কয়লা চুরির ঘটনায় খনির ৭ কর্মকর্তাকে দুদকের জিজ্ঞাসাবাদ

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৬ আগস্ট ২০১৮, ২০:৫৭ | অনলাইন সংস্করণ

বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি কেলেংকারি
দুদক। ফাইল ছবি

দিনাজপুর বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি কেলেংকারির ঘটনায় দায়ের করা মামলার তদন্তের অংশ হিসেবে ওই প্রতিষ্ঠানের সাতজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

বৃহস্পতিবার দুদকের পরিচালক কাজী শফিকুল আলম ও তদন্তকারি কর্মকর্তা উপপরিচালক মো. সামসুল আলমের নেতৃত্বে একটি উচ্চপর্যায়ের টিম ওই সাত কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

যাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে তারা হলেন- খনির মেইন্টেন্যান্স অ্যান্ড কন্ট্রাক্ট ম্যানেজমেন্ট ডিভিশনের উপমহাব্যবস্থাপক মো. নাজমুল হক, কোল হ্যান্ডলিং ম্যানেজমেন্টের ব্যবস্থাপক মো. শোয়েবুল রহমান, প্রোডাকশন ম্যানেজমেন্টের সহকারী ব্যবস্থাপক মো. মনিরুজ্জামান, ও উপব্যবস্থাপক সাঈদ মাসুদ, মেইন্টেন্যান্স অ্যান্ড অপারেশন ডিভিশনের উপব্যবস্থাপক মো. মাহবুব হোসেন, কোল হ্যান্ডলিং ম্যানেজমেন্টের সহকারী ব্যবস্থাপক মো. মাহবুব রশিদ ও ব্যবস্থাপক (স্টোর) মো. দিদারুল কবির।

এদিকে কয়লা খনির তদন্তের অগ্রগতির বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেন, মামলার গুরুত্ব বিবেচনায় আমরা তদন্ত কর্মকর্তাদের বলেছি দ্রুত শেষ করার জন্য। তারা সেই চেষ্টা করছেন।

সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমাদের তদন্ত যারা করছে, তারা যাদের ডেকেছে তারা দুদকে আসবে। আত্মপক্ষ সমর্থন করে বক্তব্য দেবে। এটাই প্রত্যাশা করি। কিন্তু কেউ যদি না আসে আইন তার নিজস্ব গতিতে চলবে।

তিনি বলেন, মামলার তদন্ত চলবে। কেউ যদি আত্মপক্ষ সমর্থন করার সুযোগ না নেন তাহলে আমরা যা ধরে নেয়ার তাই ধরে নেব। আমাদের কর্তব্য যা আমরা তাই করব। আমরা যেটা বলেছি, দ্রুততম সময়ে আমরা এই মামলার পরিণতি দেখবো। আমরা কথা রাখার চেষ্টা করছি।

এদিকে এর আগে গত মঙ্গলবার খনির সাবেক এমডি আমিনুজ্জামান ও খুরশিদ হাসান, সাবেক জিএম (মাইনিং) মিজানুর রহমানকে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক।

জিজ্ঞাসাবাদে এই কর্মকর্তারা কয়লা চুরির ঘটনা আড়াল করে বলেছেন, তারা যখন এমডি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন তখন এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি। তারা দুর্নীতির বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে দুদক কর্মকর্তাদের জানান।

কোন এমডির সময়ে দুর্নীতি হয়েছে জানতে চাইলে একজন এমডি বলেন, দুদক সঠিকভাবে তদন্ত করলেই বেরিয়ে আসবে কতজন এমডি বা কর্মকর্তা এর সঙ্গে জড়িত। তিনি কয়লা চুরির সঙ্গে জড়িতদের শাস্তি দাবি করেন।

এ সময় দুদক কর্মকর্তা ওই এমডিকে বলেন, তদন্তে যদি আপনার বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার ও কর্তব্যে অবহেলার অভিযোগ আসে তখন কী বলবেন? জবাবে তিনি বলেন, আমি দোষী হলে বিচার করবেন।

এদিকে সাবেক এমডি প্রকৌশলী কামরুজ্জামানকে আগামী রোববার জিজ্ঞাসাবাদ করবে দুদক টিম। একইদিন সাবেক এমডি মাহবুবুর রহমান ও সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী এবং সাবেক জিএম হিসাব (মাইনিং) মীর আবদুল মতিনকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলে দুদক সূত্রে জানা গেছে।

এর আগে গত ১ আগস্ট প্রতিষ্ঠানটির সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এসএম নুরুল আওরঙ্গজেবকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এ ছাড়া খনির বর্তমান জিএম (সারফেস ও অপারেশন) সাইফুল ইসলাম সরকারকে সোমবার জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

খনি থেকে ১ লাখ ৪৪ হাজার টন কয়লা গায়েবের ঘটনায় বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপক (প্রশাসন) আনিসুর রহমান বাদী হয়ে গত ২৪ জুলাই খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী হাবিব উদ্দিন আহমেদসহ ১৯ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন। মামলাটির তদন্ত করছে দুদক।

তদন্তের শুরুতেই দুদক মামলার ১৯ আসামিসহ সাবেক তিন এমডির বিদেশ গমনের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। যে পরিমাণ কয়লা সরানো হয়েছে তার বর্তমান বাজারমূল্য ২৩০ কোটি টাকা। দুদক এখন এই ২৩০ কোটি টাকার কয়লা কেলেংকারির তদন্ত করছে।

ঘটনাপ্রবাহ : বড়পুকুরিয়ায় কয়লা গায়েব

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter