টাকা নিয়ে ‘পলাতক’ আরেক ই-কমার্সের মালিক, ফেসবুক লাইভে গালাগালি
jugantor
টাকা নিয়ে ‘পলাতক’ আরেক ই-কমার্সের মালিক, ফেসবুক লাইভে গালাগালি

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৯ অক্টোবর ২০২১, ২২:৩০:৪৯  |  অনলাইন সংস্করণ

টাকা নিয়ে ‘পলাতক’ আরেক ই-কমার্সের মালিক, ফেসবুক লাইভে গালাগালি

ইভ্যালি, ই-অরেঞ্জ, ধামাকা, রিং আইডি,নিরাপদ, কিউকমের পর এবার আরেকটি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ‘আনন্দের বাজার’ এর প্রতারণা বেরিয়ে এসেছে। প্রতিষ্ঠানটির মালিক আহমুদুল হক খন্দকার আকর্ষণীয় দামে পণ্য দেওয়ার কথা বলে গ্রাহকদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে পালিয়েছেন। তিনি ‘পলাতক’ অবস্থায় ফেসবুক লাইভে এসে পুলিশ, সাংবাদিক ও গ্রাহকদের গালাগালি করছেন।

‘আনন্দের বাজার’-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার (সিইও) আহমুদুল হক খন্দকারের বিরুদ্ধে রাজধানীর গুলশান থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন একজন গ্রাহক। গত ৫ অক্টোবর রাতে গুলশান থানায় প্রতারণার অভিযোগ এনে মো. সুজন নামের একজন গ্রাহক এই মামলাটি করেন।

শনিবার গুলশান থানার ওসি আবুল হাসান গণমাধ্যমকে বলেন, আনন্দের বাজারের মালিকের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। তার অবস্থান এখনো জানা যায়নি।

এদিকে কয়েক দফা ফেসবুক লাইভে এসে ‘আনন্দের বাজার’-এর মালিক আহমুদুল হক ই-কমার্সের বর্তমান পরিস্থিতির জন্য পুলিশ, সাংবাদিক ও গ্রাহকদের দায়ী করে নানা বিরূপ মন্তব্য করেছেন। লাইভে তিনি পুলিশকে ঘুস দেওয়ারও অভিযোগ তুলেছেন।

সর্বশেষ গতকাল (৮ অক্টোবর) রাতে ফেসবুক লাইভে এসে আহমুদুল হক বলেন, ‘ওই দিন আমার পুলিশ ভাই এসেছিল, আমি ১২ লাখ টাকা ক্যাশ দিয়েছি। কই, কেউ আমার পক্ষে কথা বলল না!’

আহমুদুল হকের এই অভিযোগের বিষয়ে শনিবার পুলিশের গুলশান জোনের সহকারী কমিশনার নিউটন দাশ একটি গণমাধ্যমকে বলেন, ‘তাকে (আহমুদুল হক) গ্রেফতার করতে পারলে কারা ঘুস নিয়েছে, কী কারণে টাকা দিয়েছে- সেসব বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।’

টাকা নিয়ে ‘পলাতক’ আরেক ই-কমার্সের মালিক, ফেসবুক লাইভে গালাগালি

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৯ অক্টোবর ২০২১, ১০:৩০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
টাকা নিয়ে ‘পলাতক’ আরেক ই-কমার্সের মালিক, ফেসবুক লাইভে গালাগালি
‘আনন্দের বাজার’-এর মালিক আহমুদুল হক খন্দকার।

ইভ্যালি, ই-অরেঞ্জ, ধামাকা, রিং আইডি, নিরাপদ, কিউকমের পর এবার আরেকটি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ‘আনন্দের বাজার’ এর প্রতারণা বেরিয়ে এসেছে। প্রতিষ্ঠানটির মালিক আহমুদুল হক খন্দকার আকর্ষণীয় দামে পণ্য দেওয়ার কথা বলে গ্রাহকদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে পালিয়েছেন। তিনি ‘পলাতক’ অবস্থায় ফেসবুক লাইভে এসে পুলিশ, সাংবাদিক ও গ্রাহকদের গালাগালি করছেন।

‘আনন্দের বাজার’-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার (সিইও) আহমুদুল হক খন্দকারের বিরুদ্ধে রাজধানীর গুলশান থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন একজন গ্রাহক। গত ৫ অক্টোবর রাতে গুলশান থানায় প্রতারণার অভিযোগ এনে মো. সুজন নামের একজন গ্রাহক এই মামলাটি করেন। 

শনিবার গুলশান থানার ওসি আবুল হাসান গণমাধ্যমকে বলেন, আনন্দের বাজারের মালিকের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। তার অবস্থান এখনো জানা যায়নি। 

এদিকে কয়েক দফা ফেসবুক লাইভে এসে ‘আনন্দের বাজার’-এর মালিক আহমুদুল হক ই-কমার্সের বর্তমান পরিস্থিতির জন্য পুলিশ, সাংবাদিক ও গ্রাহকদের দায়ী করে নানা বিরূপ মন্তব্য করেছেন। লাইভে তিনি পুলিশকে ঘুস দেওয়ারও অভিযোগ তুলেছেন।

সর্বশেষ গতকাল (৮ অক্টোবর) রাতে ফেসবুক লাইভে এসে আহমুদুল হক বলেন, ‘ওই দিন আমার পুলিশ ভাই এসেছিল, আমি ১২ লাখ টাকা ক্যাশ দিয়েছি। কই, কেউ আমার পক্ষে কথা বলল না!’

আহমুদুল হকের এই অভিযোগের বিষয়ে শনিবার পুলিশের গুলশান জোনের সহকারী কমিশনার নিউটন দাশ একটি গণমাধ্যমকে বলেন, ‘তাকে (আহমুদুল হক) গ্রেফতার করতে পারলে কারা ঘুস নিয়েছে, কী কারণে টাকা দিয়েছে- সেসব বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।’

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর