এভাবে বাড়তে থাকলে দেশ বেকায়দায় পড়ে যাবে: মন্ত্রী
jugantor
এভাবে বাড়তে থাকলে দেশ বেকায়দায় পড়ে যাবে: মন্ত্রী

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১২ জানুয়ারি ২০২২, ১৭:৫৩:৫৪  |  অনলাইন সংস্করণ

এভাবে বাড়তে থাকলে দেশ বেকায়দায় পড়ে যাবে: মন্ত্রী

‘দেশে করোনা সংক্রমণ প্রতিনিয়ত বাড়ছে এবং সেটি বাড়ছে দ্রুত গতিতে। গত কয়েকদিন আগেও সংক্রমণের হার ছিল দুই শতাংশের কাছাকাছি। গতকাল (১১ জানুয়ারি) সেটা প্রায় ৯ শতাংশে পৌঁছেছে। আর এই হারে বাড়তে থাকলে আমরা ধারণা করছি, আগামী কয়েকদিনে হাসপাতালে রোগী বাড়বে। এভাবে বাড়তে থাকলে দেশ বেকায়দায় পড়ে যাবে।’

বুধবার রাজধানীর মহাখালীর বাংলাদেশ কলেজ অব ফিজিশিয়ানস অ্যান্ড সার্জন (বিসিপিএস) ভবনে অ্যাম্বুলেন্স ও ল্যাপটপ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

তিনি বলেন, ‘হাসপাতালেও রোগী সংখ্যা বাড়ছে, রোগীদের হাসপাতালে আসা শুরু হয়ে গেছে। আর এভাবে হাসপাতালে তিন-চার গুণ রোগী হলে বেকায়দায় পড়তে হবে। হাসপাতাল ব্যবস্থা, চিকিৎসক-নার্সদের ওপর চাপ পড়বে, মৃত্যু হারও বাড়বে।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, যদিও টিকা নেওয়ার কারণে মৃত্যু হার কিছুটা কম। কিন্তু রোগী যদি লাখ লাখ হয় তাহলে তারা কোথায় থাকবে- এই বিষয়গুলো আমাদেরকে মনে রাখতে হবে।

টিকাদান কর্মসূচির বিষয়ে জাহিদ মালেক বলেন, দেশে টিকাদান কর্মসূচি ভালো চলছে। এ ছাড়া শিক্ষার্থীদেরও টিকাদান কর্মসূচি চলছে। তাদেরকে ডেকেও টিকা নিতে আনা যায়নি। কিন্তু যেই বলা হলো, টিকা না নিলে স্কুলে আসা যাবে না, সেই তারা আসা শুরু করল। আরও এক কোটি ১৮ লাখ শিক্ষার্থীকে এই মাসের ভেতর টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা আছে।

এভাবে বাড়তে থাকলে দেশ বেকায়দায় পড়ে যাবে: মন্ত্রী

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১২ জানুয়ারি ২০২২, ০৫:৫৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
এভাবে বাড়তে থাকলে দেশ বেকায়দায় পড়ে যাবে: মন্ত্রী
জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে গত ১০ জানুয়ারি অবস্থান কর্মসূচিতে স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা নেই শিক্ষকদের। ছবি: ‍যুগান্তর

‘দেশে করোনা সংক্রমণ প্রতিনিয়ত বাড়ছে এবং সেটি বাড়ছে দ্রুত গতিতে। গত কয়েকদিন আগেও সংক্রমণের হার ছিল দুই শতাংশের কাছাকাছি। গতকাল (১১ জানুয়ারি) সেটা প্রায় ৯ শতাংশে পৌঁছেছে। আর এই হারে বাড়তে থাকলে আমরা ধারণা করছি, আগামী কয়েকদিনে হাসপাতালে রোগী বাড়বে। এভাবে বাড়তে থাকলে দেশ বেকায়দায় পড়ে যাবে।’

বুধবার রাজধানীর মহাখালীর বাংলাদেশ কলেজ অব ফিজিশিয়ানস অ্যান্ড সার্জন (বিসিপিএস) ভবনে অ্যাম্বুলেন্স ও ল্যাপটপ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

তিনি বলেন, ‘হাসপাতালেও রোগী সংখ্যা বাড়ছে, রোগীদের হাসপাতালে আসা শুরু হয়ে গেছে। আর এভাবে হাসপাতালে তিন-চার গুণ রোগী হলে বেকায়দায় পড়তে হবে। হাসপাতাল ব্যবস্থা, চিকিৎসক-নার্সদের ওপর চাপ পড়বে, মৃত্যু হারও বাড়বে।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, যদিও টিকা নেওয়ার কারণে মৃত্যু হার কিছুটা কম। কিন্তু রোগী যদি লাখ লাখ হয় তাহলে তারা কোথায় থাকবে- এই বিষয়গুলো আমাদেরকে মনে রাখতে হবে।

টিকাদান কর্মসূচির বিষয়ে জাহিদ মালেক বলেন, দেশে টিকাদান কর্মসূচি ভালো চলছে। এ ছাড়া শিক্ষার্থীদেরও টিকাদান কর্মসূচি চলছে। তাদেরকে ডেকেও টিকা নিতে আনা যায়নি। কিন্তু যেই বলা হলো, টিকা না নিলে স্কুলে আসা যাবে না, সেই তারা আসা শুরু করল। আরও এক কোটি ১৮ লাখ শিক্ষার্থীকে এই মাসের ভেতর টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা আছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস