• শনিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
কেএম মোশাররফ হোসেন, মুলাদী প্রতিনিধি    |    
প্রকাশ : ২১ আগস্ট, ২০১৬ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
সেন্টুর পরিবারের খোঁজ রাখে না তার অনুসারীরা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে রক্ষায় মানবপ্রাচীর তৈরি করে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বর্বরোচিত গ্রেনেড হামলায় নিহত হন মুলাদী উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের রামারপোল গ্রামের মোস্তাক আহমেদ সেন্টু। নিহত হওয়ার এক যুগ অতিবাহিত হলেও মুলাদী উপজেলার সাধারণ মানুষের হৃদয়ে এখনও জাগ্রত রয়েছে মোস্তাক আহমেদ সেন্টুর স্মৃতি। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক মোস্তাক আহমেদ সেন্টু সাধারণ মানুষের হৃদয়ের বড় অংশ দখল করে আছেন। ২১ আগস্ট সকাল থেকে তার গ্রামের বাড়িতে কোরআনখানি, কবর জিয়ারত, আলোচনা সভা, মিলাদ মাহফিল, দোয়া মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। মোস্তাক আহমেদ সেন্টুকে ভুলতে পারেনি উপজেলাবাসী। জীবদ্দশায় যেসব নেতাকর্মী তার পাশে ছায়ার মতো থাকত তারা এখন কোনো খবর রাখে না। ওই সব নেতাকর্মী যেমন সেন্টুর পরিবারের খবর রাখার কোনো প্রয়োজন মনে করে না তেমনি প্রয়োজন মনে করে না নিহত সেন্টুর মৃত্যুবার্ষিকীতে সামান্য স্মরণসভা আয়োজনেরও। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার সময় তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী এবং বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বাঁচাতে গিয়ে গ্রেনেডের স্পি­ন্টারের আঘাতে জীবন দিয়েছিলেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপকমিটি সহ-সম্পাদক মুলাদী উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের রামারপোল গ্রামের মরহুম আফসার উদ্দীন আহমেদ হাওলাদারের পুত্র মোস্তাক আহম্মেদ সেন্টু।


 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত