ভুটানের সম্ভাব্য প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে বাংলাদেশি সতীর্থরা যা বলছেন

  অমিত রায়, ময়মনসিংহ ব্যুরো ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২২:৪০ | অনলাইন সংস্করণ

ভুটানের সম্ভাব্য প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে বাংলাদেশি সতীর্থরা যা বলছেন
ডা. লোটে শেরিং

ভুটানের প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন ময়মনসিংহ মেডিকেলে কলেজের ছাত্র ডা. লোটে শেরিং। তিনি ময়মনসিংহ মেডিকেলে কলেজের ২৮তম ব্যাচের শিক্ষার্থী।

১৯৯১ সালে বাংলাদেশে এসে বিদেশি কোটায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি হন এবং ১৯৯৯ সালে এমবিবিএস পাস করেন।

পরে ঢাকায় সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজে ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চতর প্রশিক্ষণ নিয়ে এফসিপিএস কোর্স সমাপ্ত করেন। ডা. লোটে শেরিং ভুটানের প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন এমন সংবাদে খুবই গর্ববোধ করছেন তার সহপাঠীরা।

মমেক এর সহপাঠী ডা. আসাদুজ্জামান রতন জানান, লোটে শেরিং ১৯৯১ সালে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস এ ভর্তির পর আমরা বাঘমারা মেডিকেল হোস্টেলে পাশাপাশি ভবনে থাকতাম। মেধাবী ও খুবই নম্রভদ্র স্বভাবের লোটে শেরিং থাকতেন নতুন ভবনে।

প্রতিদিনের পড়াশোনার কাজ প্রতিদিন শেষ করতেন। ছাত্রজীবন থেকে তিনি খুবই বন্ধু ভৎসল। তবে খুব কম কথা বলতেন। পড়াশোনার পাশাপাশি টেবিল টেনিস ও ক্যারামবোর্ড খেলা পছন্দ করতেন।

ডা. রতন জানান, লোটে শেরিং ও আমি প্রফেসর ডা. খাদেমুল ইসলামের অধীনে জেনারেল সার্জারি বিষয়ে ৬ মাস ইন্টার্নশিপ করি। পরে তিনি ঢাকায় সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চতর প্রশিক্ষণ নিয়ে এফসিপিএস কোর্স সমাপ্ত করেন।

ডা. লোটে শেরিং ভুটানের প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন জেনে খুবই গর্ববোধ করে তিনি বলেন, যোগ্য মানুষই দেশ পরিচালনার সুযোগ্য নেতৃত্বে আরও এগিয়ে যাবে। আরেক সহপাঠী ডা. শফিকুল বারী তুহিন জানান, সেশনজট থাকায় আমরা মমেক থেকে ১৯৯৮ সনে পাস করি। তিনি ২০০৩ সন পর্যন্ত বাংলাদেশে ছিলেন। তুহিন আরও জানান, তৎকালীন সময়ে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে ১২-১৩ জন বিদেশি শিক্ষার্থী এমবিবিএস এ পড়াশোনা করত। তার মধ্যে

ডা. লোটে শেরিং খুব মেধাবী ছিলেন। বাংলাদেশে অবস্থানকালীন সময়ে তিনি বন্ধুদের গ্রামের বাড়িতে ঘুরতে যেতেন। ডা. লোটে শেরিং একজন বন্ধু বৎসল এবং সামাজিক মানুষ ছিলেন। বিভিন্ন সময় আলোচনার ফাঁকে দেশে গিয়ে রাজনীতি করবেন বলেও জানিয়েছেন।

জানা যায়, ২০১৩ সালে সিভিল সার্ভিস থেকে অব্যাহতি নিয়ে তিনি রাজনীতিতে যোগ দেন।

গত ১৫ সেপ্টেম্বর ভুটানে অনুষ্ঠিত প্রথম দফা নির্বাচনে তার রাজনৈতিক ডিএনটি দল জয়লাভ করে চমক সৃষ্টি করে।

বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেরিং তোবগে প্রথম দফা নির্বাচনে হেরে যান। অবশ্য তিনি পরাজয় মেনে নিয়েছেন। ডা. লোটে শেরিং প্রধানমন্ত্রী হওয়ার চূড়ান্ত ফলাফল জানা যাবে ১৮ অক্টোবর।

ভুটানে দুই দফায় ভোট হয়। প্রথম দফায় ভোটাররা রাজনৈতিক দলগুলোকে ভোট দেয়। দ্বিতীয় দফায় অর্থাৎ ডা. লোটে শেরিং মুখোমুখি হবেন ডিপিটির ফেনসাম সগবার।

কিন্তু ইতিমধ্যে বিপুল ভোটে ডা. লোটে শেরিংয়ের ডিএনটি জয়ী হয়েছে। রাজনীতিতে আসার আগে ডা. লোটে শেরিং জেডিডব্লিউএনআরএইচ অ্যান্ড মঙ্গার রিজিওনাল রেফারেল হসপিটালে কনসালট্যান্ট সার্জন হিসেবে দায়িত্বপালন করেন।

জেডিডব্লিউএনআরএইচে ইউরোলজিস্ট কনসালট্যান্ট হিসেবেও দায়িত্বপালন করেন তিনি। এরপর ২০১৩ সালে সক্রিয় রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন এবং ২০১৮ সালের শুরুতেই দলের শীর্ষপর্যায়ে চলে আসেন ডা. লোটে শেরিং।

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আনোয়ার হোসেন বলেন, ময়মনসিংহ মেডেকেল কলেজের ২৮তম ব্যাচের ছাত্র ডা. লোটে শেরিং ভুটানের প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন, এটা আমাদের সবার গর্ব, বাংলাদেশের গর্ব। তার উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি কামনা করেন তিনি।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×