র‌্যাবের রিমান্ড শেষ, সাহেদকে আদালতে তোলা হবে কাল
jugantor
র‌্যাবের রিমান্ড শেষ, সাহেদকে আদালতে তোলা হবে কাল

  যুগান্তর রিপোর্ট  

০৪ আগস্ট ২০২০, ২১:৫৫:৩৬  |  অনলাইন সংস্করণ

র‌্যাবের রিমান্ড শেষ, সাহেদকে আদালতে তোলা হবে কাল
ফাইল ছবি

র‌্যাব হেফাজতে দশ দিনের রিমান্ড শেষে পুলিশের হেফাজতে ২৮ দিনের রিমান্ড শুরু হচ্ছে রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক মো. সাহেদের। 

সাতক্ষীরায় অস্ত্র মামলায় র‌্যাব হেফাজতে সাহেদের ১০ দিনের রিমান্ড শেষ হয়েছে মঙ্গলবার। বুধবার তাকে আদালতে তোলা হবে। সেখান থেকে উত্তরা পশ্চিম ও পূর্ব থানায় চার মামলায় সাহেদকে ২৮ দিনের রিমান্ডে নেয়ার কথা রয়েছে।

এর আগে গত ৩০ জুলাই সাহেদকে অভিযুক্ত করে অস্ত্র আইনের মামলায় আদালতে চার্জশিট দেয় মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

উল্লেখ্য, করোনার নমুনা সংগ্রহ করে মনগড়া প্রতিবেদন দেয়া, রোগীদের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেয়াসহ নানা অভিযোগে রিজেন্ট হাসপাতালে গত ৬ জুলাই অভিযান চালিয়ে সিলগালা করে দেয় র‌্যাব। ৭ জুলাই সাহেদকে প্রধান আসামি করে র‌্যাব উত্তরা পশ্চিম থানায় ১৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে।

একই দিন হাসপাতালটির মিরপুর শাখায়ও অভিযান চালিয়ে সিলগালা করা হয়। ১৩ জুলাই র‌্যাব মামলার তদন্তের দায়িত্ব চেয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে আবেদন করে। ১৫ জুলাই সাতক্ষীরার সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে সাহেদকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। সেদিনই সাতক্ষীরার দেবহাটা থানায় অস্ত্র আইনে তার বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়। 

১৬ জুলাই সাহেদকে জিজ্ঞাসাবাদে ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন ঢাকার আদালত। ৬ দিন ডিবি হেফাজতে রিমান্ডে থাকার পর বৃহস্পতিবার তাকে চার দিনের জন্য র‌্যাবের হেফাজতে দেয়া হয়। রিমান্ডে থাকা সাহেদকে নিয়ে ১৮ জুলাই রাতে উত্তরায় অভিযান চালিয়ে অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার করে গোয়েন্দা পুলিশ। পরে তার বিরুদ্ধে উত্তরা পশ্চিম থানায় অস্ত্র আইনে মামলা দায়ের করা হয়।

র‌্যাবের রিমান্ড শেষ, সাহেদকে আদালতে তোলা হবে কাল

 যুগান্তর রিপোর্ট 
০৪ আগস্ট ২০২০, ০৯:৫৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
র‌্যাবের রিমান্ড শেষ, সাহেদকে আদালতে তোলা হবে কাল
ফাইল ছবি

র‌্যাব হেফাজতে দশ দিনের রিমান্ড শেষে পুলিশের হেফাজতে ২৮ দিনের রিমান্ড শুরু হচ্ছে রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক মো. সাহেদের।

সাতক্ষীরায় অস্ত্র মামলায় র‌্যাব হেফাজতে সাহেদের ১০ দিনের রিমান্ড শেষ হয়েছে মঙ্গলবার। বুধবার তাকে আদালতে তোলা হবে। সেখান থেকে উত্তরা পশ্চিম ও পূর্ব থানায় চার মামলায় সাহেদকে ২৮ দিনের রিমান্ডে নেয়ার কথা রয়েছে।

এর আগে গত ৩০ জুলাই সাহেদকে অভিযুক্ত করে অস্ত্র আইনের মামলায় আদালতে চার্জশিট দেয় মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

উল্লেখ্য, করোনার নমুনা সংগ্রহ করে মনগড়া প্রতিবেদন দেয়া, রোগীদের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেয়াসহ নানা অভিযোগে রিজেন্ট হাসপাতালে গত ৬ জুলাই অভিযান চালিয়ে সিলগালা করে দেয় র‌্যাব। ৭ জুলাই সাহেদকে প্রধান আসামি করে র‌্যাব উত্তরা পশ্চিম থানায় ১৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে।

একই দিন হাসপাতালটির মিরপুর শাখায়ও অভিযান চালিয়ে সিলগালা করা হয়। ১৩ জুলাই র‌্যাব মামলার তদন্তের দায়িত্ব চেয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে আবেদন করে। ১৫ জুলাই সাতক্ষীরার সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে সাহেদকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। সেদিনই সাতক্ষীরার দেবহাটা থানায় অস্ত্র আইনে তার বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়।

১৬ জুলাই সাহেদকে জিজ্ঞাসাবাদে ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন ঢাকার আদালত। ৬ দিন ডিবি হেফাজতে রিমান্ডে থাকার পর বৃহস্পতিবার তাকে চার দিনের জন্য র‌্যাবের হেফাজতে দেয়া হয়। রিমান্ডে থাকা সাহেদকে নিয়ে ১৮ জুলাই রাতে উত্তরায় অভিযান চালিয়ে অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার করে গোয়েন্দা পুলিশ। পরে তার বিরুদ্ধে উত্তরা পশ্চিম থানায় অস্ত্র আইনে মামলা দায়ের করা হয়।

 

ঘটনাপ্রবাহ : রিজেন্ট গ্রুপ চেয়ারম্যান সাহেদ কাণ্ড