আব্দুল কুদ্দুছ বসুনিয়া, কাউনিয়া    |    
প্রকাশ : ২১ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
রেজিয়ার হত্যাকারীদের ফাঁসি দেখতে চান সন্তানরা
আমরা দু’ভাই বেঁচে থাকতে আমাদের মায়ের হত্যাকারীদের ফাঁসি দেখে যেতে চাই। আমার নানারও শেষ ইচ্ছা ছিল তার মেয়ে হত্যার বিচার দেখে যাওয়ার; কিন্তু সে আশা পূর্ণ হওয়ার আগেই তিনি না ফেরার দেশে চলে যান। এ সরকারের আমলেই যেন মায়ের হত্যাকারীদের বিচার হয়। প্রথম দু-এক বছর স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মায়ের মৃত্যুবার্ষিকী পালন করলেও এখন আর কেউ তাদের খোঁজখবর রাখে না, জোটে না কোনো প্রকার সাহায্য সহযোগিতা। এ কথাগুলো আক্ষেপের সঙ্গে বলেন ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহত রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার গংগানারায়ণ গ্রামের মেয়ে রেজিয়ার দুই ছেলে নুরুন নবী ও হারুন মিয়া। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট শেখ হাসিনার জনসভায় ভয়াবহ গ্রেনেড হামলায় ঘটনাস্থলেই মারা যান রেজিয়া খাতুন।
তারা জানান, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৩ সালে শেখ হাসিনা তাদের ৮ লাখ টাকা দিয়েছেন এবং ঘটনার পর ১ লাখ টাকা পেয়েছেন। মোট ৯ লাখ টাকা দিয়ে জমি ক্রয় ও বন্ধক নিয়ে চাষাবাদ করে খাচ্ছি আমরা দু’ভাই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে নুরুন নবীর আকুতি তার একমাত্র মেয়ে হালিমা আক্তার এবার এইচএসসি পরীক্ষায় পাস করেছে, তাকে যেন একটি সরকারি চাকরি দেয়া হয়। তাহলে তাকে আর সাহায্যের জন্য কারও কাছে হাত পাততে হবে না। রেজিয়ার ছেলেমেয়েরা আরও জানান, রেজিয়া ঢাকার আগারগাঁওয়ে ভারতীয় দূতাবাসে ভিসায় ছবি লাগানোর কাজ করতেন এবং হাজারীবাগ এলাকায় বসবাস করতেন। ঢাকা মহানগর হাজারীবাগ এলাকার আওয়ামী লীগের নেত্রী আয়শা মোকাররমের হাত ধরে রেজিয়া মহিলা আওয়ামী লীগের কর্মী হন। দীর্ঘ এক যুগেরও বেশি সময় ঢাকায় আওয়ামী লীগের মিছিল-মিটিংয়ে রেজিয়ার ছিল সরব উপস্থিতি। এরই সূত্র ধরে ঘটনার দিন নিহত রেজিয়া আরও ২০ জন মহিলাকে সঙ্গে নিয়ে শেখ হাসিনার জনসভায় যোগ দেন। জনসভা চলাকালীন গ্রেনেড হামলায় রেজিয়া খাতুনের ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়। ২২ আগস্ট নিহত রেজিয়ার পিতা-মাতা মেয়ের মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে ঢাকায় গিয়ে মেয়ের লাশ শনাক্ত করেন। পরে তাকে ঢাকার আজিমপুর কবরস্থানে দাফন করা হয়। রেজিয়ার ছেলেদের দাবি- তার মায়ের হত্যার বিচার আমার নানা দেখে যেতে পারেননি, কিন্তু আমরা যেন এ সরকারের আমলেই মায়ের হত্যাকারীদের ফাঁসি দেখতে পাই।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত