করোনায় ব্যবসায়ী রঞ্জিতের অভিনব সহায়তা, সাভারে আলোড়ন

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৭ মে ২০২০, ২১:১৩:৫০ | অনলাইন সংস্করণ

এক নারীর হাতে ত্রাণ তুলে দিচ্ছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান ও ব্যবসায়ী রঞ্জিত ঘোষ। ছবি: যুগান্তর

মহামারী এই করোনায় কাছের মানুষ চেনা হল। চেনা হল মানবিক মানুষও। সাভারে তরুণ ব্যবসায়ী রঞ্জিত ঘোষ নিজের চেষ্টায় অন্তত দুই কোটি টাকার আর্থিক ও ত্রাণ সহায়তা দিয়েছেন গরিবদের মাঝে।

মানুষ ওএমএসের চাল কিনতে লাইনে দাঁড়াচ্ছেন কিন্তু টাকা লাগছে না। বিনামূল্যে চাল নিয়ে বাড়ি ফিরছেন। ইফতারের পূর্ব মুহূর্তে কর্মহীন অসহায় রোজাদার হাজার মানুষের কাছে পৌঁছে যাচ্ছে উন্নত মানের খাবার। এছাড়াও চাল, ডাল লবণ, চিনি, আলু, পেঁয়াজসহ ১৪ আইটেমের নিত্যপণ্যের ১৪ কেজি ওজনের খাবার সামগ্রী পৌঁছে যাচ্ছে বাড়ি বাড়ি। প্রচারের আড়ালে থেকে মানবতার জন্য নীরবে এভাবে কাজ করে যাওয়া ব্যবসায়ী রঞ্জিত ঘোষ এখন হয়ে উঠেছেন সাভারে ব্যবসায়ীদের আইকন। মানবতার অনন্য প্রতীক।

ষাটোর্ধ্ব বৃদ্ধা জুলেখা বেগম বেশ কষ্টে ১’শ টাকা জমিয়ে ১০ টাকা কেজি দরে খোলা বাজারের চাল কিনতে ট্রাকের সামনে দাঁড়িয়েছিলেন। কিন্তু চাল নিয়ে টাকা দিতে গিয়ে চমকে উঠেন তিনি। না টাকা দিতে হবে না তাকে। তিনি একা নন। চালের জন্য লাইনে যারা দাঁড়িয়েছেন সবার চালের টাকাই ওই ব্যবসায়ী আগাম পরিশোধ করে দিয়েছেন। জুলেখার মতো অসংখ্য অসহায় মানুষের কাছে এখন নয়ন মনি সেই ব্যবসায়ী।

পৌর এলাকার ঘোষপাড়ার বীরেন কুমার ঘোষের ছেলে রঞ্জিত ঘোষ মানবতার টানে নিজেকে উজাড় করে দিয়ে রীতিমতো শোরগোল ফেলে দিয়েছেন সাভারে।

কেবল ওএমএসের চালই নয়, ইতিমধ্যে ২৬ হাজার মানুষের হাতে তুলে দিয়েছেন চাল, মসুর ডাল, ছোলা, আলু, পেঁয়াজ, লবণ, চিনি, তেল, কাপড় ধোয়ার পাউডার, সাবানসহ ১৪ আইটেমের বিশেষ উপহার।

এছাড়াও প্রতিদিন ১ হাজার শ্রমজীবী দরিদ্র ও নিম্নবিত্ত রোজাদারদের জন্য ইফতারে পরিবেশন করছেন উন্নত মানের তৈরি খাবার।

আরকে এন্টারপ্রাইজ, আরকে জুয়েলার্স, আরকে ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস, আরকে ইমিগ্রেশনের স্বত্বাধিকারী ব্যবসায়ী রঞ্জিত ঘোষের ব্যবস্থাপক সাইদুর রহমান বলেন, মহামারী করোনার সূচনা থেকেই মানবতার জন্য আমরা কাজ করছি। পহেলা বৈশাখ, বাংলা নববর্ষের দিনেও বাড়ি বাড়ি গিয়ে আমরা খাবার পৌঁছে দিয়েছি। প্রতিদিন ৫০ জনের বিশেষ একটি দল সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ত্রাণ সামগ্রী প্রস্তুত করে এবং আরেকটি দল তা বিতরণ করে।

এ বিষয়ে কথা হয় ব্যবসায়ী রঞ্জিত ঘোষের সঙ্গে। তিনি যুগান্তরকে বলেন, দেখুন আমি কোনো কিছুর লক্ষ্য নিয়ে এই কাজগুলো করছি না। আমি যা করছি তা সামান্য কিছু মানুষের উপকারে আসছে এবং তা মহান সৃষ্টিকর্তা দেখছেন। সেটাই যথেষ্ট।

রঞ্জিত ঘোষ বলেন, সৃষ্টিকর্তার কাছে আমি কৃতজ্ঞ- তিনি আমাকে এ কাজগুলো করার সুযোগ দিয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে ক’জনই- বা মানবতার পক্ষে এ ধরনের কাজ করার সুযোগ পায় বলুন। আমার কাছে মানবতাই সবার আগে। আমার জায়গা থেকে আমি নিজেকে উজাড় করে দিয়েছি। এর মাধ্যমে যে পার্থিব আনন্দ এবং সুখ আমি পেয়েছি তা আমার সম্পদের তুলনায় একেবারেই তুচ্ছ।

তিনি বলেন, আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি- পবিত্র রমজান মাস জুড়েই শ্রমজীবী দরিদ্র ও নিম্নবিত্ত রোজাদারদের ইফতারে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন অব্যাহত রাখব। পাশাপাশি অব্যাহত থাকবে আমার অন্যান্য সব ধরনের মানবিক সহযোগিতা।

এ বিষয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, ব্যবসায়ী রঞ্জিত ঘোষ সত্যিকারের মানবতার দিশারী। তিনি ব্যবসায়ীদের চোখ খুলে দিয়েছেন। সবাই যখন মুনাফার কথা ভাবেন তখন তিনি ব্যতিক্রম। নিজেকে উজাড় করে দিয়েছেন মানবতার কল্যাণে।

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

আরও
 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত