• মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০
কেএম রায়হান কবীর,শরীয়তপুর থেকে    |    
প্রকাশ : ০৯ আগস্ট, ২০১৬ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
আওয়ামী লীগ প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত : ক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা
নড়িয়া পৌরসভা নির্বাচন
নড়িয়া পৌরসভার উপনির্বাচনে নৌকা প্রতীকের ভরাডুবি হয়েছে। মাত্র ৪৯৩ ভোট পাওয়ায় জামানাত বাজেয়াপ্ত হয়েছে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সিরাজুল ইসলাম চুন্নুর। মনোনয়ন প্রদানে সমন্নয়হীনতা, ত্যাগী কর্মীদের মূল্যায়ন না করায় একজন স্বতন্ত্র প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। স্থানীয় আওয়ামী লীগের গ্র“পিংয়ের কারণে এ ভরাডুবি হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন দলীয় প্রার্থী। এ নিয়ে নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। শরীয়তপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য স্বীকার করে বলেছেন, তৃণমূলের মতামতকে উপেক্ষা করে কেন্দ্রীয় কিছু নেতার প্রভাবে অযোগ্য প্রার্থীকে মনোনয়ন দেয়ায় এ ভরাডুবি হয়েছে।
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, নড়িয়া পৌরসভায় আওয়ামী লীগ থেকে মনোনীত মেয়র হায়দার আলী গত ৩০ ডিসেম্বর টানা চতুর্থবারের মতো মেয়র নির্বাচিত হন। এর কিছু দিন পরে ১৯ এপ্রিল তিনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুতে নড়িয়া পৌরসভা মেয়রের পদটি শূন্য হলে উপনির্বাচনের আয়োজন করে নির্বাচন কমিশন। তফসিল ঘোষণার পর দলীয় রীতি অনুযায়ী তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মতামত নিয়ে নড়িয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসান আলী রাঢ়ীকে মনোনয়নের জন্য প্রস্তাব পাঠানো হয় কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ডের কাছে। এতে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, নড়িয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদক, নড়িয়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদক ও শরীয়তপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য কর্নেল (অব.) শওকত আলীর অনুমোদন নেয়া হয়। কিন্তু কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ড তৃণমূলের মতামতকে উপেক্ষা করে হাসান রাঢ়ীকে মনোনয়ন না দিয়ে মনোনয়ন প্রদান করেন নড়িয়া কলেজের সাবেক ভিপি, দলীয় কর্মকাণ্ডে নিষ্ক্রিয় সিরাজুল ইসলাম চুন্নুকে। সিরাজুল ইসলাম চুন্নু মনোনয়ন পাওয়ায় তার বিপক্ষে মনোনয়নপত্র দাখিল করে আরও ৫ জন। তারা হলেন- শহিদুল ইসলাম বাবু রাঢ়ী (নারিকেল গাছ), প্রয়াত মেয়র পুত্র মাহমুদুল হাসান জুয়েল (জগ প্রতীক), সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আকতার হোসেন বেপারি (কম্পিউটার), মো. শাহেদুজ্জামান (রেলইঞ্জিন) ও কামরুল হাসান (মোবাইল ফোন)। ৭ আগস্ট নির্বাচনে ভোট গ্রহণ শেষে দেখা যায় ৫ হাজার ২৫২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন শহিদুল ইসলাম বাবু রাঢ়ী। তার নিকটতম প্রার্থী হিসেবে ৪ হাজার ৪১৭ ভোট পান সাবেক মেয়র পূত্র মাহমুদুল হাসান জুয়েল। কিন্তু ক্ষমতাসীন দলের নৌকা প্রতীকের সিরাজুল ইসলাম চুন্নু পেয়েছেন মাত্র ৪৯৩ ভোট। এতে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার মো. জালাল উদ্দিন। আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী সিরাজুল ইসলাম চুন্নু ক্ষোভ প্রকাশ ও অভিযোগ করে বলেন, কেন্দ ীয় মনোনয়ন বোর্ড আমাকে মনোনয়ন দিলেও স্থানীয় আওয়ামী লীগ আমার বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের পক্ষে কাজ করেছেন। তারা কেউ নৌকার পক্ষে কাজ করেননি।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত