চালের নতুন দাম নির্ধারণ
jugantor
চালের নতুন দাম নির্ধারণ

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৯:৩৩:১৪  |  অনলাইন সংস্করণ

চালের বাজারে অস্থিরতা শুরুর মধ্যে ব্যবসায়ী ও চালকল মালিকদের সঙ্গে বৈঠকে বসে নতুন দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার। এখন থেকেসবচেয়ে ভালো মানের মিনিকেট চাল প্রতি কেজি সাড়ে ৫১ টাকা এবংআটাশ চালের কেজি ৪৫ টাকায় বিক্রি করতে বলা হয়েছে।

নির্ধারিত এই দাম বাড়ালে সরকার চাল আমদানি করবে বলে বৈঠকে চালকল মালিক ও চাল ব্যবসায়ীদের হুশিয়ার করেদিয়েছেনখাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

মঙ্গলবার রাজধানীর খাদ্য ভবনের সম্মেলন কক্ষে চালকল মালিক ও চাল ব্যবসায়ীদের সঙ্গে সাড়ে তিন ঘণ্টা বৈঠক করেন খাদ্যমন্ত্রী।

বৈঠক সূত্র জানায়, বৈঠকে খাদ্যমন্ত্রীকে চাল ব্যবসায়ীরা জানান- তার ১৫ দিন আগে চালকলগুলো থেকে ৫০ কেজির এক বস্তা মিনিকেট চাল ২৫৫৫ টাকায় কিনেছেন। বৈঠকের শেষ পর্যায়ে ৫০ কেজি ওজনের এক বস্তা মিনিকেট চালের দাম ২৬০০ টাকা এবং আটাশ চালের দাম ২৩০০ টাকা নির্ধারণ করে দেন খাদ্যমন্ত্রী।

এ সময় চাল ব্যবসায়ীরা আপত্তি জানালে সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে খাদ্যমন্ত্রী ১৫ দিন আগের দামে চাল বিক্রির নির্দেশ দেন।

এদিকে বৈঠক শেষে বেরিয়ে আসলেমন্ত্রীকে চাল ব্যবসায়ীরা আবার ধরেন। এ সময় আবার বৈঠকে বসেন মন্ত্রী। রুদ্ধদ্বার বৈঠকে সবচেয়ে ভালো মানের ৫০ কেজির এক বস্তা মিনিকেট চালের দাম (মিল গেট) ২৫৭৫ টাকা এবংআটাশ চালের দাম ২২৫০ টাকা নির্ধারণ করে দেন মন্ত্রী।

চালের নতুন দাম নির্ধারণ

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭:৩৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

চালের বাজারে অস্থিরতা শুরুর মধ্যে ব্যবসায়ী ও চালকল মালিকদের সঙ্গে বৈঠকে বসে নতুন দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার। এখন থেকে সবচেয়ে ভালো মানের মিনিকেট চাল প্রতি কেজি সাড়ে ৫১ টাকা এবং আটাশ চালের কেজি ৪৫ টাকায় বিক্রি করতে বলা হয়েছে।

নির্ধারিত এই দাম বাড়ালে সরকার চাল আমদানি করবে বলে বৈঠকে চালকল মালিক ও চাল ব্যবসায়ীদের হুশিয়ার করে দিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

মঙ্গলবার রাজধানীর খাদ্য ভবনের সম্মেলন কক্ষে চালকল মালিক ও চাল ব্যবসায়ীদের সঙ্গে সাড়ে তিন ঘণ্টা বৈঠক করেন খাদ্যমন্ত্রী।

বৈঠক সূত্র জানায়, বৈঠকে খাদ্যমন্ত্রীকে চাল ব্যবসায়ীরা জানান- তার ১৫ দিন আগে চালকলগুলো থেকে ৫০ কেজির এক বস্তা মিনিকেট চাল ২৫৫৫ টাকায় কিনেছেন।  বৈঠকের শেষ পর্যায়ে ৫০ কেজি ওজনের এক বস্তা মিনিকেট চালের দাম ২৬০০ টাকা এবং আটাশ চালের দাম ২৩০০ টাকা নির্ধারণ করে দেন খাদ্যমন্ত্রী।

এ সময় চাল ব্যবসায়ীরা আপত্তি জানালে সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে খাদ্যমন্ত্রী ১৫ দিন আগের দামে চাল বিক্রির নির্দেশ দেন।

এদিকে বৈঠক শেষে বেরিয়ে আসলে মন্ত্রীকে চাল ব্যবসায়ীরা আবার ধরেন। এ সময় আবার বৈঠকে বসেন মন্ত্রী। রুদ্ধদ্বার বৈঠকে সবচেয়ে ভালো মানের ৫০ কেজির এক বস্তা মিনিকেট চালের দাম (মিল গেট) ২৫৭৫ টাকা এবং আটাশ চালের দাম ২২৫০ টাকা নির্ধারণ করে দেন মন্ত্রী।

 
আরও খবর