আনুশকাহ ধর্ষণ-হত্যা: ‘অদৃশ্য প্রভাবে ভিত্তিহীন বয়স দেখানোর চেষ্টা’
jugantor
আনুশকাহ ধর্ষণ-হত্যা: ‘অদৃশ্য প্রভাবে ভিত্তিহীন বয়স দেখানোর চেষ্টা’

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১০ জানুয়ারি ২০২১, ২১:২৬:০৮  |  অনলাইন সংস্করণ

আনুশকাহ ধর্ষণ-হত্যা: ‘অদৃশ্য প্রভাবে ভিত্তিহীন বয়স দেখানোর চেষ্টা’

কলাবাগানে বন্ধুর বাসায় মাস্টারমাইন্ড-এর ‘ও’ লেভেলের শিক্ষার্থী আনুশকাহ নূর আমিনের মৃত্যুর ঘটনায় জড়িত ইফতেখার ফারদিন দিহানের (১৮) সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানিয়েছে যৌন নিপীড়নবিরোধী শিক্ষার্থী জোট। এই মামলাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য এবং ধর্ষকের মামলা জুভেনাইল কোর্টে লঘুদণ্ড করার উদ্দেশ্যে ভিত্তিহীন বয়সের তথ্য উপস্থাপনের চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ তাদের।

রোববার জোটের আহ্বায়ক শিবলী হাসান সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এমন অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, অপরাধী স্বীকার করেছে যে, সে ১৭ বছর বয়সী সেই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করেছে। কিন্তু আমরা লক্ষ করছি এক অদৃশ্য প্রভাবে ১৭ বছর বয়সী একজন কিশোরীকে ১৯ বছর বলে প্রমাণ করার চেষ্টা করা হচ্ছে। আবার অন্য দিকে ধর্ষকের বয়সও কমানোর চেষ্টা চলছে।

শিবলী হাসান বলেন, মাস্টারমাইন্ড স্কুলের শিক্ষার্থী ধর্ষণের প্রতিবাদ ও ধর্ষক দিহানের সর্বোচ্চ শাস্তি দিতে হবে। দাবি আদায়ে সোমবার বিকেল ৪টায় কলাবাগান মাঠের সামনে এক নাগরিক অবস্থান কর্মসূচি পালন করবে যৌন নিপীড়নবিরোধী শিক্ষার্থী জোট। ষড়যন্ত্র রুখে দিতে ও ধর্ষক দিহানের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতে সব শ্রেণি-পেশার মানুষ এতে অংশ নেবে।

গত ৭ জানুয়ারি দুপুরে দিহান ওই ছাত্রীকে মৃত অবস্থায় আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। তখন কিশোরীর প্রচুর রক্তক্ষরণ হচ্ছিল। খবর পেয়ে তরুণটির তিন বন্ধু হাসপাতালে গেলে পুলিশ তাদের হেফাজতে নেয়। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে স্কুলছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে কলাবাগান থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। মামলার একমাত্র আসামি করা হয় দিহানকে। যেখানে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ আনা হয়।

আনুশকাহ ধর্ষণ-হত্যা: ‘অদৃশ্য প্রভাবে ভিত্তিহীন বয়স দেখানোর চেষ্টা’

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১০ জানুয়ারি ২০২১, ০৯:২৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আনুশকাহ ধর্ষণ-হত্যা: ‘অদৃশ্য প্রভাবে ভিত্তিহীন বয়স দেখানোর চেষ্টা’
স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা মামলায় গ্রেফতার একমাত্র আসামি ছাত্রীর বন্ধু ইফতেখার ফারদিন দিহান পুলিশ বেষ্টনীতে আদালতে। ফাইল ছবি

কলাবাগানে বন্ধুর বাসায় মাস্টারমাইন্ড-এর ‘ও’ লেভেলের শিক্ষার্থী আনুশকাহ নূর আমিনের মৃত্যুর ঘটনায় জড়িত ইফতেখার ফারদিন দিহানের (১৮) সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানিয়েছে যৌন নিপীড়নবিরোধী শিক্ষার্থী জোট। এই মামলাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য এবং ধর্ষকের মামলা জুভেনাইল কোর্টে লঘুদণ্ড করার উদ্দেশ্যে ভিত্তিহীন বয়সের তথ্য উপস্থাপনের চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ তাদের।

রোববার জোটের আহ্বায়ক শিবলী হাসান সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এমন অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, অপরাধী স্বীকার করেছে যে, সে ১৭ বছর বয়সী সেই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করেছে। কিন্তু আমরা লক্ষ করছি এক অদৃশ্য প্রভাবে ১৭ বছর বয়সী একজন কিশোরীকে ১৯ বছর বলে প্রমাণ করার চেষ্টা করা হচ্ছে। আবার অন্য দিকে ধর্ষকের বয়সও কমানোর চেষ্টা চলছে। 

শিবলী হাসান বলেন, মাস্টারমাইন্ড স্কুলের শিক্ষার্থী ধর্ষণের প্রতিবাদ ও ধর্ষক দিহানের সর্বোচ্চ শাস্তি দিতে হবে। দাবি আদায়ে সোমবার বিকেল ৪টায় কলাবাগান মাঠের সামনে এক নাগরিক অবস্থান কর্মসূচি পালন করবে যৌন নিপীড়নবিরোধী শিক্ষার্থী জোট। ষড়যন্ত্র রুখে দিতে ও ধর্ষক দিহানের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতে সব শ্রেণি-পেশার মানুষ এতে অংশ নেবে।

গত ৭ জানুয়ারি দুপুরে দিহান ওই ছাত্রীকে মৃত অবস্থায় আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। তখন কিশোরীর প্রচুর রক্তক্ষরণ হচ্ছিল। খবর পেয়ে তরুণটির তিন বন্ধু হাসপাতালে গেলে পুলিশ তাদের হেফাজতে নেয়। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে স্কুলছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে কলাবাগান থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। মামলার একমাত্র আসামি করা হয় দিহানকে। যেখানে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ আনা হয়।

 

ঘটনাপ্রবাহ : আনুশকাহর মৃত্যু