ড্রাইভার মালেক ও আবজালদের মতো আরও দুর্নীতিবাজ রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
jugantor
ড্রাইভার মালেক ও আবজালদের মতো আরও দুর্নীতিবাজ রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২০:২২:৩৩  |  অনলাইন সংস্করণ

ড্রাইভার মালেক ও আবজালদের মতো আরও দুর্নীতিবাজ রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

অনিয়ম-দুর্নীতি করে শত কোটি টাকার মালিক বনে যাওয়া স্বাস্থ্য অধিদফতরের ডিজির ড্রাইভার (সাময়িক বরখাস্ত) আবদুল মালেক ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের মেডিকেল এডুকেশন শাখার প্রশাসনিক কর্মকর্তা (সাময়িক বরখাস্ত) মো. আবজাল হোসেনের মতো আরও দুর্নীতিবাজ রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

সোমবার সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

গত ২০ সেপ্টেম্বর রাজধানীর তুরাগ থানার কামারপাড়ার বামনের টেক এলাকার বাসা থেকে মালেককে গ্রেফতার করে র‌্যাব। এরপরই বেরিয়ে আসে তার নানা অনিয়ম ও দুর্নীতি করে কোটিপতি হওয়ার তথ্য। তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী হলেও মালেকের ঢাকার বিভিন্ন স্থানে একাধিক বিলাসবহুল বাড়ি, গাড়ি ও ফ্ল্যাট এবং বিপুল নগদ টাকা রয়েছে বলে তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। বর্তমানে তিনি ১৪ দিনের রিমান্ডে আছেন।

অন্যদিকে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মেডিকেল এডুকেশন শাখার প্রশাসনিক কর্মকর্তা (সাময়িক বরখাস্ত) মো. আবজাল হোসেনও একই পথ অবলম্বন করে কয়েশ' কোটি টাকার মালিক হয়েছেন। তার বিরুদ্ধে ২৬৩ কোটি ৭৭ লাখ ৬৪ হাজার ৭২৩ টাকা মানিলন্ডারিং, ৫ কোটি ৯০ লাখ ২৮ হাজার ৯২৬ টাকার সম্পদের তথ্যগোপনসহ ৩১ কোটি ৫১ লাখ ২৩ হাজার ৪৪ টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভুত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ রয়েছে। এ ছাড়া তার বিরুদ্ধে মালয়েশিয়া, অস্ট্রেলিয়া ও কানাডায় অর্থপাচারের তথ্য পাওয়া গেছে। শুধু তাই নয়, আবজাল তার স্ত্রী রুবিনা খানমের নামেও বিপুল পরিমাণ স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি গড়েছেন। তাদের বিরুদ্ধে দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর গত ২৬ আগস্টআবজাল হোসেন ঢাকার মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ কেএম ইমরুল কায়েশের আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন চান।শুনানি শেষে জামিন আবেদন নাকচ করে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

স্বাস্থ্য খাতে এমন দুর্নীতি নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, আমাদের সময়ে কেউ দুর্নীতি করে রেহাই পায়নি। তাছাড়া ড্রাইভার মালেকরা একদিনে তৈরি হয়নি। মালেক ও আবজালদের মতো আরও দুর্নীতিবাজ রয়েছে, আমরা সবাইকে চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। তাদের সবার বিরুদ্ধে অনুসন্ধান চলছে।

ড্রাইভার মালেক ও আবজালদের মতো আরও দুর্নীতিবাজ রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:২২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ড্রাইভার মালেক ও আবজালদের মতো আরও দুর্নীতিবাজ রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
ফাইল ছবি

অনিয়ম-দুর্নীতি করে শত কোটি টাকার মালিক বনে যাওয়া স্বাস্থ্য অধিদফতরের ডিজির ড্রাইভার (সাময়িক বরখাস্ত) আবদুল মালেক ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের মেডিকেল এডুকেশন শাখার প্রশাসনিক কর্মকর্তা (সাময়িক বরখাস্ত) মো. আবজাল হোসেনের মতো আরও দুর্নীতিবাজ রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

সোমবার সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

গত ২০ সেপ্টেম্বর রাজধানীর তুরাগ থানার কামারপাড়ার বামনের টেক এলাকার বাসা থেকে মালেককে গ্রেফতার করে র‌্যাব। এরপরই বেরিয়ে আসে তার নানা অনিয়ম ও দুর্নীতি করে কোটিপতি হওয়ার তথ্য। তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী হলেও মালেকের ঢাকার বিভিন্ন স্থানে একাধিক বিলাসবহুল বাড়ি, গাড়ি ও ফ্ল্যাট এবং বিপুল নগদ টাকা রয়েছে বলে তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। বর্তমানে তিনি ১৪ দিনের রিমান্ডে আছেন।

অন্যদিকে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মেডিকেল এডুকেশন শাখার প্রশাসনিক কর্মকর্তা (সাময়িক বরখাস্ত) মো. আবজাল হোসেনও একই পথ অবলম্বন করে কয়েশ' কোটি টাকার মালিক হয়েছেন। তার বিরুদ্ধে ২৬৩ কোটি ৭৭ লাখ ৬৪ হাজার ৭২৩ টাকা মানিলন্ডারিং, ৫ কোটি ৯০ লাখ ২৮ হাজার ৯২৬ টাকার সম্পদের তথ্যগোপনসহ ৩১ কোটি ৫১ লাখ ২৩ হাজার ৪৪ টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভুত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ রয়েছে। এ ছাড়া তার বিরুদ্ধে মালয়েশিয়া, অস্ট্রেলিয়া ও কানাডায় অর্থপাচারের তথ্য পাওয়া গেছে। শুধু তাই নয়, আবজাল তার স্ত্রী রুবিনা খানমের নামেও বিপুল পরিমাণ স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি গড়েছেন। তাদের বিরুদ্ধে দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর গত ২৬ আগস্ট আবজাল হোসেন ঢাকার মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ কেএম ইমরুল কায়েশের আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন চান।শুনানি শেষে জামিন আবেদন নাকচ করে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।  

স্বাস্থ্য খাতে এমন দুর্নীতি নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, আমাদের সময়ে কেউ দুর্নীতি করে রেহাই পায়নি। তাছাড়া ড্রাইভার মালেকরা একদিনে তৈরি হয়নি। মালেক ও আবজালদের মতো আরও দুর্নীতিবাজ রয়েছে, আমরা সবাইকে চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। তাদের সবার বিরুদ্ধে অনুসন্ধান চলছে।

 
আরও খবর