পাঁচ বছরে দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৭ হাজার ১৭০ জন নিহত
jugantor
পাঁচ বছরে দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৭ হাজার ১৭০ জন নিহত

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২১ অক্টোবর ২০২০, ২১:০৬:৪৩  |  অনলাইন সংস্করণ

পাঁচ বছরে দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৭ হাজার ১৭০ জন নিহত

দেশে গত পাঁচ বছরে মোট ২৬ হাজার ৯০২টি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে। এতে ৩৭ হাজার ১৭০ জন নিহত হয়েছেন ও আহত হয়েছেন ৮২ হাজার ৭৫৮ জন।

বুধবার বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির এক বিবৃতিতে এসব তথ্য জানানো হয়। বৃহস্পতিবার জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে তারা এ বিবৃতি দিয়েছে।

বিবৃতিতে তারা দুর্ঘটনার সংক্ষিপ্ত তথ্য তুলে ধরেছে। এতে বলা হয়, ২০১৫ সালে ৬ হাজার ৫৮১টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৮ হাজার ৬৪২ জন নিহত ও ২১ হাজার ৮৫৫ জন আহত হয়েছেন। ২০১৬ সালে ৪ হাজার ৩১২টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৬ হাজার ৫৫ জন নিহত ও ১৫ হাজার ৯১৪ জন আহত হয়েছেন, ২০১৭ সালে ৪ হাজার ৯৭৯টি দুর্ঘটনায় ৭ হাজার ৩৯৭ জন নিহত ও ১৬ হাজার ১৯৩ জন আহত হয়েছেন, ২০১৮ সালে ৫ হাজার ৫১৪টি দুর্ঘটনায় ৭ হাজার ২২১ জন নিহত ও ১৫ হাজার ৪৬৬ জন আহত হয়েছেন এবং ২০১৯ সালে ৫ হাজার ৫১৬টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৭ হাজার ৮৫৫ জন নিহত ও আহত হয়েছেন ১৩ হাজার ৩৩০ জন।

এসব সড়ক দুর্ঘটনার বিষয়ে নিজেদের পর্যবেক্ষণ তুলে ধরে বিবৃতিতে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি বলেছে, বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানো এবং বিপজ্জনক ওভারটেক বেড়ে যাওয়ার কারণে সড়ক দুর্ঘটনায় হতাহতের সংখ্যা বাড়ছে।

বিবৃতিতে বলা হয়- সমিতি মনে করে, সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ বাস্তবায়নের পরও সড়কে কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন লক্ষ্য করা যায়নি। বিশৃঙ্খলা, অরাজকতা, ভাড়া নৈরাজ্য ও যাত্রী হয়রানি আগের মতোই আছে। ফলে যাত্রী ভোগান্তি, যানজট ও সড়ক দুর্ঘটনা দিন দিন বেড়েই চলেছে।

বিবৃতিতে নিরাপদ সড়ক শুধুমাত্র দিবসের মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করার নির্বাচনী অঙ্গীকার জরুরি ভিত্তিতে বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি।

পাঁচ বছরে দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৭ হাজার ১৭০ জন নিহত

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২১ অক্টোবর ২০২০, ০৯:০৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
পাঁচ বছরে দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৭ হাজার ১৭০ জন নিহত
সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলায় গত সোমবার রডবোঝাই ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বসত বাড়িতে ঢুকে ঘুমন্ত এক কিশোর নিহত হয়। ছবি: যুগান্তর

দেশে গত পাঁচ বছরে মোট ২৬ হাজার ৯০২টি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে।  এতে ৩৭ হাজার ১৭০ জন নিহত হয়েছেন ও আহত হয়েছেন ৮২ হাজার ৭৫৮ জন। 

বুধবার বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির এক বিবৃতিতে এসব তথ্য জানানো হয়।  বৃহস্পতিবার জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে তারা এ বিবৃতি দিয়েছে। 

বিবৃতিতে তারা দুর্ঘটনার সংক্ষিপ্ত তথ্য তুলে ধরেছে।  এতে বলা হয়, ২০১৫ সালে ৬ হাজার ৫৮১টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৮ হাজার ৬৪২ জন নিহত ও ২১ হাজার ৮৫৫ জন আহত হয়েছেন। ২০১৬ সালে ৪ হাজার ৩১২টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৬ হাজার ৫৫ জন নিহত ও ১৫ হাজার ৯১৪ জন আহত হয়েছেন, ২০১৭ সালে ৪ হাজার ৯৭৯টি দুর্ঘটনায় ৭ হাজার ৩৯৭ জন নিহত ও ১৬ হাজার ১৯৩ জন আহত হয়েছেন, ২০১৮ সালে ৫ হাজার ৫১৪টি দুর্ঘটনায় ৭ হাজার ২২১ জন নিহত ও ১৫ হাজার ৪৬৬ জন আহত হয়েছেন এবং ২০১৯ সালে ৫ হাজার ৫১৬টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৭ হাজার ৮৫৫ জন নিহত ও আহত হয়েছেন ১৩ হাজার ৩৩০ জন।

এসব সড়ক দুর্ঘটনার বিষয়ে নিজেদের পর্যবেক্ষণ তুলে ধরে বিবৃতিতে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি বলেছে, বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানো এবং বিপজ্জনক ওভারটেক বেড়ে যাওয়ার কারণে সড়ক দুর্ঘটনায় হতাহতের সংখ্যা বাড়ছে।

বিবৃতিতে বলা হয়- সমিতি মনে করে, সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ বাস্তবায়নের পরও সড়কে কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন লক্ষ্য করা যায়নি।  বিশৃঙ্খলা, অরাজকতা, ভাড়া নৈরাজ্য ও যাত্রী হয়রানি আগের মতোই আছে।  ফলে যাত্রী ভোগান্তি, যানজট ও সড়ক দুর্ঘটনা দিন দিন বেড়েই চলেছে।

বিবৃতিতে নিরাপদ সড়ক শুধুমাত্র দিবসের মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করার নির্বাচনী অঙ্গীকার জরুরি ভিত্তিতে বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি।