শরীয়তপুর প্রতিনিধি    |    
প্রকাশ : ২৪ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
শরীয়তপুরে পদ্মায় নিখোঁজ ১৯
তিন মাস পর লঞ্চের উদ্ধার কাজ ফের শুরু
শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার ওয়াপদা ঘাট থেকে তিন মাস আগে ঝড়ের কবলে পড়ে প্রবল স্রোতের টানে পদ্মা নদীতে ৩টি লঞ্চ ৫০ জনযাত্রীসহ ডুবে যায়। সরকারি কোনো সহযোগিতা না পেয়ে অবশেষে ৩ মাস পরে মালিকপক্ষ নিজস্ব উদ্যোগে লঞ্চ ৩টি উদ্ধারের জন্য উদ্যোগ নিয়েছে। উদ্ধার অভিযান চলছে। একটি লঞ্চ আংশিক উদ্ধার হয়েছে। পুরোপুরি উদ্ধারের পরে বাকি দুটি উদ্ধার অভিযান শুরু হবে। এ উদ্ধার কাজে বিআইডব্লিউটিসি বা সরকারের অন্য কোনো সংস্থা কোনো সহযোগিতা করেনি বলে লঞ্চ মালিক ও নিখোঁজ পরিবারের অভিযোগ রয়েছে। এদিকে এখনও নিখোঁজ ১৯ জনের স্বজনরা লঞ্চ উদ্ধারের খবর পেয়ে পদ্মার পাড়ে ভিড় জমাচ্ছে। নড়িয়া থানা ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ১০ সেপ্টেম্বর রোববার রাতে সদরঘাট থেকে শরীয়তপুরের উদ্দেশে ছেড়ে আসা লঞ্চ এমভি মৌচাক-২ ও নারায়ণগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা এমভি নড়িয়া-২ ও মহানগর নামের ৩টি লঞ্চ শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার ওয়াপদা ঘাটে রাত অনুমান ৪টায় পৌঁছে যাত্রী নামায়। এরপর পল্টুনের পাশে একটি বাঁশঝাড়ের সঙ্গে নোঙ্গর করে রেখে লঞ্চে থাকা স্টাফ ও কিছু সংখ্যক যাত্রী লঞ্চে ঘুমিয়ে থাকে। ১১ সেপ্টেম্বর ভোর অনুমান সাড়ে ৫টায় নদীর তীব্র স্রোতের কারণে পাড় ধসে বাঁশেরঝাড়সহ লঞ্চ ৩টি ডুবে যায়। লঞ্চে থাকা স্টাফ ও কিছু যাত্রী লাফিয়ে পড়ে সাঁতরে তীরে উঠতে সক্ষম হয়। তবে লঞ্চে থাকা যাত্রী ও স্টাফ পারভিন, তার ৫ মাসের শিশুপুত্র ও তার মা ফখরুন্নেছা, রাসেল, স্বপন, তালুকদার, নড়িয়া-২ এর কেরানি স্বজল, সুকানি ছোরহাব হোসেন, গ্রিজার সাদেক আলী, লস্কর জয় বাড়ৈ, দোকানি রবিন, মহানগরীর সুকানি সফিক, চালক শাহ আলম, গ্রিজার সালাহ উদ্দিনসহ ১৯ জন নিখোঁজ রয়েছে বলে স্বজনদের দাবি করেন। ১২ জন নিখোঁজ রয়েছে বলে জানিয়েছেন নড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা। ডুবে যাওয়া ৩টি লঞ্চের মধ্যে মৌচাক নামের লঞ্চটি দূরবর্তী দুলারচর নামক স্থানে ওই দিনই সন্ধান পাওয়া যায়।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত