স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ যাই থাক, টাকার ‘সমস্যা হবে না’
jugantor
স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ যাই থাক, টাকার ‘সমস্যা হবে না’

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৪ জুন ২০২১, ১৭:০১:৩৪  |  অনলাইন সংস্করণ

২০২১-২২ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত বাজেটে স্বাস্থ্য খাতের বরাদ্দ যাই থাক, প্রয়োজনে অর্থের যোগান দিতে কোনো সমস্যা হবে না বলে আশ্বস্ত করা হয়েছে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সংবাদ সম্মেলন থেকে।

শুক্রবার বাজেট পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়েছে, এক বছরে সরকার যত মানুষকে টিকা দিতে পারবে, সেই টাকার বরাদ্দ বাজেটে আছে। প্রয়োজনে অন্য খাত থেকেও টাকা নিয়ে স্বাস্থ্য খাতে দেওয়া যাবে, এ নিয়ে কোনো সমস্যা নেই।

অর্থমন্ত্রী বৃহস্পতিবার বিকালে জাতীয় সংসদে ২০২১-২২ অর্থবছরের জন্য ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব করেন। করোনার এই সংকটের মধ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জন্য মোট বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৩২ হাজার ৭৩১ কোটি টাকা, যা মোট বাজেটের ৫ দশমিক ৪ শতাংশ। পাশাপাশি মহামারিকালে জরুরি প্রয়োজন মেটাতে ১০ হাজার কোটি টাকা থোক বরাদ্দেরও প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী।

সংসদে অর্থমন্ত্রী তার বাজেট বক্তব্যে বলেন, দেশের সব নাগরিককে বিনামূল্যে টিকা দেওয়া হবে। এজন্য যা করা দরকার সব করবে সরকার।

রীতি অনুযায়ী বাজেট পরবর্তী সংবাদ সম্মেলন করে থাকেন অর্থমন্ত্রী। এবারও সেই সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। তবে গত বছরের মতো এবারও করোনার কারণে ভার্চুয়ালি আয়োজন করা হয়। শুক্রবার অর্থমন্ত্রীর বাজেট পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে একজন সাংবাদিক অর্থমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, বিশেষজ্ঞরা বলছেন- মহমারির বাস্তবতায় স্বাস্থ্যের এই বরাদ্দ প্রত্যাশা কিংবা প্রয়োজন, কোনোটার সঙ্গেই সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। স্বাস্থ্য খাতের সংস্কারের জন্যও কোনো দিক নির্দেশনা তারা বাজেটে পাননি। এ সময় অর্থমন্ত্রী তার মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিবকে এ বিষয়ে উত্তর দিতে অনুরোধ করেন।

অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব আবদুর রউফ তালুকদার বলেন, এক বছরে সরকার যত মানুষকে টিকা দিতে পারবে, সেই টাকার বরাদ্দ বাজেটে আছে। তিনি বলেন, স্বাস্থ্য খাতে গত বছরের মূল বাজেটে যে বরাদ্দ ছিল, এবার তা ১৩ শতাংশের মতো বেড়েছে। বরাদ্দ নিয়ে কোনো সমস্যা নাই। এক বছরে যে টিকা আমরা দিতে পারব, তার চেয়ে বেশি টাকা বরাদ্দ আছে। সব মিলিয়ে ১৪ হাজার ২০০ কোটি টাকা। প্রয়োজনে অন্য খাত থেকেও নেওয়া যাবে। এ ছাড়া স্বাস্থ্য খাতে কেনাকাটায় স্বচ্ছ্বতা আনার জন্য উদ্যোগ নেওয়ার কথাও জানান এই সিনিয়র সচিব।

এ সময় কৃষিমন্ত্রী কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাকও বলেন, প্রয়োজনে যে কোনো খাত থেকে টাকা নিয়ে এই খাতে (স্বাস্থ্য) দেওয়া যাবে। অর্থের কোনো সমস্যা নাই।

প্রধানমন্ত্রী ও সরকার এ বিষয়ে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছেন মন্তব্য করে কৃষিমন্ত্রী বলেন, দেশের অর্থনীতির এখন যা অবস্থা তাতে মহামারি মোকাবিলায় অর্থ কোনো সমস্যা নয়। সারা বিশ্ব যেভাবে মোকাবিলা করছে, বাংলাদেশও তা করবে।

স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ যাই থাক, টাকার ‘সমস্যা হবে না’

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৪ জুন ২০২১, ০৫:০১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

২০২১-২২ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত বাজেটে স্বাস্থ্য খাতের বরাদ্দ যাই থাক, প্রয়োজনে অর্থের যোগান দিতে কোনো সমস্যা হবে না বলে আশ্বস্ত করা হয়েছে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সংবাদ সম্মেলন থেকে।

শুক্রবার বাজেট পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়েছে, এক বছরে সরকার যত মানুষকে টিকা দিতে পারবে, সেই টাকার বরাদ্দ বাজেটে আছে। প্রয়োজনে অন্য খাত থেকেও টাকা নিয়ে স্বাস্থ্য খাতে দেওয়া যাবে, এ নিয়ে কোনো সমস্যা নেই।

অর্থমন্ত্রী বৃহস্পতিবার বিকালে জাতীয় সংসদে ২০২১-২২ অর্থবছরের জন্য ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব করেন। করোনার এই সংকটের মধ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জন্য মোট বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৩২ হাজার ৭৩১ কোটি টাকা, যা মোট বাজেটের ৫ দশমিক ৪ শতাংশ। পাশাপাশি মহামারিকালে জরুরি প্রয়োজন মেটাতে ১০ হাজার কোটি টাকা থোক বরাদ্দেরও প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী। 

সংসদে অর্থমন্ত্রী তার বাজেট বক্তব্যে বলেন, দেশের সব নাগরিককে বিনামূল্যে টিকা দেওয়া হবে। এজন্য যা করা দরকার সব করবে সরকার।

রীতি অনুযায়ী বাজেট পরবর্তী সংবাদ সম্মেলন করে থাকেন অর্থমন্ত্রী। এবারও সেই সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। তবে গত বছরের মতো এবারও করোনার কারণে ভার্চুয়ালি আয়োজন করা হয়। শুক্রবার অর্থমন্ত্রীর বাজেট পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে একজন সাংবাদিক অর্থমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, বিশেষজ্ঞরা বলছেন- মহমারির বাস্তবতায় স্বাস্থ্যের এই বরাদ্দ প্রত্যাশা কিংবা প্রয়োজন, কোনোটার সঙ্গেই সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। স্বাস্থ্য খাতের সংস্কারের জন্যও কোনো দিক নির্দেশনা তারা বাজেটে পাননি।  এ সময় অর্থমন্ত্রী তার মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিবকে এ বিষয়ে উত্তর দিতে অনুরোধ করেন।

অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব আবদুর রউফ তালুকদার বলেন, এক বছরে সরকার যত মানুষকে টিকা দিতে পারবে, সেই টাকার বরাদ্দ বাজেটে আছে। তিনি বলেন, স্বাস্থ্য খাতে গত বছরের মূল বাজেটে যে বরাদ্দ ছিল, এবার তা ১৩ শতাংশের মতো বেড়েছে। বরাদ্দ নিয়ে কোনো সমস্যা নাই। এক বছরে যে টিকা আমরা দিতে পারব, তার চেয়ে বেশি টাকা বরাদ্দ আছে। সব মিলিয়ে ১৪ হাজার ২০০ কোটি টাকা। প্রয়োজনে অন্য খাত থেকেও নেওয়া যাবে। এ ছাড়া স্বাস্থ্য খাতে কেনাকাটায় স্বচ্ছ্বতা আনার জন্য উদ্যোগ নেওয়ার কথাও জানান এই সিনিয়র সচিব।

এ সময় কৃষিমন্ত্রী কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাকও বলেন, প্রয়োজনে যে কোনো খাত থেকে টাকা নিয়ে এই খাতে (স্বাস্থ্য) দেওয়া যাবে। অর্থের কোনো সমস্যা নাই।  

প্রধানমন্ত্রী ও সরকার এ বিষয়ে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছেন মন্তব্য করে কৃষিমন্ত্রী বলেন, দেশের অর্থনীতির এখন যা অবস্থা তাতে মহামারি মোকাবিলায় অর্থ কোনো সমস্যা নয়। সারা বিশ্ব যেভাবে মোকাবিলা করছে, বাংলাদেশও তা করবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : বাজেট ২০২১-২২

আরও খবর