র‌্যাবের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা উঠতে ‘সময় লাগবে’: মোমেন
jugantor
র‌্যাবের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা উঠতে ‘সময় লাগবে’: মোমেন

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৬ জানুয়ারি ২০২২, ১৬:৫০:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

এলিট ফোর্স র‌্যাব এবং এর সাবেক ও বর্তমান কর্মকর্তাদের ওপর যুক্তরাষ্ট্র যে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে, তা উঠতে ‘সময় লাগবে’ বলে জাতীয় সংসদে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন। তিনি বলেছেন, এই স্যাংশন উঠানোর বিষয়ে সরকার কাজ করছে। একটু সময় লাগবে।

বুধবার জাতীয় সংসদে ৩০০ বিধিতে দেওয়া বিবৃতিতে ড. মোমেন এসব কথা বলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘অত্যন্ত দুঃখজনভাবে আমেরিকার সরকার র‌্যাবের এবং এর কতিপয় সাবেক ও বর্তমান কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সম্প্রতি নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। কোনো ধরনের পূর্ব আলোচনা ছাড়াই এই নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। আমাদের সঙ্গে কোনো আলোচনা তারা করেনি। প্রসেস কালকেই হবে না। সময় লাগবে। আমাদের ধৈর্য ধরতে হবে। আমরা আমেরিকার সঙ্গে একাধিক মিটিংয়ের আয়োজন করেছি। ইনশাআল্লাহ, আমরা যখনই তথ্যগুলো সঠিকভাবে তাদের কাছে পৌঁছতে পারব। আমার বিশ্বাস, র‌্যাবের মতো একটি অত্যন্ত ভালো প্রতিষ্ঠানের ওপর থেকে নিশ্চয় স্যাংশন তুলে নেবেন।’

যুক্তরাষ্ট্রে বিএনপি-জামায়াত ও সরকারের লবিষ্ট নিয়োগের প্রসঙ্গ খোলাসা করতে ড. মোমেন জাতীয় সংসদে এই বিবৃতি দেন।

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে গত ১০ ডিসেম্বর যুক্তরাষ্ট্র ‘গুরুতর’ মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে বাংলাদেশের র‌্যাবের সাবেক ও বর্তমান ৭ কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। যুক্তরাষ্ট্রের এ নিষেধাজ্ঞার প্রতিক্রিয়ায় ঢাকায় নিযুক্ত দেশটির রাষ্ট্রদূত আর্ল মিলারকে তলব করে সরকারের অবস্থান জানায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে চিঠিও দিয়েছেন ড. মোমেন। এর এক সপ্তাহের মধ্যেই পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেনকে ফোন করে এ বিষয়ে কথা বলেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন।

যুক্তরাষ্ট্র সরকার নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি পরে বাংলাদেশকে অবহিত করেছে জানিয়ে ড. মোমেন সংসদে বলেন, ‘স্যাংশন দেওয়ার পর আমেরিকার সরকার আমাকে জানায়। জানার পরপরই আমি যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আলাপ করি। আমার আলাপ অত্যন্ত পজিটিভি ছিল। এসব সমস্যা দূরীভূত করার জন্য, যদি কোনো অভিযোগ থাকে, তা নিরসনের জন্য আমাদের নাম্বারস অব ডায়ালগ আছে। তিনি (মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী) বলেছেন সেগুলো তিনি করবেন।’

মোমেন জানান, আগামী মাসেই যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ‘পার্টনারশিপ ডায়ালগের’ কাজ শুরু হবে। এপ্রিল মাসে সিকিউরিটি ডায়ালগ হবে। তাছাড়া রয়েছে ইকোনমিক পার্টানারশিপ...। ’

‘আমরা আমেরিকারদের সঙ্গে একাধিক মিটিংয়ের আয়োজন করেছি। ইনশাআল্লাহ, আমরা যখনই তথ্যগুলো সঠিকভাবে তাদের কাছে পৌঁছতে পারব, আমার বিশ্বাস, র‌্যাবের মত একটি অত্যন্ত ভালো প্রতিষ্ঠানের ওপর থেকে নিশ্চয়ই স্যাংশন তুলে নেবে। বিশ্বাস করি এই নিষেধাজ্ঞা আমরা প্রত্যাহার করাতে পারব।’

র‌্যাবের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা উঠতে ‘সময় লাগবে’: মোমেন

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৬ জানুয়ারি ২০২২, ০৪:৫০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

এলিট ফোর্স র‌্যাব এবং এর সাবেক ও বর্তমান কর্মকর্তাদের ওপর যুক্তরাষ্ট্র যে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে, তা উঠতে ‘সময় লাগবে’ বলে জাতীয় সংসদে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন। তিনি বলেছেন, এই স্যাংশন উঠানোর বিষয়ে সরকার কাজ করছে। একটু সময় লাগবে। 

বুধবার জাতীয় সংসদে ৩০০ বিধিতে দেওয়া বিবৃতিতে ড. মোমেন এসব কথা বলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘অত্যন্ত দুঃখজনভাবে আমেরিকার সরকার র‌্যাবের এবং এর কতিপয় সাবেক ও বর্তমান কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সম্প্রতি নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। কোনো ধরনের পূর্ব আলোচনা ছাড়াই এই নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। আমাদের সঙ্গে কোনো আলোচনা তারা করেনি। প্রসেস কালকেই হবে না। সময় লাগবে। আমাদের ধৈর্য ধরতে হবে। আমরা আমেরিকার সঙ্গে একাধিক মিটিংয়ের আয়োজন করেছি। ইনশাআল্লাহ, আমরা যখনই তথ্যগুলো সঠিকভাবে তাদের কাছে পৌঁছতে পারব। আমার বিশ্বাস, র‌্যাবের মতো একটি অত্যন্ত ভালো প্রতিষ্ঠানের ওপর থেকে নিশ্চয় স্যাংশন তুলে নেবেন।’

যুক্তরাষ্ট্রে বিএনপি-জামায়াত ও সরকারের লবিষ্ট নিয়োগের প্রসঙ্গ খোলাসা করতে ড. মোমেন জাতীয় সংসদে এই বিবৃতি দেন।

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে গত ১০ ডিসেম্বর যুক্তরাষ্ট্র ‘গুরুতর’ মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে বাংলাদেশের র‌্যাবের সাবেক ও বর্তমান ৭ কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। যুক্তরাষ্ট্রের এ নিষেধাজ্ঞার প্রতিক্রিয়ায় ঢাকায় নিযুক্ত দেশটির রাষ্ট্রদূত আর্ল মিলারকে তলব করে সরকারের অবস্থান জানায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে চিঠিও দিয়েছেন ড. মোমেন। এর এক সপ্তাহের মধ্যেই পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেনকে ফোন করে এ বিষয়ে কথা বলেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন।

যুক্তরাষ্ট্র সরকার নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি পরে বাংলাদেশকে অবহিত করেছে জানিয়ে ড. মোমেন সংসদে বলেন, ‘স্যাংশন দেওয়ার পর আমেরিকার সরকার আমাকে জানায়। জানার পরপরই আমি যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আলাপ করি। আমার আলাপ অত্যন্ত পজিটিভি ছিল। এসব সমস্যা দূরীভূত করার জন্য, যদি কোনো অভিযোগ থাকে, তা নিরসনের জন্য আমাদের নাম্বারস অব ডায়ালগ আছে। তিনি (মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী) বলেছেন সেগুলো তিনি করবেন।’

মোমেন জানান, আগামী মাসেই যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ‘পার্টনারশিপ ডায়ালগের’ কাজ শুরু হবে।  এপ্রিল মাসে সিকিউরিটি ডায়ালগ হবে। তাছাড়া রয়েছে ইকোনমিক পার্টানারশিপ...। ’

‘আমরা আমেরিকারদের সঙ্গে একাধিক মিটিংয়ের আয়োজন করেছি। ইনশাআল্লাহ, আমরা যখনই তথ্যগুলো সঠিকভাবে তাদের কাছে পৌঁছতে পারব, আমার বিশ্বাস, র‌্যাবের মত একটি অত্যন্ত ভালো প্রতিষ্ঠানের ওপর থেকে নিশ্চয়ই স্যাংশন তুলে নেবে। বিশ্বাস করি এই নিষেধাজ্ঞা আমরা প্রত্যাহার করাতে পারব।’

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন