ফেসবুকে মানহানিকর মিথ্যা পোস্ট সামাজিক অবক্ষয়: হাইকোর্ট
jugantor
ফেসবুকে মানহানিকর মিথ্যা পোস্ট সামাজিক অবক্ষয়: হাইকোর্ট
বরগুনার সেই দম্পতির জামিন

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৮ জুলাই ২০২১, ২২:৫৩:৩৩  |  অনলাইন সংস্করণ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে বরগুনায় করা মামলায় আক্তারুজ্জামান ও তামান্না বেগম নামের এক দম্পতিকে অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

জামিন চেয়ে করা আবেদনের শুনানি নিয়ে বৃহস্পতিবার বিচারপতি জেবিএম হাসানের একক ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ তাদের জামিন দেন। শুনানিতে আদালত বলেন, ফেসবুকে মানহানিকর বিভিন্ন মিথ্যা পোস্ট সামাজিক অবক্ষয়ের উদাহরণ।

ভুয়া ফেসবুক আইডি নিয়ে মানহানি ও আপত্তিকর পোস্টের মাধ্যমে সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন করার অভিযোগে ৪ জুন ওই দম্পতির বিরুদ্ধে বরগুনা সদর থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলাটি করেন ললিতাবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ডলি আক্তার।

এজাহার বলা হয়, ডলি আক্তারের স্বামী মো. মনিরুল ইসলাম গ্রামীণ ব্যাংকের বরগুনার বুড়িরচর শাখার কর্মকর্তা হিসাবে কর্মরত। আক্তারুজ্জামান গ্রামীণ ব্যাংকের বরগুনার আমলতী হলদিয়া শাখায় কর্মরত। আক্তারুজ্জামান ও মনিরুলের মধ্যে গ্রামীণ ব্যাংক সমিতি ও অন্যান্য বিষয় নিয়ে দ্বন্দ্বে সৃষ্টি হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে আখতারুজ্জামান দম্পতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘মেহজাবিন মেহজাবিন’ নামে ফেক আইডি দিয়ে বাদী ও তার স্বামীর বিরুদ্ধে মিথ্যা ও মানহানিকর পোস্ট দেন।

আইনজীবীর তথ্যমতে, ওই মামলায় ৪ জুন মো. আক্তারুজ্জামান ও তার স্ত্রী তামান্নাকে গ্রেফতার করা হয়। জামিন চেয়ে ১৩ জুন বরগুনার ম্যাজিস্ট্রেট আদালত এবং ২০ জুন দায়রা আদালতে বিফল হন তারা।

ফেসবুকে মানহানিকর মিথ্যা পোস্ট সামাজিক অবক্ষয়: হাইকোর্ট

বরগুনার সেই দম্পতির জামিন
 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৮ জুলাই ২০২১, ১০:৫৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে বরগুনায় করা মামলায় আক্তারুজ্জামান ও তামান্না বেগম নামের এক দম্পতিকে অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। 

জামিন চেয়ে করা আবেদনের শুনানি নিয়ে বৃহস্পতিবার বিচারপতি জেবিএম হাসানের একক ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ তাদের জামিন দেন। শুনানিতে আদালত বলেন, ফেসবুকে মানহানিকর বিভিন্ন মিথ্যা পোস্ট সামাজিক অবক্ষয়ের উদাহরণ। 

ভুয়া ফেসবুক আইডি নিয়ে মানহানি ও আপত্তিকর পোস্টের মাধ্যমে সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন করার অভিযোগে ৪ জুন ওই দম্পতির বিরুদ্ধে বরগুনা সদর থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলাটি করেন ললিতাবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ডলি আক্তার।

এজাহার বলা হয়, ডলি আক্তারের স্বামী মো. মনিরুল ইসলাম গ্রামীণ ব্যাংকের বরগুনার বুড়িরচর শাখার কর্মকর্তা হিসাবে কর্মরত। আক্তারুজ্জামান গ্রামীণ ব্যাংকের বরগুনার আমলতী হলদিয়া শাখায় কর্মরত। আক্তারুজ্জামান ও মনিরুলের মধ্যে গ্রামীণ ব্যাংক সমিতি ও অন্যান্য বিষয় নিয়ে দ্বন্দ্বে সৃষ্টি হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে আখতারুজ্জামান দম্পতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘মেহজাবিন মেহজাবিন’ নামে ফেক আইডি দিয়ে বাদী ও তার স্বামীর বিরুদ্ধে মিথ্যা ও মানহানিকর পোস্ট দেন।

আইনজীবীর তথ্যমতে, ওই মামলায় ৪ জুন মো. আক্তারুজ্জামান ও তার স্ত্রী তামান্নাকে গ্রেফতার করা হয়। জামিন চেয়ে ১৩ জুন বরগুনার ম্যাজিস্ট্রেট আদালত এবং ২০ জুন দায়রা আদালতে বিফল হন তারা। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন