জেএমআই চেয়ারম্যান আবদুর রাজ্জাক রিমান্ডে
jugantor
জেএমআই চেয়ারম্যান আবদুর রাজ্জাক রিমান্ডে

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৭:১৫:৩০  |  অনলাইন সংস্করণ

এন-৯৫ মাস্ক জাতিয়াতির ঘটনায় দুদকের করা মামলায় গ্রেফতার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জেএমআই হাসপাতাল রিক্যুইজিট ম্যানুফ্যাকচারিং লিমেটেডের কর্ণধার মো. আবদুর রাজ্জাককে ৫ দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার বিকালে ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ কেএম ইমরুল কায়েশ এই রিমান্ড আদেন দেন।

এর আগে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে রাজধানীর সেগুনবাগিচা এলাকা থেকে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) আবদুর রাজ্জাককে গ্রেফতার করে বলে যুগান্তরকে নিশ্চিত করেন সংস্থাটির পরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য।

এদিকে মঙ্গলবারই আবদুর রাজ্জাকের বিরুদ্ধে দুদকের উপ-পরিচালক মো. নুরুল হুদা মামলাটি দায়ের করেন। মামলার অপর আসামিরা হলেন- কেন্দ্রীয় ঔষধাগারের (সিএমএসডি) সাবেক উপ-পরিচালক ডা. জাকির হোসেন, সহকারী পরিচালক (প্রশাসন) ডা. মো. শাহজাহান, ডেস্ক অফিসার জিয়াউল হক ও সাব্বির আহমেদ, স্টোর অফিসার কবির আহমেদ ও জ্যেষ্ঠ স্টোর কিপার মো. ইউসুফ ফকির।

কোভিড–১৯ এর চিকিৎসার সরঞ্জাম কেনায় দুর্নীতির অভিযোগের তদন্তে জুলাই মাসে আবদুর রাজ্জাককে তলব করে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক। তিনিসহ আরও কয়েকজনকে তলব করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

ওই নোটিশে দুদক জানিয়েছিল, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং স্বাস্থ্য অধিদফতরের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম, দুর্নীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ রয়েছে। অনিয়ম-দুর্নীতির মাধ্যমে কোভিড-১৯-এর চিকিৎসার জন্য নিম্নমানের মাস্ক, পিপিই ও অন্যান্য স্বাস্থ্য সরঞ্জামাদি ক্রয় ও বিভিন্ন হাসপাতালে সরবরাহের অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে।

নোটিশে আরও বলা হয়েছিল, একে অন্যের যোগসাজশে তারা কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করে অবৈধ সম্পদ গড়ে তোলেন।

জেএমআই চেয়ারম্যান আবদুর রাজ্জাক রিমান্ডে

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫:১৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

এন-৯৫ মাস্ক জাতিয়াতির ঘটনায় দুদকের করা মামলায় গ্রেফতার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জেএমআই হাসপাতাল রিক্যুইজিট ম্যানুফ্যাকচারিং লিমেটেডের কর্ণধার মো. আবদুর রাজ্জাককে ৫ দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার বিকালে ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ কেএম ইমরুল কায়েশ এই রিমান্ড আদেন দেন। 

এর আগে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে রাজধানীর সেগুনবাগিচা এলাকা থেকে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) আবদুর রাজ্জাককে গ্রেফতার করে বলে যুগান্তরকে নিশ্চিত করেন সংস্থাটির পরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য।

এদিকে মঙ্গলবারই আবদুর রাজ্জাকের বিরুদ্ধে দুদকের উপ-পরিচালক মো. নুরুল হুদা মামলাটি দায়ের করেন।  মামলার অপর আসামিরা হলেন- কেন্দ্রীয় ঔষধাগারের (সিএমএসডি) সাবেক উপ-পরিচালক ডা. জাকির হোসেন, সহকারী পরিচালক (প্রশাসন) ডা. মো. শাহজাহান, ডেস্ক অফিসার জিয়াউল হক ও সাব্বির আহমেদ, স্টোর অফিসার কবির আহমেদ ও জ্যেষ্ঠ স্টোর কিপার মো. ইউসুফ ফকির।

কোভিড–১৯ এর চিকিৎসার সরঞ্জাম কেনায় দুর্নীতির অভিযোগের তদন্তে জুলাই মাসে আবদুর রাজ্জাককে তলব করে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক। তিনিসহ আরও কয়েকজনকে তলব করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

ওই নোটিশে দুদক জানিয়েছিল, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং স্বাস্থ্য অধিদফতরের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম, দুর্নীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ রয়েছে। অনিয়ম-দুর্নীতির মাধ্যমে কোভিড-১৯-এর চিকিৎসার জন্য নিম্নমানের মাস্ক, পিপিই ও অন্যান্য স্বাস্থ্য সরঞ্জামাদি ক্রয় ও বিভিন্ন হাসপাতালে সরবরাহের অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে।

নোটিশে আরও বলা হয়েছিল, একে অন্যের যোগসাজশে তারা কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করে অবৈধ সম্পদ গড়ে তোলেন। 

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস