জেকেজির সাবরিনা-আরিফসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট
jugantor
করোনা টেস্ট জালিয়াতি
জেকেজির সাবরিনা-আরিফসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

  যুগান্তর রিপোর্ট  

০৫ আগস্ট ২০২০, ২০:০২:২২  |  অনলাইন সংস্করণ

জেকেজির সাবরিনা-আরিফসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট
ফাইল ছবি

টাকার বিনিময়ে টেস্ট না করেই করোনার ভুয়া রিপোর্ট দেয়ার অভিযোগে জেকেজি হেলথ কেয়ারের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরী ও তার স্বামী জেকেজির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুল হক চৌধুরীসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট (অভিযোগপত্র) জমা দিয়েছে পুলিশ।

বুধবার ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে এ চার্জশিট জমা দেয় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিএমপি)। নিয়ম অনুযায়ী চার্জশিট আদালতে উপস্থাপন করা হবে।  মামলায় ৩১ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে।

মামলার চার্জশিটভুক্ত অন্য ৬ আসামি হলেন- জেকেজির সমন্বয়ক সাঈদ চৌধুরী, জেকেজির সাবেক কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির, তার স্ত্রী তানজিনা পাটোয়ারী, বিপ্লব দাস, শফিকুল ইসলাম ও জেবুন্নেসা। আর চার্জশিট থেকে মামুনুর রশীদ নামের এক আসামিকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। 

করোনাভাইরাস টেস্টের নামে প্রতারণার অভিযোগে ২৩ জুন সাবরিনার স্বামী আরিফ চৌধুরীসহ ছয়জনকে গ্রেফতার করে তেজগাঁও থানা পুলিশ। ২৪ জুন আরিফ চৌধুরী ও সহযোগী সাঈদ চৌধুরীর দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন ঢাকা মহানগর হাকিম আদালত। তাদের জিজ্ঞাসাবাদেও বেরিয়ে আসে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। পরে সাবরিনাকে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এ ঘটনায় তার সংশ্লিষ্টতা পাওয়ায় তাকেও গ্রেফতার দেখানো হয়। পরে মুখোমুখি জিজ্ঞাসাবাদে তারা একে অপরকে দোষারোপ করেন।

এই দম্পতি করোনা টেস্ট জালিয়াতি করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। করোনার নমুনা গ্রহণ করার পর সেগুলো পরীক্ষা না করেই ড্রেনে ফেলা হতো। রিপোর্ট দেয়া হতো অনুমাননির্ভর। এরকম বহু অভিযোগ উঠেছে তাদের বিরুদ্ধে।
 

করোনা টেস্ট জালিয়াতি

জেকেজির সাবরিনা-আরিফসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

 যুগান্তর রিপোর্ট 
০৫ আগস্ট ২০২০, ০৮:০২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
জেকেজির সাবরিনা-আরিফসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট
ফাইল ছবি

টাকার বিনিময়ে টেস্ট না করেই করোনার ভুয়া রিপোর্ট দেয়ার অভিযোগে জেকেজি হেলথ কেয়ারের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরী ও তার স্বামী জেকেজির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুল হক চৌধুরীসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট (অভিযোগপত্র) জমা দিয়েছে পুলিশ।

বুধবার ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে এ চার্জশিট জমা দেয় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিএমপি)। নিয়ম অনুযায়ী চার্জশিট আদালতে উপস্থাপন করা হবে। মামলায় ৩১ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে।

মামলার চার্জশিটভুক্ত অন্য ৬ আসামি হলেন- জেকেজির সমন্বয়ক সাঈদ চৌধুরী, জেকেজির সাবেক কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির, তার স্ত্রী তানজিনা পাটোয়ারী, বিপ্লব দাস, শফিকুল ইসলাম ও জেবুন্নেসা। আর চার্জশিট থেকে মামুনুর রশীদ নামের এক আসামিকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

করোনাভাইরাস টেস্টের নামে প্রতারণার অভিযোগে ২৩ জুন সাবরিনার স্বামী আরিফ চৌধুরীসহ ছয়জনকে গ্রেফতার করে তেজগাঁও থানা পুলিশ। ২৪ জুন আরিফ চৌধুরী ও সহযোগী সাঈদ চৌধুরীর দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন ঢাকা মহানগর হাকিম আদালত। তাদের জিজ্ঞাসাবাদেও বেরিয়ে আসে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। পরে সাবরিনাকে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এ ঘটনায় তার সংশ্লিষ্টতা পাওয়ায় তাকেও গ্রেফতার দেখানো হয়। পরে মুখোমুখি জিজ্ঞাসাবাদে তারা একে অপরকে দোষারোপ করেন।

এই দম্পতি করোনা টেস্ট জালিয়াতি করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। করোনার নমুনা গ্রহণ করার পর সেগুলো পরীক্ষা না করেই ড্রেনে ফেলা হতো। রিপোর্ট দেয়া হতো অনুমাননির্ভর। এরকম বহু অভিযোগ উঠেছে তাদের বিরুদ্ধে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : করোনা টেস্ট প্রতারণায় জেকেজি