নূর ইসলাম রকি, খুলনা    |    
প্রকাশ : ০৯ আগস্ট, ২০১৬ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
কেসিসিতে ট্রেড লাইসেন্স নবায়নে ঘুষ বাণিজ্য
বর্তমানে খুলনা সিটি কর্পোরেশন-কেসিসিতে সব মিলিয়ে প্রায় ৩০ হাজার ট্রেড লাইসেন্সধারী রয়েছে। নগরীর ফুলবাড়িগেট, দৌলতপুর, খালিশপুর, সোনাডাঙ্গা, নিরালা, সদর থানাসহ বিভিন্ন এলাকার ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলোর লাইসেন্স নবায়ন চলছে। চলতি বছরের ১ জুলাই থেকে ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলোর লাইসেন্স নবায়ন কার্যক্রম শুরু হয়েছে, চলবে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। প্রত্যেক বছর এসব লাইসেন্স নবায়ন করার সময় কর্মকর্তাদের ঘুষ দিতে হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। ভুক্তভোগীরা বলেন, হোল্ডিং ট্যাক্সের মতো কেসিসি’র বিভিন্ন খাত অনুযায়ী ট্রেড লাইসেন্স নবায়নের প্রক্রিয়া সম্পূর্ণভাবে ব্যাংকের মাধ্যমে করলে ভোগান্তি কমবে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যবসায়ী জানান, রোববার তার ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের নবায়নের জন্য তিনি কেসিসি’র নতুন ভবনের লাইসেন্স শাখায় যান। এ সময় সেখানকার লাইসেন্স কর্মকর্তা ট্রেড লাইসেন্স নবায়ন বাবদ ২৬০০ টাকা, ব্যাংকে জমা ৩০০ টাকাসহ খুশি করার জন্য কিছু দিতে বলেন। নির্দিষ্ট কোনো টাকার অংক দাবি করেননি লাইসেন্স কর্মকর্তা। ব্যবসায়ী এ কাজের জন্য ৫শ’ টাকার সাতটি নোট অর্থাৎ ৩ হাজার ৫শ’ টাকা দিলে পুরো টাকাই রেখে দেন লাইসেন্স কর্মকর্তা। এ ভুক্তভোগী ব্যবসায়ী অতিরিক্ত টাকা রাখার কারণ জানতে চাইলে ওই কর্মকর্তা জানান, বছরে একবার আসেন ট্রেড লাইসেন্স নবায়নের জন্য। এ সময় সবাই আমাদের একটু খুশি করে থাকেন। একপর্যায়ে ব্যবসায়ী নবায়নকৃত ট্রেড লাইসেন্স দু’দিনের মধ্যে দেয়ার অনুরোধ করেন এবং ২শ’ টাকা ফেরত চান।
নগরীর দৌলতপুর এলাকার বিএল কলেজ রোড সংলগ্ন বইয়ের দোকানগুলোতে অন্যরকম খুশি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। কেসিসি’র এক লাইসেন্স কর্মকর্তা সেখানে গিয়ে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে পুরনো ট্রেড লাইসেন্স সংগ্রহ করেন। পাশাপাশি প্রত্যেক লাইসেন্স নবায়নের খরচাদি থেকে ৫শ’ টাকা হারে বেশি নিয়ে আসেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যবসায়ী জানান, আমরা কোনো ঝামেলা পোহাতে চাই না। কারণ তারা ইচ্ছে করলে আমাদের অনেক ক্ষতি করতে পারে। ৫শ’ টাকার বদলে পুরনো লাইসেন্স নিয়ে যায় এবং নবায়নকৃত লাইসেন্স দিয়ে যায়। বিষয়টি পত্রিকায় দিলে ওই কর্মকর্তা আমাদের ক্ষতি করতে পারে।
নগরীর বড় বাজারের ব্যবসায়ী মিঠু যুগান্তরকে বলেন, কেসিসি’র ট্রেড লাইসেন্স নবায়নে ঘুষ দিতে হয়- এটা নতুন কোনো খবর নয়। এ নিয়ে পত্র-পত্রিকায় লিখেও কোনো লাভ হবে না। হোল্ডিং ট্যাক্সের মতো লাইসেন্স নবায়ন ফি’র পুরো টাকা ব্যাংকে জমা নিলে ভোগান্তি কমবে।
কেসিসি’র ভারপ্রাপ্ত মেয়র আনিছুর রহমান বিশ্বাস সোমবার দুপুরে তার অফিস কার্যালয়ে যুগান্তরকে বলেন, লাইসেন্স নবায়নে বাড়তি টাকা লাগে- এমন প্রমাণ নেই। কেউ যদি এমন প্রমাণ দিতে পারে, তবে ব্যবস্থা নেয়া হবে।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত