এনআইডির কাজ আগারগাঁও থেকেই, সচিবালয় থেকে মনিটরিং
jugantor
এনআইডির কাজ আগারগাঁও থেকেই, সচিবালয় থেকে মনিটরিং

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৪ জুন ২০২১, ১৬:৫৭:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

জাতীয় পরিচয়পত্রের (এনআইডি) নিবন্ধন কার্যক্রমের দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের (ইসি) কাছ থেকে নেওয়া হচ্ছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগে। এ বিষয়টি স্পষ্ট করে গত ২০ জুন নির্বাচন কমিশনের কাছে চিঠি পাঠিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। এ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা চলছে সরকার ও নির্বাচন কমিশনের (ইসি)মধ্যে।

এর মধ্যে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা গেল বুধবার বলেন, এনআইডি সেবা টেবিল-চেয়ার না যে উঠিয়ে নিয়ে গেলাম। এটা নিয়ে আলোচনায় বসতে হবে। এনআইডি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চলে গেলে ইসির কার্যক্রমে সমস্যা হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। তবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সেদিন বলেন, এনআইডি নিয়ে যেসব কথা হচ্ছে তা অবান্তর। আমরা জেনেবুঝেই এনআইডি সেবাকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে আনছি। এখানে সবার মতামত রয়েছে। বিশেষজ্ঞদের পরামর্শও নেওয়া হয়েছে।

এ অবস্থায় বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানিয়েছেন, জাতীয় পরিচয়পত্রের (এনআইডি) মূল কার্যক্রম বর্তমান অবস্থান আগারগাঁও কার্যালয় থেকেই হবে, সচিবালয় (স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়) থেকে করা হবে মনিটরিং (তদারকি)।

এনআইডি কার্যক্রম স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের হাতে এলে অধিদপ্তর করা হবে কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এনআইডির মূল কাজ ওই দিকেই থাকবে। এখান থেকে মনিটরিং হবে। এনআইডি নিয়ে অনেকে অনেক বিতর্ক করছে। এটা তো এমন এক জিনিস, ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলতেও এনআইডি লাগে, মোবাইলে (সিম কিনতে) এনআইডি লাগে, শনাক্ত করতে এনআইডি লাগে।

এনআইডির কার্যক্রম কবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে আসছে- এ প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এটা তো অন্য প্রসঙ্গ। এনআইডি হস্তান্তরে সরকারিভাবে মাত্র সিদ্ধান্ত হয়েছে। এটায় (হস্তান্তরে) লম্বা সময় লাগবে। আমাদের মন্ত্রণালয় একটা ব্যবস্থার মাধ্যমে কাজ শুরু করবে।

প্রসঙ্গত, নির্বাচন কমিশন থেকে এনআইডি কার্যক্রম সুরক্ষা বিভাগে নিতে ১৭ মে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে চিঠি দেওয়া হয়। ইসির হাতেই এ সেবা রাখতে ৭ জুন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগকে চিঠি দেয় ইসি। পরে ২০ জুন ইসিকে দেওয়া চিঠিতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সরকারের সিদ্ধান্ত আবারও জানিয়ে দেয়।

এনআইডির কাজ আগারগাঁও থেকেই, সচিবালয় থেকে মনিটরিং

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৪ জুন ২০২১, ০৪:৫৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

জাতীয় পরিচয়পত্রের (এনআইডি) নিবন্ধন কার্যক্রমের দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের (ইসি) কাছ থেকে নেওয়া হচ্ছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগে। এ বিষয়টি স্পষ্ট করে গত ২০ জুন নির্বাচন কমিশনের কাছে চিঠি পাঠিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। এ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা চলছে সরকার ও নির্বাচন কমিশনের (ইসি) মধ্যে।

এর মধ্যে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা গেল বুধবার বলেন, এনআইডি সেবা টেবিল-চেয়ার না যে উঠিয়ে নিয়ে গেলাম। এটা নিয়ে আলোচনায় বসতে হবে। এনআইডি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চলে গেলে ইসির কার্যক্রমে সমস্যা হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। তবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সেদিন বলেন, এনআইডি নিয়ে যেসব কথা হচ্ছে তা অবান্তর। আমরা জেনেবুঝেই এনআইডি সেবাকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে আনছি। এখানে সবার মতামত রয়েছে। বিশেষজ্ঞদের পরামর্শও নেওয়া হয়েছে।

এ অবস্থায় বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানিয়েছেন, জাতীয় পরিচয়পত্রের (এনআইডি) মূল কার্যক্রম বর্তমান অবস্থান আগারগাঁও কার্যালয় থেকেই হবে, সচিবালয় (স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়) থেকে করা হবে মনিটরিং (তদারকি)।

এনআইডি কার্যক্রম স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের হাতে এলে অধিদপ্তর করা হবে কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এনআইডির মূল কাজ ওই দিকেই থাকবে। এখান থেকে মনিটরিং হবে। এনআইডি নিয়ে অনেকে অনেক বিতর্ক করছে। এটা তো এমন এক জিনিস, ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলতেও এনআইডি লাগে, মোবাইলে (সিম কিনতে) এনআইডি লাগে, শনাক্ত করতে এনআইডি লাগে।

এনআইডির কার্যক্রম কবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে আসছে- এ প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এটা তো অন্য প্রসঙ্গ। এনআইডি হস্তান্তরে সরকারিভাবে মাত্র সিদ্ধান্ত হয়েছে। এটায় (হস্তান্তরে) লম্বা সময় লাগবে। আমাদের মন্ত্রণালয় একটা ব্যবস্থার মাধ্যমে কাজ শুরু করবে।

প্রসঙ্গত, নির্বাচন কমিশন থেকে এনআইডি কার্যক্রম সুরক্ষা বিভাগে নিতে ১৭ মে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে চিঠি দেওয়া হয়। ইসির হাতেই এ সেবা রাখতে ৭ জুন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগকে চিঠি দেয় ইসি। পরে ২০ জুন ইসিকে দেওয়া চিঠিতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সরকারের সিদ্ধান্ত আবারও জানিয়ে দেয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর