পরীমনির রিমান্ড শুনানিতে যা বললেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী
jugantor
পরীমনির রিমান্ড শুনানিতে যা বললেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৫ আগস্ট ২০২১, ২২:৩০:৩৬  |  অনলাইন সংস্করণ

মাদক নিয়ন্ত্রণ আইনে গ্রেফতার ঢাকাই সিনেমার রহস্যময়ী নায়িকা পরীমনিকে আদালতের মাধ্যমে ৪ দিনের রিমান্ডে পেয়েছে পুলিশ। তাকে সাত দিনের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেছিল পুলিশ।

বৃহস্পতিবার রাত ৮টা ২৮ মিনিটে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে তাকে হাজির করা হয়। এরপর বনানী থানার মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দায়ের করা মামলায় পরীমনিকে সাত দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বনানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শেখ সোহেল রানা।

রিমান্ড শুনানিতে অংশ নিয়ে পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) আবদুল্লাহ আবু বলেন, মামলার আসামি পরীমনির বাসায় অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ মাদক উদ্ধার করা হয়। যার বাজারমূল্য ২ লাখ ১১ হাজার ৫০০ টাকা। এই মাদক কোথা থেকে আসল? তার উৎস কী? কে এই মাদক পাঠাল? মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে তাকে রিমান্ডে নেওয়া প্রয়োজন।

শুনানিতে তিনি আরও বলেন, সরকার যেখানে মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছে, সেখানে পরীমনির বাসায় সর্বনাশা মাদক পাওয়া গেছে। দেশে যারা ভদ্র মুখোশধারী রয়েছেন তাদের খুঁজে বের করতে এই আসামিকে (পরীমনি) তদন্তকারী কর্মকর্তার আবেদনের ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা প্রয়োজন।

শুনানিতে রিমান্ডের বিরোধিতা করেন নিলাঞ্জনা রেফাত সুরভীসহ কয়েকজন আইনজীবী। আদালত তা নাকচ করে পরীমনির ৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

পরীমনির রিমান্ড শুনানিতে যা বললেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৫ আগস্ট ২০২১, ১০:৩০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মাদক নিয়ন্ত্রণ আইনে গ্রেফতার ঢাকাই সিনেমার রহস্যময়ী নায়িকা পরীমনিকে আদালতের মাধ্যমে ৪ দিনের রিমান্ডে পেয়েছে পুলিশ। তাকে সাত দিনের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেছিল পুলিশ।

বৃহস্পতিবার রাত ৮টা ২৮ মিনিটে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে তাকে হাজির করা হয়। এরপর বনানী থানার মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দায়ের করা মামলায় পরীমনিকে সাত দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বনানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শেখ সোহেল রানা।

রিমান্ড শুনানিতে অংশ নিয়ে পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) আবদুল্লাহ আবু বলেন, মামলার আসামি পরীমনির বাসায় অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ মাদক উদ্ধার করা হয়। যার বাজারমূল্য ২ লাখ ১১  হাজার ৫০০ টাকা। এই মাদক কোথা থেকে আসল? তার উৎস কী? কে এই মাদক পাঠাল? মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে তাকে রিমান্ডে নেওয়া প্রয়োজন।

শুনানিতে তিনি আরও বলেন, সরকার যেখানে মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছে, সেখানে পরীমনির বাসায় সর্বনাশা মাদক পাওয়া গেছে। দেশে যারা ভদ্র মুখোশধারী রয়েছেন তাদের খুঁজে বের করতে এই আসামিকে (পরীমনি) তদন্তকারী কর্মকর্তার আবেদনের ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা প্রয়োজন। 

শুনানিতে রিমান্ডের বিরোধিতা করেন নিলাঞ্জনা রেফাত সুরভীসহ কয়েকজন আইনজীবী। আদালত তা নাকচ করে পরীমনির ৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : পরীমনি কাণ্ড

১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১
আরও খবর