ভৈরব প্রতিনিধি    |    
প্রকাশ : ২১ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
ভৈরবে নাজিমের দুর্বিষহ জীবন
শরীরে স্পি­ন্টারের ব্যথা আর যন্ত্রণা নিয়ে আজও দুর্বিষহ জীবন কাটাচ্ছেন ভৈরবের নাজিম উদ্দিন। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ঢাকার বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের জনসভায় তিনি গুরুতর আহত হন। এ ব্যথা আর কষ্ট সহ্য করার মতো নয়। তাই তার মনে হয় সেদিন মরে গেলেই ভালো হতো। অনেক দুঃখভারাক্রান্ত মন নিয়ে এ প্রতিনিধির কাছে শনিবার তার বাড়িতে বসে কথাগুলো বলেন তিনি। পরিবারে মা-বাবা, স্ত্রী আর ৩ সন্তান নিয়ে খুবই কষ্টে দিন কাটছে তার। শরীরে এখনও অসংখ্য স্পি­ন্টার রয়ে গেছে তার। এ জন্য আরও কয়েকটি অপারেশন করা প্রয়োজন কিন্তু আর্থিক অভাব-অনটনে অপারেশন করতে পারছেন না বলে জানান। ঘটনার দিন বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশে গ্রেনেড হামলায় নিহত হন ২২ জন এবং আহত হন অনেকে। ভৈরবের কালিকা প্রসাদ ইউনিয়নের আকবরনগর গ্রামের মফিজ উদ্দিন মেম্বারের ছেলে আওয়ামী লীগ কর্মী নাজিম উদ্দিন প্রিয় নেত্রী আইভী রহমানের ওপর গ্রেনেড পড়লে তাকে বাঁচাতে এগিয়ে যান। এ সময় একটু আগালেই নিজের শরীরের পা ও বুকে গ্রেনেড লেগে তিনিও গুরুতর আহত হন। পরে লোকজন তাকে প্রথমে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করেন। তারপর আওয়ামী লীগ নেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহায়তায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ভারতের পিয়ারলেস হাসপাতালে পাঠায়। তিন মাস চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরে আসেন তিনি। তখন ডাক্তাররা বলেছিলেন শরীরে থাকা আরও স্পি­ন্টার অপসারণ করতে পরবর্তীতে আরও দুই একবার অপারেশন করতে হবে। কিন্তু অর্থের অভাবে এখনও অপারেশন করতে পারছেন না বলে জানালেন তিনি। ভাগ্যক্রমে সেদিন বেঁচে গেলেও তিনি এখনও পুরোপুরি সুস্থ না হওয়ায় শরীরে স্পি­ন্টারের যন্ত্রণা নিয়ে দুর্বিষহ দিন কাটাচ্ছেন। এখনও প্রতিদিন তার ওষুধ খেতে হয়। চিকিৎসার জন্য ব্যয়ভার বহন করতে গিয়ে তিনি সহায়-সম্বল হারিয়েছেন। পরিবার নিয়ে অনেক দুঃখে কষ্টে দিন কাটছে তার।







আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত