ব্রিটেনের রানীর স্বামী ফিলিপের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোকবার্তা
jugantor
ব্রিটেনের রানীর স্বামী ফিলিপের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোকবার্তা

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১০ এপ্রিল ২০২১, ১৯:০৫:০৮  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রিটেনের রানীর স্বামী ফিলিপের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোকবার্তা

ডিউক অব এডিনবার্গ প্রিন্স ফিলিপের মৃত্যুতে বাংলাদেশ এবং ব্রিটিশ-বাংলাদেশি সম্প্রদায় সত্যিকারের বন্ধু ও মিত্রকে হারিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শনিবার ব্রিটেনের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের কাছে পাঠানো এক শোকবার্তায় প্রধানমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

চিঠিতে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বাংলাদেশের জনগণের কাছে এইচআরএইচ ডিউক সর্বদা দায়িত্ব ও সম্মানের উদাহরণ হয়ে থাকবেন এবং আপনার মহিমা এবং কমনওয়েলথ জনগণের পক্ষে শক্তি ও সমর্থনের একটি স্তম্ভ হিসেবে থাকবেন।

চিঠিতে ডিউক অব এডিনবার্গের সঙ্গে রানির বাংলাদেশে দুইটি ঐতিহাসিক সফরের কথা স্মরণ করেন শেখ হাসিনা।

সমবেদনা জানিয়ে চিঠিতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সর্বশক্তিমান এই অপূরণীয় ক্ষতি সইবার জন্য আপনাকে, শোকার্ত রাজ পরিবারের সদস্য এবং যুক্তরাজ্যের জনগণকে মনোবল ও সাহস দান করুন।

উল্লেখ্য, শুক্রবার প্রিন্স ফিলিপ মারা যাওয়ার খবর ঘোষণা করে বাকিংহাম প্যালেস। ব্রিটেনের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের স্বামী প্রিন্স ফিলিপের বয়স হয়েছিল ৯৯ বছর। অসুস্থ বোধ করায় গত ১৬ ফেব্রুয়ারি ফিলিপকে কিং এডওয়ার্ড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। এক মাসের চিকিৎসা শেষে ১৬ মার্চ হাসপাতাল ছেড়েছিলেন তিনি। তার মৃত্যুর পর বাকিংহাম প্যালেসের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘খুবই বেদনার সঙ্গে রানী তার প্রিয় স্বামীর মৃত্যুর খবর ঘোষণা করেছেন। রানীর অফিশিয়াল আবাস ইউন্ডসর ক্যাসেলে শান্তিপূর্ণভাবে শেষ নিঃশ্বাস ফেলেছেন তিনি’।

১৯৪৭ সালে এলিজাবেথকে বিয়ে করেনফিলিপ। ৫ বছর পর ১৯৫২ সালে রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ ব্রিটিশ সিংহাসনে আরোহণ করেন। তখন থেকে এ পর্যন্ত নৌবাহিনীর সাবেক কর্মকর্তা প্রিন্স ফিলিপ ২২ হাজার ২১৯টি একক সরকারি কর্মসূচিতে অংশ নেন।

ব্রিটেনের রানীর স্বামী ফিলিপের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোকবার্তা

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১০ এপ্রিল ২০২১, ০৭:০৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ব্রিটেনের রানীর স্বামী ফিলিপের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোকবার্তা
রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ এবং তার স্বামী ডিউক অব এডিনবরা প্রিন্স ফিলিপ।

ডিউক অব এডিনবার্গ প্রিন্স ফিলিপের মৃত্যুতে বাংলাদেশ এবং ব্রিটিশ-বাংলাদেশি সম্প্রদায় সত্যিকারের বন্ধু ও মিত্রকে হারিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শনিবার ব্রিটেনের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের কাছে পাঠানো এক শোকবার্তায় প্রধানমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

চিঠিতে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বাংলাদেশের জনগণের কাছে এইচআরএইচ ডিউক সর্বদা দায়িত্ব ও সম্মানের উদাহরণ হয়ে থাকবেন এবং আপনার মহিমা এবং কমনওয়েলথ জনগণের পক্ষে শক্তি ও সমর্থনের একটি স্তম্ভ হিসেবে থাকবেন।

চিঠিতে ডিউক অব এডিনবার্গের সঙ্গে রানির বাংলাদেশে দুইটি ঐতিহাসিক সফরের কথা স্মরণ করেন শেখ হাসিনা।

সমবেদনা জানিয়ে চিঠিতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সর্বশক্তিমান এই অপূরণীয় ক্ষতি সইবার জন্য আপনাকে, শোকার্ত রাজ পরিবারের সদস্য এবং যুক্তরাজ্যের জনগণকে মনোবল ও সাহস দান করুন।

উল্লেখ্য, শুক্রবার প্রিন্স ফিলিপ মারা যাওয়ার খবর ঘোষণা করে বাকিংহাম প্যালেস। ব্রিটেনের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের স্বামী প্রিন্স ফিলিপের বয়স হয়েছিল ৯৯ বছর। অসুস্থ বোধ করায় গত ১৬ ফেব্রুয়ারি ফিলিপকে কিং এডওয়ার্ড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। এক মাসের চিকিৎসা শেষে ১৬ মার্চ হাসপাতাল ছেড়েছিলেন তিনি। তার মৃত্যুর পর বাকিংহাম প্যালেসের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘খুবই বেদনার সঙ্গে রানী তার প্রিয় স্বামীর মৃত্যুর খবর ঘোষণা করেছেন। রানীর অফিশিয়াল আবাস ইউন্ডসর ক্যাসেলে শান্তিপূর্ণভাবে শেষ নিঃশ্বাস ফেলেছেন তিনি’।

১৯৪৭ সালে এলিজাবেথকে বিয়ে করেন ফিলিপ। ৫ বছর পর ১৯৫২ সালে রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ ব্রিটিশ সিংহাসনে আরোহণ করেন। তখন থেকে এ পর্যন্ত নৌবাহিনীর সাবেক কর্মকর্তা প্রিন্স ফিলিপ ২২ হাজার ২১৯টি একক সরকারি কর্মসূচিতে অংশ নেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন