক, ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার, বিআরটিএর চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্টদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়।

উল্লেখ্য, বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহত হন। বিমানবন্দর সড়কের বামপাশে বাসের জন্য অপেক্ষা করার সময় জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাস তাদের চাপা দিলে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন দিয়া আক্তার মিম ও আব্দুল করিম। নিহত ছাত্রী দিয়ার বাড়ি মহাখালী দক্ষিণপাড়ায়। সে একাদশ শ্রেণিতে পড়ত। তার বাবার নাম জাহাঙ্গীর আলম। অন্যদিকে, আব্দুল করিম কলেজের দ্বিতীয় বর্ষে পড়ত।

ঘটনাপ্রবাহ : বিমানবন্দর সড়কে দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যু

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter