ভাসানচর থেকে কোনো নৌযান চলবে না সন্ধ্যার পর, যাতায়াতও বন্ধ: মন্ত্রী
jugantor
ভাসানচর থেকে কোনো নৌযান চলবে না সন্ধ্যার পর, যাতায়াতও বন্ধ: মন্ত্রী

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২১ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৫১:০২  |  অনলাইন সংস্করণ

রোহিঙ্গা বসবাসরত ভাসানচর থেকে সন্ধ্যার পর মূল ভূখণ্ডে কোনো নৌযান চলবে না।সেইসঙ্গে ভাসানচর থেকে নোয়াখালী কিংবা হাতিয়ার যাতায়াতও বন্ধ থাকবে।

ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের আবাসস্থল এলাকা ঘিরে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে সরকার। এর অংশ হিসেবে আইনশৃঙ্খলা ব্যবস্থা রক্ষায় বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে এক সভা শেষে এই সিদ্ধান্তের কথা জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সভাপতিত্বে বলপ্রয়োগে বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকদের (রোহিঙ্গা) সমন্বয়, ব‍্যবস্থাপনা ও আইনশৃঙ্খলা সম্পর্কিত জাতীয় কমিটির এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন- পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউস প্রমুখ।

সভা শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কক্সবাজার ও ভাসানচরে রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোর ভেতরে আইনশৃঙ্খলা ও সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে আলোচনা করা হয়েছে এবং নিরাপত্তা বাড়ানোরও ব্যবস্থা করা হবে। নিরাপত্তা বাড়াতে এপিবিএন, কোস্টগার্ডসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর জনবল ও আনুষঙ্গিক সহায়তা (লজিস্টিক সাপোর্ট) দেওয়া হবে।

ক্যাম্পের ভেতরে পুলিশ, এপিবিএন, আনসার ও র‌্যাবের যৌথ টহল আরও বৃদ্ধি করা হবে জানান তিনি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও উল্লেখ করেন, ক্যাম্পের বাইরে সেনাবাহিনী, বিজিবি, র‌্যাব রয়েছে। তারা সব সময় সতর্ক অবস্থায় থাকবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মাদক প্রবেশ ও বিক্রি রোধে তদারকি বাড়ানো হবে।মাদকের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক অভিযান চালানো হবে। মাদক চোরাচালান প্রতিরোধে সীমান্তে টহল আরও বাড়ানো হবে। নাফ নদীতে তদারকি জোরদার করা হবে। প্রয়োজনে উখিয়া ও টেকনাফে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য বাড়ানোর চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। ক্যাম্পগুলোতে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। বেশকিছু ওয়াচ টাওয়ার হয়েছে, আরও হবে বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য আন্তর্জাতিক ফোরামে প্রতিনিয়ত চেষ্টা চলছে। সেটা অব্যাহত থাকবে। দ্বিপক্ষীয় ও বহুপক্ষীয় ব্যবস্থা চলছে। দ্বিপক্ষীয় কথাবার্তা আরও জোরদার করা হবে।

এ ছাড়া রোহিঙ্গাদের জন্মনিয়ন্ত্রণ ও নতুনদের তালিকাভুক্তি নিয়েও আলোচনা হয়েছে বলে জানান আসাদুজ্জামান খান। তিনি আরও জানান, রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যার ঘটনায় জড়িত কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ভাসানচর থেকে কোনো নৌযান চলবে না সন্ধ্যার পর, যাতায়াতও বন্ধ: মন্ত্রী

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২১ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৫১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রোহিঙ্গা বসবাসরত ভাসানচর থেকে সন্ধ্যার পর মূল ভূখণ্ডে কোনো নৌযান চলবে না।সেইসঙ্গে ভাসানচর থেকে নোয়াখালী কিংবা হাতিয়ার যাতায়াতও বন্ধ থাকবে।

ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের আবাসস্থল এলাকা ঘিরে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে সরকার। এর অংশ হিসেবে আইনশৃঙ্খলা ব্যবস্থা রক্ষায় বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে এক সভা শেষে এই সিদ্ধান্তের কথা জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সভাপতিত্বে বলপ্রয়োগে বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকদের (রোহিঙ্গা) সমন্বয়, ব‍্যবস্থাপনা ও আইনশৃঙ্খলা সম্পর্কিত জাতীয় কমিটির এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন- পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউস প্রমুখ।

সভা শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কক্সবাজার ও ভাসানচরে রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোর ভেতরে আইনশৃঙ্খলা ও সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে আলোচনা করা হয়েছে এবং নিরাপত্তা বাড়ানোরও ব্যবস্থা করা হবে। নিরাপত্তা বাড়াতে এপিবিএন, কোস্টগার্ডসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর জনবল ও আনুষঙ্গিক সহায়তা (লজিস্টিক সাপোর্ট) দেওয়া হবে।

ক্যাম্পের ভেতরে পুলিশ, এপিবিএন, আনসার ও র‌্যাবের যৌথ টহল আরও বৃদ্ধি করা হবে জানান তিনি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও উল্লেখ করেন, ক্যাম্পের বাইরে সেনাবাহিনী, বিজিবি, র‌্যাব রয়েছে। তারা সব সময় সতর্ক অবস্থায় থাকবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মাদক প্রবেশ ও বিক্রি রোধে তদারকি বাড়ানো হবে।মাদকের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক অভিযান চালানো হবে। মাদক চোরাচালান প্রতিরোধে সীমান্তে টহল আরও বাড়ানো হবে। নাফ নদীতে তদারকি জোরদার করা হবে। প্রয়োজনে উখিয়া ও টেকনাফে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য বাড়ানোর চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। ক্যাম্পগুলোতে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। বেশকিছু ওয়াচ টাওয়ার হয়েছে, আরও হবে বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য আন্তর্জাতিক ফোরামে প্রতিনিয়ত চেষ্টা চলছে। সেটা অব্যাহত থাকবে। দ্বিপক্ষীয় ও বহুপক্ষীয় ব্যবস্থা চলছে। দ্বিপক্ষীয় কথাবার্তা আরও জোরদার করা হবে।

এ ছাড়া রোহিঙ্গাদের জন্মনিয়ন্ত্রণ ও নতুনদের তালিকাভুক্তি নিয়েও আলোচনা হয়েছে বলে জানান আসাদুজ্জামান খান। তিনি আরও জানান, রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যার ঘটনায় জড়িত কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : রোহিঙ্গা বর্বরতা