ঢাকায় চলন্ত বাসে ছাত্রীকে নিপীড়ন, চালক রিমান্ড শেষে কারাগারে
jugantor
ঢাকায় চলন্ত বাসে ছাত্রীকে নিপীড়ন, চালক রিমান্ড শেষে কারাগারে

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

৩০ জুলাই ২০২২, ২১:০২:০০  |  অনলাইন সংস্করণ

ঢাকায় চলন্ত বাসে ছাত্রীকে নিপীড়ন, চালক রিমান্ড শেষে কারাগারে

ঢাকায় বিকাশ পরিবহণের চলন্ত বাসে এক ছাত্রীকে নিপীড়নের মামলায় চালক মো. মাহবুবুর রহমানকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এক দিনের রিমান্ড শেষে শনিবার ঢাকা মহানগর হাকিম মোহাম্মদ নুরুল হুদা চৌধুরী তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আজাদ রহমান জানান, এদিন তাকে আদালতে হাজির করে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আজিমপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ হাসিবুজ্জামান আছিব। গত বুধবার মাহবুবুরকে এক দিনের রিমান্ডের আদেশ দিয়েছিলেন আদালত।

এদিকে গতকাল (শুক্রবার) একই মামলায় বাসচালকের সহকারী কাওসার আহম্মেদের দুই দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছেন ঢাকার আরেক মহানগর হাকিম।

ঢাকা মহানগর পুলিশের লালবাগ বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার মো. কুদরত-ই-খুদা বলেন, এইচএসসি পাশ করে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির চেষ্টায় থাকা ওই শিক্ষার্থীর বাসা ঢাকার আজিমপুর এলাকায়। ২৪ জুলাই রাতে ধানমণ্ডি থেকে বাসায় যাওয়ার পথে বাসের ভেতর নিপীড়নের শিকার হওয়ার পর তিনি ফেইসবুকে ঘটনাটি প্রকাশ করেন।

কুদরত-ই-খুদা বলেন, বিষয়টি নজরে এলে পুলিশ ওই তরুণীর সঙ্গে যোগাযোগ করে। পরে লালবাগ থানায় মেয়েটির বাবা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন। মামলা হওয়ার পর তদন্তে নেমে পুলিশ ক্লোজড সার্কিট (সিসি ক্যামেরা) ক্যামেরার ভিডিও দেখে বিকাশ পরিবহণের বাসটি শনাক্ত করে এবং চালক ও তার সহকারীকে গ্রেফতার করে।

কুদরত-ই-খুদা বলেন, ওই ছাত্রী সেদিন রাত পৌনে ৯টার দিকে ধানমণ্ডি থেকে আজিমপুরে যাওয়ার জন্য বিকাশ পরিবহনের বাসে ওঠেন। বাসে উঠে কানে হেডফোন লাগিয়ে গান শুনতে শুনতে তন্দ্রাচ্ছন্ন হয়ে পড়েন। একপর্যায়ে তিনি অনুভব করেন, তার শরীরে কেউ হাত দিয়েছে। এরপর তাকিয়ে দেখেন, বাসে কোনো যাত্রী নেই এবং তার পাশের সিটে বাস চালকের সহকারী।

ঢাকায় চলন্ত বাসে ছাত্রীকে নিপীড়ন, চালক রিমান্ড শেষে কারাগারে

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
৩০ জুলাই ২০২২, ০৯:০২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ঢাকায় চলন্ত বাসে ছাত্রীকে নিপীড়ন, চালক রিমান্ড শেষে কারাগারে
বাসচালক মো. মাহবুবুর রহমান। ছবি: সংগৃহীত

ঢাকায় বিকাশ পরিবহণের চলন্ত বাসে এক ছাত্রীকে নিপীড়নের মামলায় চালক মো. মাহবুবুর রহমানকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এক দিনের রিমান্ড শেষে শনিবার ঢাকা মহানগর হাকিম মোহাম্মদ নুরুল হুদা চৌধুরী তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আজাদ রহমান জানান, এদিন তাকে আদালতে হাজির করে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আজিমপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ হাসিবুজ্জামান আছিব। গত বুধবার মাহবুবুরকে এক দিনের রিমান্ডের আদেশ দিয়েছিলেন আদালত।

এদিকে গতকাল (শুক্রবার) একই মামলায় বাসচালকের সহকারী কাওসার আহম্মেদের দুই দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছেন ঢাকার আরেক মহানগর হাকিম।

ঢাকা মহানগর পুলিশের লালবাগ বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার মো. কুদরত-ই-খুদা বলেন, এইচএসসি পাশ করে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির চেষ্টায় থাকা ওই শিক্ষার্থীর বাসা ঢাকার আজিমপুর এলাকায়। ২৪ জুলাই রাতে ধানমণ্ডি থেকে বাসায় যাওয়ার পথে বাসের ভেতর নিপীড়নের শিকার হওয়ার পর তিনি ফেইসবুকে ঘটনাটি প্রকাশ করেন।

কুদরত-ই-খুদা বলেন, বিষয়টি নজরে এলে পুলিশ ওই তরুণীর সঙ্গে যোগাযোগ করে। পরে লালবাগ থানায় মেয়েটির বাবা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন। মামলা হওয়ার পর তদন্তে নেমে পুলিশ ক্লোজড সার্কিট (সিসি ক্যামেরা) ক্যামেরার ভিডিও দেখে বিকাশ পরিবহণের বাসটি শনাক্ত করে এবং চালক ও তার সহকারীকে গ্রেফতার করে।

কুদরত-ই-খুদা বলেন, ওই ছাত্রী সেদিন রাত পৌনে ৯টার দিকে ধানমণ্ডি থেকে আজিমপুরে যাওয়ার জন্য বিকাশ পরিবহনের বাসে ওঠেন। বাসে উঠে কানে হেডফোন লাগিয়ে গান শুনতে শুনতে তন্দ্রাচ্ছন্ন হয়ে পড়েন। একপর্যায়ে তিনি অনুভব করেন, তার শরীরে কেউ হাত দিয়েছে। এরপর তাকিয়ে দেখেন, বাসে কোনো যাত্রী নেই এবং তার পাশের সিটে বাস চালকের সহকারী।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর